Advertisement
০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Lopamudra Mitra

Lopamudra Mitra: বাংলা গানের জন্য চ্যানেলে আগুন ধরাতে জানি না, আমরা এক নই, আক্ষেপ লোপামুদ্রার

অসমিয়া যুবক জবাব দিয়েছিলেন, ‘‘হ্যাঁ বাজাবে, না বাজালে চ্যানেলে আগুন ধরিয়ে দেব!’’

আক্ষেপ লোপামুদ্রার

আক্ষেপ লোপামুদ্রার

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ ১৭:৩৯
Share: Save:

রূপঙ্কর বাগচীও আনন্দবাজার অনলাইনের আড্ডায় এসে আক্ষেপ করেছিলেন। সেই আক্ষেপ এ বার লোপামুদ্রা মিত্রের কথাতেও। আনন্দবাজার অনলাইন আয়োজিত শনিবারের লাইভ আড্ডায় গায়িকার সেই আক্ষেপ কি বাংলার কণ্ঠশিল্পীদের প্রকৃত অবস্থান আরও এক বার প্রকাশ্যে আনল? তিনিও রূপঙ্করের মতোই জানিয়েছেন, বাংলা গান না বাজালে এফএম চ্যানেল জ্বালিয়ে দেওয়ার মতো মানসিকতা বাংলার শিল্পীদের নেই। এখানকার গায়ক-গায়িকারা একেবারেই ঐক্যবদ্ধ নন। যে যার আখের গোছাতে ব্যস্ত।

আড্ডায় কথা প্রসঙ্গে উঠে এসেছিল গানের প্রতিযোগিতামূলক বা রিয়্যালিটি শো-এর কথা। ‘সঙ্গীতের মহাযুদ্ধ’ শো-তে তিনি অন্যতম বিচারক ছিলেন। আনন্দবাজার অনলাইনের তরফ থেকে প্রশ্ন ছিল, রিয়্যালিটি শো আদৌ কি শিল্পী তৈরি করে? প্রতিযোগিতায় উঠে আসা অংশগ্রহণকারীদের ভবিষ্যৎ কী? তখনই লোপামুদ্রার উত্তর, ‘‘শিল্পীদের সংযমী হতে হবে। শুধুই অর্থের নেশায় ঘুরেফিরে এক গান গাইলে হবে না। নতুন গানের জন্ম দিতে হবে তাঁদেরও।’’ উদাহরণ হিসেবে বলেন, তাঁর প্রথম অ্যালবামের গান ‘বেণীমাধব’। যা তাঁর মতে শুরুতেই ততটাও জনপ্রিয় হয়নি। ফলে, মিউজিক সংস্থা থেকে তাঁকে পুরনো দিনের গান নতুন ভাবে গাওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। তিনি সেই প্রস্তাবে সাড়া তো দেনইনি, উল্টে জেদ ধরে বলেছিলেন, ‘‘বাংলা নতুন আধুনিক গান ছাড়া আর কিচ্ছু গাইব না। আমি শুধুই আমার গান গাইব।’’

শিল্পীর এই জেদকে মান্যতা দিয়েছিল তৎকালীন বিভিন্ন রেডিয়ো চ্যানেল। সেখানে তখন শুধুই রমরমিয়ে বাংলা আধুনিক গান বাজত। কালে কালে তাতেও ভাটার টান। এখন হিন্দি সহ সমস্ত ভাষার গান সেখানে বাজে। কেবল বাংলা গান ছাড়া। লোপামুদ্রার এখানেই আক্ষেপ। তিনি দাবি করেছেন, কিছু দিন আগে তাঁর বুটিকের কাজের জন্য গিয়েছিলেন অসমে। তখন গুয়াহাটিতে একটি বেসরকারি এফএম চ্যানেলের উদ্বোধনে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল শিল্পীকে। তাঁর সঙ্গে স্থানীয় এক যুবক গায়ক বিহু গান গাইতে গিয়েছিলেন। কথায় কথায় লোপামুদ্রা তাঁকে জিজ্ঞেস করেন, অসম রেডিয়ো চ্যানেলে আঞ্চলিক নতুন গান বাজানো হয়? সেই যুবকের সপাট জবাব, ‘‘হ্যাঁ বাজায়। না বাজালে চ্যানেলে আগুন ধরিয়ে দেব!’’

​​​​​​​লোপামুদ্রা বিস্ফোরক, ‘‘বাংলা গানের জন্য আমরা এ ভাবে চ্যানেলে আগুন ধরাতে জানি না। আমরা কথায় যা বলি, কাজে কিচ্ছু করি না। সারাক্ষণ শুধুই নিজের পকেট ভরাতে ব্যস্ত। নিজের নাম-ডাক-খ্যাতি-প্রতিপত্তি হলেই খুশি। নিজেদের ভাষার কী হল, কেউ তা নিয়ে ভাবিই না!’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.