×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

৩০ জুলাই ২০২১ ই-পেপার

দেশ

‘সস্তা’য় নীরব মোদীর রোল্‌স রয়েস কিনে নিলেন এই হস্তশিল্প ব্যবসায়ী

সংবাদ সংস্থা
জোধপুর ০২ জুন ২০২০ ১৫:৩৮
এ বার জোধপুরের রাস্তায় দৌড়বে রত্ন ব্যবসায়ী তথা ব্যাঙ্ক জালিয়াতি কাণ্ডে লন্ডনে জেলবন্দি নীরব মোদীর বহুমূল্য রোল্‌স রয়েস গাড়ি। নগদ ২ কোটি টাকা দিয়ে সেটি কিনে নিয়েছেন মনোজ শর্মা নামের রাজস্থানের এক ব্যবসায়ী।

১৩ হাজার কোটির ব্যাঙ্ক জালিয়াতিতে অভিযুক্ত নীরব মোদী এই মুহূর্তে লন্ডনে জেল খাটছেন। এ দিকে তাঁর সম্পত্তি নিলাম করে টাকা তুলতে শুরু করেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।
Advertisement
মার্চের মাঝামাঝি মার্সিডিজ বেঞ্জ-সহ নীরব মোদীর মোট ১৩টি গাড়ি নিলামে তোলে ইডি, যার মধ্যে শামিল ছিল বহুমূল্য রোল্‌স রয়েস গোস্ট-ও। ভারতীয় বাজারে এই গাড়ির দামই শুরু ৬ কোটি ৮৩ লক্ষ টাকা থেকে।

কিন্তু শুরুতে নীরব মোদীর এই রোল্‌স রয়েসের দামই উঠছিল না। কেউ কেউ গাড়ির দাম দিয়েছিলেন ৭৫ লক্ষ টাকা। কিন্তু শেষমেশ বাজিমাত করেন মনোজ শর্মা। দেড় কোটি টাকার বিনিময়ে গাড়িটি কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করেন তিনি।
Advertisement
আরও অনেকের সঙ্গে অনলাইনে গাড়িটি কিনতে আবেদন জানিয়েছিলেন মনোজ শর্মা। তাতে তিনিই জয়ী হন। তবে দেড় কোটি টাকা দাম রাখলেও, ২২ শতাংশ কর ও অন্যান্য খরচ মিলিয়ে গাড়িটির দাম এসে ঠেকে ২ কোটি ১৫ লক্ষ টাকায়।

নগদ টাকাতেই ধূসর রঙের গাড়িটি কিনে নেন মনোজ শর্মা। লকডাউন চলাকালীন গত ১৯ মে গাড়িটি তাঁর জোধপুরের বাড়িতে পৌঁছয়। সপরিবারে গাড়িটির সঙ্গে ছবিও তোলেন মনোজ। আগামী দিনে সেটি নিয়ে রাস্তায় বেরনোরও ইচ্ছে রয়েছে তাঁর।

নীরব মোদীর যে রোল্‌স রয়েস গোস্ট গাড়িটি মনোজ শর্মা কিনেছেন, সেটি ২০১০ সালের মডেল। ৫ সেকেন্ডে ১০০ পর্যন্ত স্পিড তুলতে পারে গাড়িটি। ঠিক মতো যত্ন নিলে সারাজীবন চালানো যাবে সেটি।

তবে এত দিন মহারাষ্ট্রে সেটি রেজিস্টার্ড ছিল। জোধপুরের রাস্তায় সেটি চালানোর আগে সেখানে নতুন করে রেজিস্ট্রেশন করাতে হবে।

তবে শুধু রোল্‌স রয়েসই নয়, হস্তশিল্প ব্যবসায়ী মনোজ শর্মার গ্যারেজে একাধিক বহুমূল্য গাড়ি রয়েছে। হাই স্পিডের মোটরবাইকেরও শখ রয়েছে তাঁর।

মনোজ শর্মার বাবা এল এন শর্মা ১৯৮৭ সালে ‘জাতীয় পুরস্কার’ও পান। এই মুহূর্তে দাদা প্রবীণ শর্মার সঙ্গে মিলে ব্যবসা চালান মনোজ শর্মা। ঘর সাজানোর জিনিস থেকে শুরু করে আসবাব, এ সবের পারিবারিক ব্যবসা রয়েছে তাঁদের। বিদেশেও জিনিসপত্র রফতানি করে তাঁদের সংস্থা।