খোলা হাওয়া প্রবেশ করছিল সৌদি আরবে। খুলেছে সিনেমা হল। মিলেছে মহিলাদের গাড়ি চালানোর অনুমতি পত্র। তারই মধ্যে যেন ছন্দপতন। হোটলের ডেস্কে বসেই ব্রেকফাস্ট সারছিলেন দুই সহকর্মী। এক জনের মুখ হিজাবে ঢাকা। অপর জন পুরুষ। ভিডিয়ো করার সময় পুরুষ সহকর্মীর মুখে খাবার তুলে দিয়েছিলেন ওই মহিলা।

মহিলা সহকর্মীর সঙ্গে ব্রেকফাস্টের এই ভিডিয়ো পোস্ট করেন সৌদি আরবে কর্মরত এই ব্যক্তি। স্রেফ এই অভিযোগেই গ্রেফতার করা হল তাঁকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ফুটেজ প্রকাশিত হওয়ায় সঙ্গে সঙ্গেই  তীব্র নিন্দা করেন সৌদির ‘রক্ষণশীল’ নাগরিকেরা। যদিও অনেক নেটিজেন এই ঘটনার বিরোধিতাও করেছেন।

কেউ কেউ বলেন, সৌদির ঐতিহ্যের সঙ্গে একেবারেই যায না এই ধরনের ভিডিয়ো।  কেউ বলেন, এটা তো খুব সাধারণ একটা ঘটনা।সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, সৌদিতে একটি হোটেল রয়েছে এই ব্যক্তির। সৌদির শ্রম মন্ত্রক সূত্রে জানানো হয়েছে, এই নাগরিক সরকারি বিধিভঙ্গ করেছেন।

দেখুন ভিডিয়ো: 

সৌদি নাগরিকের এই আচরণকে ‘অফেনসিভ ব্রেকফাস্ট’ হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে সৌদির তরফে। বলা হয়েছে, শুধু সহকর্মীর মুখে খাবার তুলে দেওয়া নয়, পরস্পরকে হাসতেও দেখা যায় ওই ভিডিয়োতে। মহিলা হিজাব পরে থাকলেও এক সঙ্গে হাসিগল্প করার বিষয়টি নাকি বোঝা গিয়েছে। 

আরও পড়ুন: হোয়াটসঅ্যাপ এল জিও ফোনে, ডাউনলোড জিও অ্যাপ স্টোর থেকেই

রেস্তরাঁ, কাজের জায়গা এবং বাইরেও অবিবাহিত পুরুষ ও মহিলাদের পরস্পরের থেকে বেশ খানিকটা দূরত্বে বসাই নিয়ম সৌদি আরবে। সংবাদ সংস্থা সূত্রের খবর, এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মিশরের ওই নাগরিকের পাঁচ বছরের কারাবাস হতে পারে। তাঁর নামে যৌন হেনস্থার অভিযোগ আনাও হতে পারে। 

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, আন্তর্জাতিক চুক্তি, আন্তর্জাতিক বিরোধ, আন্তর্জাতিক সংঘর্ষ- সব গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক খবর জানতে চোখ রাখুন আমাদের আন্তর্জাতিক বিভাগে।