Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ ই-পেপার

বিনোদন

শুধু ঐশ্বর্যার ‘ছেলে’ নয়, খোঁজ মিলেছিল শাহরুখের ‘মা’-রও!

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৭ জানুয়ারি ২০১৮ ১৫:২৬
কয়েকদিন আগেই ঐশ্বর্যা রাইকে নিজের জন্মদাত্রী মা বলে দাবি করে সংবাদের শিরোনামে এসেছিলেন অন্ধ্রপ্রদেশের এক যুবক। ২৯ বছর বয়সী ওই যুবকের নাম সঙ্গীত কুমার। তবে এই প্রথম নয়। বিভিন্ন সময় বলিউডের নানা তারকাকে এমন মৌখিক দাবির সম্মুখীন হতে হয়েছে। তালিকায় রয়েছেন শাহরুখ, অভিষেক এমনকী ধনুষও।

২০১২ সালে শাহিদ কপূরকে কার্যত নাস্তানাবুদ করে ছেড়েছিলেন প্রয়াত অভিনেতা রাজকুমারের মেয়ে বাস্তবিক্তা। নিজেকে শাহিদের স্ত্রী বলে দাবি করেছিলেন তিনি। শুধু মৌখিক দাবি করে চুপ থাকা নয়, শাহিদের শুটিং সেটে মাঝে মাঝেই চলে যেতেন তিনি। এক বার শাহিদের ১৩ তলা অ্যাপার্টমেন্টের ফ্ল্যাটের দেওয়াল বেয়ে উঠে পড়েছিলেন মহিলা। শেষ পর্যন্ত পুলিশের দ্বারস্থ হয়ে নিস্তার পেয়েছিলেন শাহিদ।
Advertisement
এক বার এক ব্যক্তি নিজেকে দাবি করলেন রবিনা ট্যান্ডনের স্বামী বলে। ঘটনাটি ঘটেছিল ২০১৪ সালে। তত দিনে রবিনার বিয়েও হয়ে গিয়েছে ফিল্ম ডিস্ট্রিবিউটর অনিল ঠডানির সঙ্গে। রবিনা ওই ব্যক্তির নামে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। এর পর রবিনার ফ্ল্যাটে পাথর ছোড়া এবং স্বামী অনিলের উপর দুষ্কৃতী হামলা হয়েছিল বলে জানা গিয়েছিল। যদিও ওই ব্যক্তির নাম প্রকাশ্যে আসেনি।

খোঁজ মিলেছিল শাহরুখের হারিয়ে যাওয়া ‘মা’-এরও। ১৯৯৬ সালে মহারাষ্ট্রের লাতুরের এক মহিলা নিজেকে শাহরুখের মা বলে দাবি করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ১৯৬০ সালে দিল্লি থেকে মুম্বই আসার সময় শাহরুখ খানকে হারিয়ে ফেলেন তিনি। পরে বহু খোঁজেও শাহরুখকে পাননি। শেষ পর্যন্ত শাহরুখের একটি ফিল্ম পোস্টার দেখে তাঁকে চিনতে পেরেছিলেন ওই মহিলা। আদালতের দ্বারস্থ হয়ে নিজেকে শাহরুখের ‘মা’ প্রমাণ করতে চেয়েছিলেন তিনি। যদি আদালত সেই মামলা খারিজ করে দেয়।
Advertisement
গত বছরই দক্ষিণী ফিল্মের সুপারস্টার ধনুষকে নিজেদের সন্তান বলে দাবি করেছিলেন তামিলনাড়ুর এক দম্পতি। আর কেথারিসন ও কে মীনাক্ষী নামে ওই দম্পতি জানিয়েছিলেন ধনুষ তাঁদের তৃতীয় সন্তান। শিবগঙ্গার থিরপুয়াথুরের একটি স্কুলে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি করার পর সেখান থেকে নাকি পালিয়ে যান ধনুষ। আদালতে বার্থ সার্টিফিকেট এবং ছবি দেখিয়ে মামলা করেছিলেন ওই দম্পতি। যদিও মাদ্রাজ হাইকোর্ট এই মামলা খারিজ করে দেয়।

শুধু ঐশ্বর্যাই নন। অভিষেককেও পরতে হয়েছিল এমনই ‘আজব’ দাবির পাল্লায়। ২০০৭ সালে জাহ্নবী কপূর নামে এক মডেল আত্মঘাতী হওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। মুম্বইয়ে বচ্চনদের বাংলোর সামনে দাঁড়িয়ে হাতের শিরা কাটার চেষ্টা করেছিলেন তিনি। তাঁর দাবি ছিল, তিনি অভিষেক বচ্চনের স্ত্রী। হঠাত্ করেই অভিষেক ঐশ্বর্যাকে বিয়ে করে ফেলেছেন। ‘দশ’ ছবির শুটিংয়ের সময় আলাপের পর নাকি বিয়ে করেছিলেন তাঁরা। যদিও কোনও ভাবেই তা প্রমাণ করতে পারেননি ওই মডেল।