৯১১-এ ফোন গিয়েছিল তাঁদের কাছে। পারিবারিক হিংসা সংক্রান্ত কোনও এক মামলায় ডাক পড়েছিল দুই পুলিশ অফিসার এরিক জোরিং এবং অ্যান্টনি মোরেলির। কিন্তু সেই ঝামেলা মেটাতে গিয়ে গুলি লেগে মৃত্যু হল ওই দুই অফিসারের।

আমেরিকার ওহায়োর কলম্বাসের ওয়েস্টারভিল শহরতলির ঘটনা। ওয়েস্টারভিল পুলিশের প্রধান জো মরবিটজার জানিয়েছেন, কাল তাঁদের কাছে ফোন যায় কোনও এক পরিবারে গোলমাল লেগেছে। সেখানে পাঠানো হয় এরিক এবং অ্যান্টনিকে। কিন্তু ঘটনাস্থলে পৌঁছনো মাত্র ওই পুলিশ অফিসারকে লক্ষ করে গুলি ছোড়া হয়। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় উনচল্লিশ বছরের এরিকের। হাসপাতালে মারা যান আর এক অফিসার, বছর চুয়ান্নর অ্যান্টনির। যে ওই দুই পুলিশ অফিসারের উপর হামলা করেছিল, গুলি করা হয় তাকেও। গ্রেফতার করা হয়েছে তাকে। আপাতত হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে সে। কিন্তু পুলিশের তরফে নাম-পরচয় প্রকাশ করা হয়নি ওই বন্দুকবাজের। কী কারণে ৯১১-য় ফোন করে সে পুলিশের উপর গুলি চালাল, তা-ও স্পষ্ট নয়।

দুই সহকর্মীর আকস্মিক মৃত্যুতে স্তম্ভিত পুলিশ প্রধান জো সাংবাদিক বৈঠকে কেঁদে বলেন, ‘‘আমাদের দুই সেরা অফিসারকেই ঝামেলা মেটাতে পাঠিয়েছিলাম।’’ পুলিশকর্মীদের উপর হামলার ঘটনা মার্কিন মুলুকে নতুন নয়। ওয়েস্টারভিলের এই দুই পুলিশ অফিসারের মৃত্যুর আগেই চলতি বছরে কর্তব্যরত অবস্থায় ৯ পুলিশকর্মীর মৃত্যু হয়েছে। সব ক’টিই গুলি চালনার ঘটনা।