জইশ-ই-মহম্মদ নেতা মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদীর তালিকায় আনতে নিরাপত্তা পরিষদে প্রস্তাব এনেছিল ফ্রান্স। চিনের আপত্তিতে তা আটকে যাওয়ার পরেও হাল ছাড়ছে না তারা। বিকল্প রাস্তায় মাসুদকে চাপে ফেলার চেষ্টা এ বার শুরু করেছে তারা। ফরাসি সরকারের পক্ষ থেকে আজ বিবৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, সে দেশে মাসুদের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করবে তারা। ইউরোপের অন্যান্য দেশকেও এই আর্জি জানাচ্ছে তারা। 

ভারতের পক্ষে অবশ্যই এ’টি সুখবর। সামনে লোকসভা ভোট। তার পর যে সরকারই ক্ষমতায় আসুক, তার কাছে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে সীমান্তপারের সন্ত্রাস সামলানো এবং পাকিস্তানের মাটিতে গড়ে ওঠা সন্ত্রাস পরিকাঠামো নির্মূল করার বিষয়টি। আজ ভারতকে আশ্বস্ত করে প্যারিস ফের জানিয়েছে —সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সব সময়েই তারা ভারতের পাশে ছিল, পরেও থাকবে।  

ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্র, অর্থ ও বিদেশ মন্ত্রকের তরফে যৌথ বিবৃতিটিতে বলা হয়েছে, ‘নির্দিষ্ট আইনে মাসুদ আজহারের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হবে’। বিবৃতিতে পুলওয়ামায় জঙ্গি হানার প্রসঙ্গও উল্লেখ করে বলা হয়েছে, ‘ওই হামলার দায় স্বীকার করেছে জইশ-ই-মহম্মদ। এই জইশকে ২০০১ সাল থেকেই জঙ্গি গোষ্ঠী হিসেবে ঘোষণার চেষ্টা করে যাচ্ছে রাষ্ট্রপুঞ্জ’। সে জন্যই এই জঙ্গি সংগঠনের মাথা মাসুদ আজহারের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার জন্য ইউরোপের মিত্র দেশগুলিকে আর্জি জানাবে ফ্রান্স। ইউরোপে জঙ্গি সংগঠনের তালিকায় জইশকে অন্তর্ভুক্তির দাবিও জানানো হবে এই দেশগুলির কাছে। 

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯