ফেসবুকের তথ্যফাঁস নিয়ে যখন তোলপাড় গোটা দুনিয়া, ঠিক তখনই প্রশ্ন উঠছে ‘হোয়াটসঅ্যাপ’-এর তথ্য-সুরক্ষা নিয়ে। উল্লেখ্য, এটিরও মালিকানা ফেসবুকের।

সম্প্রতি একটি রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, ‘চ্যাটওয়াচ’ নামে আর একটি অ্যাপের মাধ্যমে গোপনে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের কথাবার্তায় আড়ি পাতা হচ্ছে। ওই অ্যাপের সাহায্যে হোয়াটসঅ্যাপের কনট্যাক্ট লিস্টে উঁকি মারতে পারবেন যে কেউ। কে কতক্ষণ কার সঙ্গে কথা বলছেন, বা সাধারণত কতটা সময় সে হোয়াটস অ্যাপ করেন, তা-ও জেনে ফেলা যাবে। এমনকী ওই হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারী কখন ঘুমতে যান বা ক’টার সময় ঘুম থেকে ওঠেন, তা-ও নাকি জেনে দিতে পারে অ্যাপটি। শেষ কখন হোয়াটস অ্যাপ দেখেছেন বা মেসেজ পড়ার নীল টিকটি বন্ধ করা থাকলেও কিছু যায় আসে না। অনলাইন হোক কিংবা অফলাইন, প্রযুক্তির ফাঁক গলে ঠিক সেঁধিয়ে পড়ছে চ্যাটওয়াচ। প্রযুক্তি-বিষয়ক ওয়েবসাইট ‘লাইফহ্যাকার’-এর দাবি, ‘‘অ্যাপটি এ-ও বলে দেবে কত ঘনঘন আপনার বন্ধুটি হোয়াটস অ্যাপ দেখছেন।’’

রিপোর্টে আরও দাবি, ফেসবুকের তথ্য-চুরির ঘটনায় লোকজন যখন হুড়মুড়িয়ে অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিচ্ছেন, কিংবা ফেসবুকের মাধ্যমে যোগ করা বিভিন্ন অ্যাপকে আন-ইনস্টল করছেন, তখনই নাকি চুপিসাড়ে এই কাজ সারছে ‘চ্যাটওয়াচ’। এটি প্রথম এসেছিল অ্যাপলে। কিন্তু পরে অ্যাপল অ্যাপ স্টোর সরিয়ে দেয়। এখন অ্যানড্রয়েডে রয়েছে। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, হোয়াইট অ্যাপে লেখা ‘এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন’ কি আদৌ কাজ করে? কারণ এনক্রিপটেড হওয়ার অর্থ, আপনার মেসেজ সুরক্ষিত। নয়া রিপোর্টে প্রশ্ন দানা বাঁধছে।

আরও পড়ুন: ওদের নিয়ে ভাবনা নেই বিমানবন্দরেরও