প্রবল উত্তেজনা কোরীয় উপদ্বীপ এবং সংলগ্ন অঞ্চলে। দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানকে যে কোনও মুহূর্তে ধ্বংস করে দেওয়া হবে, হুমকি দিচ্ছে উত্তর কোরিয়া। দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানের সবচেয়ে বড় সামরিক সহযোগী আমেরিকার প্রতিও কিম জং উনের হুঁশিয়ারির সুর কম চড়া নয়। প্রয়োজনে আমেরিকার মূল ভূখণ্ডে পরমাণু হামলা চালানো হবে বলে হুঁশিয়ারি দিচ্ছেন তিনি। এমনই এক পরিস্থিতিতে ভারতের সঙ্গে যৌথ মহড়া দিয়ে নিজেদের সামরিক জোটের আকার আরও বাড়িয়ে নেওয়ার ইঙ্গিত দিল দক্ষিণ কোরিয়া। ভারত এবং দক্ষিণ কোরিয়ার নৌসেনা ভারত মহাসাগরে যৌথ মহড়া দিল।

আরও পড়ুন: চিনা সেনাকে পড়া ধরার ঢঙে আলাপ জমালেন নির্মলা, দেখুন ভিডিও

দক্ষিণ কোরিয়ার একটি নৌবহর সম্প্রতি মুম্বইতে এসেছিল। সেই সফরের ফাঁকেই শুক্রবার ভারত মহাসাগরে দু’দেশের নৌসেনা যৌথ মহড়া দিয়েছে বলে খবর। অনেকগুলি ডেস্ট্রয়ার এই মহড়ায় অংশ নিয়েছিল। ছিল অন্যান্য ধরনের রণতরীও। দক্ষিণ কোরীয় সংবাদ সংস্থা ইয়নহাপ এই খবর প্রকাশ করেছে।

আরও পড়ুন: উত্তর কোরিয়ার জন্য একটাই ওষুধ: ট্রাম্পের মন্তব্যে যুদ্ধের জল্পনা তুঙ্গে

জলদস্যু বিরোধী অভিযান, সামুদ্রিক পরিবহণ সংক্রান্ত সহযোগিতা, হেলিকপ্টার ল্যান্ডিং-সহ বিভিন্ন বিষয়ের মহড়া দিয়েছে দু’দেশের নৌসেনা। ভারত এবং দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সামরিক আদানপ্রদানের লক্ষ্যেই দক্ষিণ কোরীয় নৌবহর মুম্বই সফর করেছে বলে ইয়নহাপ সূত্রে জানানো হয়েছে। উত্তর কোরিয়া যখন প্রায় রোজ পরমাণু হামলার হুমকি দিচ্ছে, সে সময়ে ভারতের সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ নৌ-মহড়া বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা। এই মহড়ার মাধ্যমে পিয়ংইয়ং-কেও একটা কঠোর বার্তা দিল সোল, বলছে ওয়াকিবহাল মহল। আমেরিকার মতো সুপার পাওয়ার তো ছিলই, তার পাশাপাশি ভারতের মতো বড় শক্তিও যে এখন দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে সামরিক আদানপ্রদান বাড়াচ্ছে, সে কথা যেন উত্তর কোরিয়া মাথায় রাখে— পিয়ংইয়ংকে সম্ভবত এমন বার্তাই দিতে চেয়েছে সোল।