মৌলবাদী ধর্মপ্রচারক জাকির নায়েককে ভারতে ফেরানোর বিষয়ে বহাল রইল জট। মালয়েশিয়ার তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, সে দেশে বসবাসকারী জাকিরের প্রত্যর্পণের জন্য আরও নথি ও প্রমাণ চাই। জাকিরকে ফিরিয়ে আনতে বছরখানেক আগে আবেদন করেছিল দিল্লি। কিন্তু মালয়েশিয়ার ভবিষ্যৎ প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার 

ইব্রাহিম সম্প্রতি ভারত সফরে এসে বলেন, ‘‘বিষয়টি দেখা হচ্ছে। তবে ভারতের কাছ থেকে আরও তথ্যপ্রমাণ চাই।’’ 

২০১৬ সালে ঢাকার গুলশনে হামলাকারী জঙ্গিদের কয়েক জন জাকির নায়েকের প্রচারে প্রভাবিত হয়েছিল বলে অভিযোগ ওঠে। সেই সময় জাকির ওই অভিযোগ নাকচ করে বলেন, ‘‘আমি শান্তির দূত, কখনও সন্ত্রাসবাদে উৎসাহ 

দিইনি।’’ সেই থেকে বিদেশেই আছেন জাকির। আপাতত তিনি মালয়েশিয়ায় আশ্রয় নিয়েছেন। ২০১৬ সালের নভেম্বরে ইউএপিএ-সহ ফৌজদারি দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় তাঁর 

বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে ভারতের জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ। 

২০১৭ সালে জাকিরের বিরুদ্ধে ‘রেড কর্নার নোটিস’ জারির আবেদন জানায় ভারত। কিন্তু সেই প্রচেষ্টাকেও ধাক্কা দিয়ে ইন্টারপোল জানিয়ে দেয়, জাকিরের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে যুক্ত থাকার প্রমাণ দিতে পারেনি দিল্লি। আইনি প্রক্রিয়াও ঠিক ভাবে অনুসরণ করা হয়নি। 

এ বার আনোয়ার ইব্রাহিমের বক্তব্যও হতাশ করল দিল্লিকে। তিনি স্পষ্ট বলেছেন, ‘‘আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন, মালয়েশিয়া সরকারের গোটা বিষয়টি আরও ভাল করে বোঝার প্রয়োজন রয়েছে। ভারতের অনুরোধের দিকটিকে আমরা সম্মান করছি। কিন্তু আমাদেরও আইন-কানুন রয়েছে।’’