হাতে শিক্ষকের নাম লিখে আত্মহত্যা করল দিল্লির এক ছাত্রী। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মায়ের অনুপস্থিতিতেই ওই কাণ্ড ঘটিয়েছে ডেইজি রাঠৌর নামে সপ্তম শ্রেণির ওই ছাত্রী। ডেইজির বাড়ি থেকে একটি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করেছে দিল্লি পুলিশ।

গত ১ ডিসেম্বর দিল্লির ইন্দ্রপুরী এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। দিল্লি পুলিশের আধিকারিক মধূপ তিওয়ারির কথায়, ‘‘হাতে শিক্ষকের নাম লেখার পাশাপাশি ওই ছাত্রী যে আর স্কুলে যেতে চায় না সে কথাও লিখেছে মেয়েটি। শ্রীকৃষ্ণের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছি বলে মা আর ঠাকুমার কাছে ক্ষমা চেয়ে একটি সুইসাইড নোটও লিখেছে ডেইজি।’’ডেইজির মা কমল রাঠৌর দিল্লির তিস হাজারি আদালতের আইনজীবী। গত ১ ডিসেম্বর তিনি বিকেল চারটে নাগাদ আদালত থেকে বাড়ি ফিরে মেয়েকে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলতে দেখেন বলেও জানিয়েছেন ওই পুলিশ আধিকারিক।

যে শিক্ষকের নাম হাতের তালুতে লিখে আত্মহত্যা করেছে ডেইজি, তাঁর নামে অভিযোগ করে কমল বলেছেন, ‘‘রোজ ওই শিক্ষক আমার মেয়েকে বকাবকি করত। ৩০ নভেম্বর বায়োলজি ল্যাবেওকে খুব বকেছিলেন তিনি। তার পর স্কুলের বাথরুমে খুব কান্নাকাটি করেআমার মেয়ে।’’ কমলের দাবি, স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে ফোঁপাতে ফোঁপাতে ডেইজি তাকে বলেছিল, সে আর ওই স্কুলে যেতে চায় না। স্কুল পাল্টাতে চায়। মায়ের কথায়, ‘‘আমি মেয়ের কথা শুনিনি। ঘূনাক্ষরেও বুঝতে পারিনি যে ও আত্মহত্যারপথ বেছে নেবে।’’

আরও পড়ুন: ‘বুলন্দশহরে গরু মারল কে, সেটাই বড় প্রশ্ন’, বললেন পুলিশকর্তা

আরও পড়ুন: ‘এটাই জয়ধ্বনি’, ঢোল বাজিয়ে বললেন মোদী

ডেইজির স্কুলের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে যে, তারা তদন্তে সব রকমের সাহায্য করতে প্রস্তুত। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এখনও পুলিশের হাতে এসে পৌঁছয়নি। ডেইজির সহপাঠীদের বয়ান রেকর্ড করেছে পুলিশ।
 

(দেশজোড়া ঘটনার বাছাই করা সেরাবাংলা খবরপেতে পড়ুন আমাদেরদেশবিভাগ।)