ট্রেনের দরজা আটকে যাত্রীদের উঠতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূল ছাত্র পরিষদ সদস্যদের একাংশের বিরুদ্ধে। তার প্রতিবাদে ট্রেনে হামলা চালাল উত্তেজিত জনতা। রবিবার রাতে আলুয়াবাড়ি রোড স্টেশনের ঘটনা।

অভিযোগ, এ দিন রাত সাড়ে ১০টা নাগাদ অালুয়াবাড়ি পৌঁছয় নিউ জলপাইগুড়ি-শিয়ালদহগামী কাঞ্চনকন্যা এক্সপ্রেস। স্টেশনে থাকা যাত্রীরা ট্রেনের গেট খুলতে গিয়েই দেখেন গেট আটকানো ভিতর থেকে। ধাক্কাধাক্কি করেও খুলতে পারেননি তাঁরা। এর পরই গন্ডগোল বাধে। ট্রেনে ঢিলও ছুড়তে থাকে জনতা। রেল পুলিশের কর্মীরা পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। যাত্রীদের ট্রেনে বসার ব্যবস্থা করে দেয় রেল পুলিশ।

ইসলামপুরের বিধায়ক কানাইয়ালাল অগ্রবাল বলেন, ‘‘যাত্রীদের উঠতে না দেওয়া ঠিক নয়। সবাই উঠতে পারলেই সমস্যা হয় না।’’ আরপিএফের কিসানগঞ্জের ইন্সপেক্টর গম্ভীর বেগু বলেন, ‘‘ট্রেনে করে একটি রাজনৈতিক দলের লোকেরা কলকাতায় যাচ্ছিল, তখনই সমস্যা তৈরি হয়। দেখা হচ্ছে।’’

তৃণমূল ছাত্র পরিষদের ব্লক সভাপতি মকসুদ আলম বলেন, ‘‘এই ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তারা আমাদের কেউ নয়। পুলিশ ব্যবস্থা নিক।’’

সূত্রের খবর, তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন এলাকা থেকে ট্রেনে কলকাতায় রওনা দিয়েছিলেন সদস্যরা। যাত্রীদের দাবি, ইসলামপুর থেকে যাওয়ার এটাই শেষ ট্রেন। তার মধ্যেই ট্রেনটি দেরিতে পৌঁছনোয় বিরক্ত অনেকেই। তার উপরে ট্রেনের মধ্যেই দরজা আটকে তারা বসে থাকায় সরব হন তাঁরা।