• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

এ বার আমদাবাদ হবে কর্ণাবতী! নামবদলের ডাক বিজেপির

Nitin Patel
গুজরাতের উপমুখ্যমন্ত্রী নিতিন পটেল। ছবি: সংগৃহীত।

Advertisement

ফৈজাবাদের পর এ বার আমদাবাদ। বিজেপিশাসিত আর এক রাজ্যেও এ বার নামবদলের ডাক।

আইনি ঝামেলা না থাকলে আমদাবাদের নাম পাল্টে কর্ণাবতী করতে চায় গুজরাত সরকার।

মঙ্গলবার ফৈজাবাদের নাম পাল্টে অযোধ্যা রাখার কথা ঘোষণা করেছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেইআমদাবাদের নাম পাল্টানোর জিগির তুললেন গুজরাতের উপমুখ্যমন্ত্রী নিতিন পটেল। তিনি জানালেন, প্রয়োজনীয় সমর্থন পেলে এবং কোনও রকম আইনি বাধা না থাকলে আমদাবাদের নাম বদলাতে আগ্রহী রাজ্য সরকার।

আরও পড়ুন
ফৈজাবাদ এখন অযোধ্যা, নীরব মন্দিরে

গত কাল গাঁধীনগরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে নিতিন পটেলের দাবি, “অনেকে এখনও মনে করেন, আমদাবাদ শহরের নাম পাল্টে কর্ণাবতী রাখা উচিত।” কী ভাবে সে প্রক্রিয়া সম্ভব? উপমুখ্যমন্ত্রী বলেন, “এ নিয়ে আইনি বাধা কাটানোর মতো প্রয়োজনীয় সমর্থন পেলে আমরা শহরের নাম পাল্টাতে রাজি আছি।”

ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যায়, খ্রিস্টীয় এগারো শতক থেকেই আমদাবাদে বসতি গড়ে ওঠে। সে সময় অবশ্য আমদাবাদের পরিচিত ছিল আশাবল নামে। আশাবলের রাজাকে যুদ্ধে পরাস্ত করে চালুক্য বংশের রাজা কর্ণদেও সবরমতী নদীরে তীরে কর্ণাবতী শহর গড়ে তোলেন। এর পর ১৪১১ খ্রিস্টাব্দে সুলতান আহমেদ শাহ কর্ণাবতীর পাশেই আমদাবাদ শহরের স্থাপনা করেন। সে সময়কার এক সন্ত আহমেদের নামে ওই নামকরণ করা হয়েছিল।

আরও পড়ুন
‘অযোধ্যায় রামমন্দির ছিল, আছে, থাকবে’, ভোটের আগে যোগীর মুখে ফের রাম নাম

এর পর সবরমতী দিয়ে অনেক জল গড়িয়েছে। দেশের একমাত্র শহর হিসাবে রাষ্ট্রপুঞ্জের ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ’ তকমা পেয়েছে আমদাবাদ। তা সত্ত্বেও কি রাজ্য সরকার আমদাবাদের নাম পাল্টাতে আগ্রহী হবে? এ প্রশ্নের জবাবে নিতিন পটেল বলেন, “সঠিক সময় এলে আমরা নামবদলের কথা চিন্তা করতে পারি।”

আরও পড়ুন
পরেশ বরুয়ার মৃত্যু নিয়ে গোয়েন্দাদের দাবি ওড়াল আলফা

তবে বিজেপি সরকারের এই প্রচেষ্টার তীব্র সমালোচনা করেছে রাজ্যের বিরোধী দলগুলি। গুজরাত প্রদেশ কংগ্রেসের মণীশ দোশীর দাবি, নামবদলের ভাবনাটা আসলে রাজ্য সরকারের একটা ‘নির্বাচনী চমক’। তাঁর দাবি, “হিন্দুদের কাছ থেকে ভোট আদায় করতেই অযোধ্যায় রামমন্দির গড়া বা আমদাবাদের নাম পাল্টানোর মতো ইস্যু তুলে আনছে বিজেপি। ক্ষমতায় আসার পরই বিজেপি নেতারা এ সব ইস্যুকে ছুড়ে ফেলেছিলেন। এত দিন ধরে হিন্দুদের সঙ্গে তারা শুধু প্রতারণাই করে এসেছে।”

(কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী, গুজরাত থেকে মণিপুর - দেশের সব রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন