লস্কর-ই-তইবাকে সন্ত্রাসবাদী সংগঠন বলেই মনে করে আমেরিকা। সেই লস্করের নেতা হাফিজ সইদকে গৃহবন্দি দশা থেকে মুক্তি দিয়ে ভাল করেনি পাকিস্তান— এ কথা জানিয়ে আজ ফের ইসলামাবাদের বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠল ওয়াশিংটন।

মার্কিন প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মুম্বই হামলার অন্যতম চক্রী ও জঙ্গি সংগঠন লস্করের প্রতিষ্ঠাতা হাফিজ যে আগামী বছর ভোটে দাঁড়াতে চলেছে, সেই বিষয়টিকে তারা যথেষ্টই নজরে রাখছে। তাদের প্রশ্ন, সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের দায়ে হাফিজের মাথার দাম ১ কোটি ডলার ঘোষণা করা হয়েছে। আর তিনি কি না নির্বাচনে লড়বেন!  দীর্ঘদিন গৃহবন্দি থাকার পরে গত ২৪ নভেম্বরে মুক্তি পান হাফিজ। তখনই পাক-আচরণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিল হোয়াইট হাউস। তাঁকে পুনরায় গ্রেফতার করার দাবি জানায় আমেরিকা। কিন্তু তাতে সিদ্ধান্ত বদলায়নি পাকিস্তান। আমেরিকার পাক কূটনীতিকরা উল্টে জানান, হাফিজের বিরুদ্ধে কোনও প্রমাণ নেই। মুক্তি পেয়েই হাফিজ ঘোষণা করে দেন, ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে ‘মিল্লি মুসলিম লিগ’-এর ব্যানারে তিনি লড়বেন। যদিও নির্বাচন কমিশনে হাফিজের দলের নথিভুক্তিকরণ এখনও হয়নি।

হাফিজের মাথার দাম ১ কোটি ডলার ঘোষণা করেছে আমেরিকাই। তাঁকে সন্ত্রাসবাদীর তকমা দিয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জ। নয়ার্ট বলেন, ‘‘আমি ওদের মনে করিয়ে দিতে চাই, হাফিজকে শাস্তি দেওয়া যায়, এমন কোনও তথ্য দিতে পারলে, ১ কোটি ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছে আমেরিকা। একটা লোকের জন্য ১ কোটি ডলার! আমেরিকা যখন ওদের সন্ত্রাসবাদী সংগঠন বলছে, তখন নিশ্চই তার কারণ আছে।’’ তবে শেষে নয়ার্ট বলেছেন, ‘‘এখনও আশা করছি, পাকিস্তান সঠিক সিদ্ধান্তই নেবে।’’