ভারত-পাক পরিস্থিতি নিয়ে ব্রিটেনের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মার্ক সেডউইল ফোনে কথা বললেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গে। পুলওয়ামা হামলা পরবর্তী পরিস্থিতিতে ভারতের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়েছেন সেডউইল। বিদেশ মন্ত্রকসূত্রের খবর, ডোভালকে ব্রিটিশ কর্তা জানিয়েছেন, যে কোনও ধরনের সন্ত্রাস রুখতে সব রকম সহায়তায় তাঁর দেশ। সন্ত্রাস-মোকাবিলার জন্য যে দ্বিপাক্ষিক মেকানিজম দু’দেশের মধ্যে রয়েছে, তারই মাধ্যমে এই সমন্বয় ঘটানো হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। গোয়েন্দা তথ্য বিনিময় করে জঙ্গিদের বিচারের আওতায় আনার ব্যাপারেও সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সেডউইল।

পাঁচদিন পরেই রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদে জইশ নেতা মাসুদ আজহারকে নিষিদ্ধ আন্তর্জাতিক জঙ্গির তালিকায় আনার প্রস্তাবটি ভোটাভুটির জন্য আসবে। প্রস্তাবের প্রধান উদ্যোক্তা আমেরিকা, ফ্রান্স এবং ব্রিটেন। তার আগে ডোভালের সঙ্গে এই ফোনালাপ যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে। শুধু ভারত নয়, ব্রিটেন এবং আমেরিকারও আশঙ্কা, ভেটো দিয়ে বাদ সাধতে পারে বেজিং। চিনের উপবিদেশমন্ত্রী কং জুয়ানজু গত কালই পৌঁছে গিয়েছেন ইসলামাবাদে। পুলওয়ামা কাণ্ডের পর ‘সংযত আচরণের’ জন্য ইমরান সরকারের প্রশংসাই করেছেন জুয়ানজু। চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র লু কাং জানিয়েছেন, ‘‘পাকিস্তানের সংযত আচরণ এবং উপমহাদেশে উত্তেজনা কমানোর জন্য ইমরান সরকার যে পদক্ষেপ করেছে, তার প্রশংসা করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক আইন ভঙ্গ হয়, এমন কাজকর্ম দেখতে চাই না।’’

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী, সেনাপ্রধান এবং বিদেশমন্ত্রী দফায় দফায় চিনের কর্তার সঙ্গে আলোচনা করার পর আজ ভারতের পাঠানো ‘ডসিয়ার’-এর উত্তর দেওয়া নিয়েও মুখ খুলেছে ইসলামাবাদ। পাক বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র মহম্মদ ফয়জল জানিয়েছেন, ‘‘পুলওয়ামা নিয়ে ভারতের ডসিয়ারটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। শীঘ্রই উত্তর দেওয়া হবে।’’