সবুজকে পিছনে ফেলছে গেরুয়া আবির
তৃণমূল নেতারা অবশ্য দাবি করেছেন, তাঁরাও কিছু পরিমাণ সবুজ আবির কিনে রেখেছেন। আগামী ২৩ তারিখ পর্যন্ত তাঁরা অপেক্ষায় থাকবেন বলেই জানিয়েছেন। 
abir

শহরে দেদারে বিক্রি হচ্ছে গেরুয়া আবির। নিজস্ব চিত্র

বিভিন্ন সমীক্ষায় রাজ্যে বিজেপির আসন সংখ্যা অনেকটাই বাড়তে পারে বলে আভাস। দার্জিলিং লোকসভা কেন্দ্রও বিজেপি জিততে পারে বলে কিছু সমীক্ষায় বলা হয়েছে। আর তাতেই উন্মাদনা দেখা দিয়েছে শিলিগুড়ির বিজেপি শিবিরে। গত ১০-১২ দিন ধরেই তাঁরা গেরুয়া আবির কিনছিলেন বলে জানিয়েছেন কয়েক জন। বুথফেরত সমীক্ষা দেখার পরে শহরে গেরুয়া আবিরের বিক্রি এক লাফে অনেকটাই বেড়েছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারাই।   

শিলিগুড়ির মহাবীরস্থান, বিধান মার্কেটের আবির বিক্রেতাদের একাংশের দাবি, এ বার দার্জিলিং আসনটিতে বিজেপি, তৃণমূল দু’দলের নেতাই জয়ের ব্যপারে একশো শতাংশ আশাবদী ছিলেন। সে জন্য সবুজ এবং গেরুয়া আবির বেশি রাখা হয়েছে। তা বিক্রিও হচ্ছিল। কিন্তু বিভিন্ন সমীক্ষা দেখে ১৯ মে রাত থেকেই গেরুয়া আবির কেনার ধুম পড়ে গিয়েছে। মহাবীরস্থান বাজারের আবির বিক্রেতা কিশোর গুপ্ত জানিয়েছেন, কেউ কেউ তো ৫-১০ কেজির কমে কথাই বলছেন না। তিনি জানান, মানের উপর আবিরের দাম হয়। যে কোনও রঙের আবির একই মানের হলে তারও দাম একই হবে। কিন্তু কোনও সময় কোনও রঙের আবিরের চাহিদা বেশি হলে তার দামও বিক্রেতারা বাড়িয়ে দিতে পারেন। 

ওই আবির ব্যবসায়ী বলেন, ‘‘এ বছর গেরুয়া আবিরের চাহিদা ভাল। সমীক্ষা দেখার পর থেকে অন্য রঙের থেকে গেরুয়া আবির বিক্রি হচ্ছে অনেক বেশি।’’ বিধান মার্কেটের এক বিক্রেতাও জানান, ১০ কেজির এক বস্তা আবিরের দাম হয় ২৫০-৫০০ টাকা। কোনও রঙের আবিরের চাহিদা বেশি থাকলে খারাপ মানের আবিরও চড়া দামে বিক্রি হয়।    

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

সোমবার শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলা বিজেপির পক্ষ থেকে ভোট পরবর্তী পরিস্থিতি এবং বিজয় উৎসব নিয়ে একটি বৈঠক হয়েছে। জেলা সাধারণ সম্পাদক আনন্দময় বর্মণ বলেন, ‘‘বুথফেরত সমীক্ষা দেখে এক কুইন্ট্যাল আবির কিনেছেন। প্রত্যকটি বুথে আলাদা আলাদা করে বিজয় মিছিল হবে।’’  

তৃণমূল নেতারা অবশ্য দাবি করেছেন, তাঁরাও কিছু পরিমাণ সবুজ আবির কিনে রেখেছেন। আগামী ২৩ তারিখ পর্যন্ত তাঁরা অপেক্ষায় থাকবেন বলেই জানিয়েছেন। 

শেষে কোন রঙের আবিরে রাঙা হবে শিলিগুড়ির রাস্তা, সেই জবাব মিলবে ২৩ তারিখই।