×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৯ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

বিনোদন

হৃতিকের সঙ্গে সম্পর্ক, বিচ্ছেদের গুঞ্জন… বহু পথ পেরিয়েও অটুট বচ্চন-কন্যার দাম্পত্য

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৩:২৭
রাজ কপূর তাঁর দাদু। অমিতাভ বচ্চন সম্পর্কে শ্বশুরমশাই। কিন্তু তাঁর কোনওদিন অভিনেতা হওয়ার ইচ্ছে হয়নি। বরং, লাইট-সাউন্ড-ক্যামেরার দুনিয়া থেকে দূরে তিনি নিজের পরিচয় তৈরি করেছেন বাণিজ্যমহলে। নিখিল নন্দা আজ দেশের প্রথম সারির ব্যবসায়ীদের মধ্যে অন্যতম।

বিখ্যাত ব্যবসায়ী পরিবারে নিখিলের জন্ম ১৯৭৪ সালের ১৮ মার্চ, নয়াদিল্লিতে। তাঁর বাবা শিল্পপতি রাজন নন্দা ছিলেন ‘এসকর্টস গ্রুপ’-এর চেয়ারম্যান এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর। নিখিলের মা ঋতু নন্দা ছিলেন জীবনবিমা নিগমের এজেন্ট এবং উপদেষ্টা। পরে তিনি নিজেই আলাদা করে বিমা সংস্থা শুরু করেন।
Advertisement
দুন স্কুলের প্রাক্তনী নিখিল পরে উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাড়ি দিয়েছিলেন। পেনসিলভ্যানিয়া ইউনিভার্সিটির হোয়ার্টন স্কুল থেকে তিনি বিজনেস ম্যানেজমেন্ট নিয়ে পড়াশোনা করেন।

২০০৫ সালে নিখিল চিফ অপারেটিং অফিসার হিসেবে ‘এসকর্টস লিমিটেড’-এ যোগ দেন। পরে উন্নীত হন জয়েন্ট ম্যানেজিং ডিরেক্টর পদে। ২০১৮ সালে তাঁর বাবার মৃত্যুর পরে নিখিলই দায়িত্ব পান সংস্থার চেয়ারম্যান পদের।
Advertisement
কৃষিকাজে এবং যানবাহন শিল্পে উপযোগী যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ নির্মাণকারী এই সংস্থা ‘এসকর্টস লিমিটেড’ ১৯৪৮ সালে তৈরি করেছিলেন নিখিলের ঠাকুরদা হরপ্রসাদ নন্দা।

১৯৯৭ সালে অমিতাভ এবং জয়া বচ্চনের মেয়ে শ্বেতাকে বিয়ে করেন নিখিল। তাঁদের মেয়ের নাম নব্যা নবেলী এবং ছেলে, অগস্ত্য।

নিখিলের সঙ্গে বিয়ের পরে ঘরসংসার নিয়েই ব্যস্ত ছিলেন শ্বেতা। বলিউড বা শ্বশুরবাড়ির পারিবারিক ব্যবসা, কোনও দিকেই সক্রিয় হতে দেখা যায়নি বচ্চনকন্যাকে। স্বামী এবং দুই সন্তানকে নিয়ে তাঁর সংসার ছিল দিল্লিতে।

কিন্তু গত কয়েক বছরে ছবিটা পাল্টে গিয়েছে বেশ কিছুটা। শ্বেতাকে এখন অনেক বেশি দেখা যায় বলিউডের পার্টিতে। শোনা যায়, দুই সন্তানকে নিয়ে তিনি এখন বাবা মায়ের কাছেই থাকেন।

হৃতিক রোশনের সঙ্গে শ্বেতার সম্পর্কের গুঞ্জনও শোনা গিয়েছে একসময়। প্রসঙ্গত হৃতিক এবং শ্বেতা বাল্যবন্ধু।

সুজানের সঙ্গে বিচ্ছেদের পরে নাকি শ্বেতার সঙ্গে বন্ধুত্ব গাঢ় হয় হৃতিকের। সে সময় তাঁরা একসঙ্গে পার্টিতেও যেতেন। কিন্তু পরে কঙ্গনার আগমন হয় হৃতিকের জীবনে। এর পর আবার পাল্টে যায় সম্পর্কের সমীকরণ।

বচ্চন পরিবার সব সময়েই বিতর্ক থেকে দূরে থাকতে পছন্দ করে। শোনা যায়, সেই ধারা মেনে শ্বেতাও সরে যান সম্পর্কের ওই টানাপড়েন থেকে। এর পর বলিউডের আর কোনও তারকার সঙ্গে অবশ্য তাঁর নাম জড়িয়ে কিছু শোনা যায়নি।

শ্বেতার ইনস্টাগ্রামেও নিখিলের উপস্থিতি কার্যত নেই। বরং, অমিতাভ, জয়া, অভিষেক, ঐশ্বর্যা এবং দুই সন্তানের সঙ্গে নিজের অনেক মুহূর্ত সেখানে শেয়ার করেন শ্বেতা।

সব মিলিয়ে, ক্রমেই ঘনিষ্ঠ হয় নিখিল-শ্বেতা বিচ্ছেদ প্রশ্ন। তবে সব জল্পনা কল্পনায় জল ঢেলে দেয় ঋতু নন্দার মৃত্যু। শ্বাশুড়ির মৃত্যুর পরে পারলৌকিক কাজে উপস্থিত ছিলেন শ্বেতা-সহ পুরো বচ্চন পরিবারই।

হিন্দি ছবির ভক্তদের ধারণা, বিতর্ক থেকে দূরে থাকার রীতি এখনও মেনে চলছে বচ্চন পরিবার। তাই সম্পর্কে দ্বন্দ্ব বা ফাটল দেখা দিলেও বিচ্ছেদের পথে যাননি শ্বেতা।

তবে ফিল্মি গুঞ্জন যেমন শোনা যায় আবার মিলিয়েও যায়। এ ক্ষেত্রেও সে রকমই হয়েছে। নিখিল, শ্বেতা বা দু’জনের পরিবার এ বিষয়ে বরাবরই চুপ।