• অভিজিৎ সাহা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

তিন মাসে মহিলাদের উপরে পরপর এত নৃশংস অত্যাচার কেন, প্রশ্ন উঠছে গৌড়বঙ্গে

দ্রুত সাজা হোক দোষীদের, দাবি উঠছে জেলায় জেলায় 

Punishment
প্রতীকী ছবি।

Advertisement

দিল্লির নির্ভয়া-কাণ্ডে ২২ জানুয়ারি ফাঁসি হতে চলেছে দোষীদের। ওই ঘটনার মতোই নৃশংস ভাবে খুন হয়েছেন মালদহ, দক্ষিণ দিনাজপুরের কয়েক জন তরুণীও। ইংরেজবাজার, মানিকচক, কুমারগঞ্জ, গঙ্গারামপুরে সে সব ঘটনাতেও দোষীদের দ্রুত কঠোর শাস্তির দাবিতে সরব গৌড়বঙ্গের দুই জেলার মানুষই।

পুলিশ জানিয়েছে, সে সবের মধ্যে কোনও অভিযোগে চার্জশিট পেশ করা হয়েছে আদালতে, কোনওটিতে মামলার বিচার চলছে। ইংরেজবাজারের ধানতলা-কাণ্ডে ঘটনার ৩৭ দিনের মধ্যে চার্জশিট পেশ করা হয়েছে। দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুরে গলার নলি কেটে তরুণী খুনের মামলারও বিচার শুরু হয়েছে। মানিকচক ও কুমারগঞ্জের ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়েছে। সে সব ঘটনাতেও দ্রুত চার্জশিট পেশ করা হবে।

নির্যাতিতা তরুণীর পরিবার-সহ সাধারণ মানুষ অবশ্য আইনের মাধ্যমে দোষীদের দ্রুত চরম শাস্তির দাবিতে সরব। গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তরের ছাত্রী মৌমিতা বিশ্বাস, সুপর্ণা সরকার বলেন, ‘‘দিল্লির নির্ভয়া-কাণ্ডে দোষীদের ফাঁসির সাজা হতে চলেছে। হায়দরাবাদ-কাণ্ডে দোষীরা পুলিশের এনকাউন্টারের মারা গিয়েছে। হায়দরাবাদ, দিল্লি বা উত্তরপ্রদেশের উন্নাওয়ের মতো অপরাধ এখানেও হয়েছে। গৌড়বঙ্গের চারটি ঘটনাতেও অপরাধীদেরও চরম শাস্তি দিতে হবে।’’ 

ইংরেজবাজারের ধানতলায় নিহত তরুণীর মা বলেন, ‘‘মুখ দেখে মেয়েকে চিনতে পারেনি। মুখটাকে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। এমন নৃশংস ভাবে যে খুন করেছে তাকেও দ্রুত চরম শাস্তি দিতে হবে। তবেই মেয়ের আত্মা শান্তি পাবে।’’ হায়দরাবাদ-কাণ্ড নিয়ে দ্বিমত থাকলেও আইনের মাধ্যমে দোষীদের সাজার বিষয়ে একমত সমাজের সমস্ত শ্রেণির মানুষ। অভিযোগ, গত তিন মাসে ইংরেজবাজারের ধানতলা ও কুমারগঞ্জে দুই তরুণীকে শ্বাসরোধ করে খুনের পরে দেহ পুড়িয়ে দেওয়া হয়। দু’টি ক্ষেত্রে অপরাধের ধরণের মিল রয়েছে বলে জানিয়েছেন তদন্তকারীদের একাংশ। গঙ্গারামপুরে তরুণীকে গলা কেটে খুন এবং মানিকচকের আমবাগানে তরুণীর দগ্ধ দেহ উদ্ধার নিয়েও হইচই হয়েছে জেলায়। 

মালদহ মহিলা কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ তথা সমাজতত্তবিদ কৃষ্ণা গুহ বলেন, ‘‘মানুষের মধ্যে এখন বেপরোয়া ভাব এসে গিয়েছে। চরম অপরাধ ঘটাতেও পিছু হটছে না। তাই আইনের মাধ্যমে ভয় জাগাতে হবে। দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। শাস্তির কথা বেশি করে তুলে ধরা প্রয়োজন।’’ 

আইনজীবী মহলের দাবি, প্রচুর মামলার বিচার চলছে। এ সব ঘটনা রুখতে পুলিশকে আরও সক্রিয় হতে হবে।

তথ্য সহায়তা: নীহার বিশ্বাস

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন