আর এক মাস পরেই ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচন। তার আগে ব্রিটিশ হিন্দুদের কাছে হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ যাচ্ছে: ‘লেবার পার্টিকে ভোট দেবেন না।’ ভোটের কাজে এ ভাবে হোয়াটসঅ্যাপকে কাজে লাগানো নিয়ে ব্রিটেনে তৈরি হয়েছে উদ্বেগ।

এখানকার একটি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, লেবার পার্টির বিরুদ্ধে ২০টিরও বেশি পৃথক এমন মেসেজ ফরোয়ার্ড করা হচ্ছে। কোনওটায় বলা হচ্ছে, ‘প্রত্যেক প্রকৃত ভারতীয়কে এটা পাঠান। লেবার পার্টিকে সমর্থন করার মতো ভারতীয়দের কাছে আর কোনও কারণ নেই।’ আর একটি মেসেজে রয়েছে, ‘লেবার পার্টি হিন্দু-বিরোধী, ভারত-বিরোধী।’ এই সূত্রে বলা হয়েছে, ‘যত বেশি আসনে হোক, লেবার পার্টিকে হারিয়ে দিন।’ তৃতীয় মেসেজের বয়ান, ‘লেবার প্রার্থীদের দোরগোড়ায় গিয়ে জিজ্ঞেস করুন, পাকিস্তানে কেন নিত্যদিন হিন্দু মেয়েদের তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্মান্তরণ করা হচ্ছে, মুসলিমদের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হচ্ছে?’ 

এ নিয়ে লেবার এমপি তনমনজিৎ সিংহ দেশি বলেছেন, ‘‘এই মেসেজ দেখে অনেকেই ভাবছেন, এ সব সত্যি কথা। এটা ভয়ঙ্কর উদ্বেগের বিষয়।’’ মেসেজগুলি কোথা থেকে আসছে, কত দূর পর্যন্ত ছড়িয়ে গিয়েছে, তার কোনও হদিস মেলেনি। কনজ়ারভেটিভ দলের এক মুখপাত্র বলেছেন, বিষয়টি দলে তদন্তাধীন। অনেক মেসেজে কাশ্মীরের উল্লেখও রয়েছে। কোথাও লেখা, ‘কাশ্মীরে ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করা নিয়ে লেবার পার্টি পাকিস্তানের মতামত অন্ধ ভাবে সমর্থন করছে, যেটা আসলে ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়।’ কোথাও আছে, লেবার ‘পাকিস্তানেরই মুখপত্র।’

হোয়াটসঅ্যাপের মুখপাত্র ওই সংবাদমাধ্যমটিকে বলেছেন, ‘‘ভুয়ো তথ্য ছড়ানো রুখতে হোয়াটসঅ্যাপ বদ্ধপরিকর। ভবিষ্যতে এ ধরনের বিষয় ছড়ানো আটকাতে আমরা আরও নয়া কৌশল বার করার চেষ্টা করব।’’