কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ও বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্করকে সম্মান জানাবে দিল্লির জহওরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় (জেএনইউ)। এঁরা দু’জনেই ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তনী। 

নরেন্দ্র মোদী জমানার প্রথম পর্বে বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল জেএনইউ। সংসদে জঙ্গি হামলার ঘটনায় আফজল গুরুর ফাঁসির প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে হওয়া অনুষ্ঠান ঘিরে বিতর্কে নাম জড়ায় কানহাইয়া কুমার, উমর খালিদ-সহ একাধিক পড়ুয়ার। তাঁদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার মামলা এখনও চলছে দিল্লি হাইকোর্টে। অন্য দিকে সঙ্ঘ-ঘনিষ্ঠ এম জগদেশ কুমারকে উপাচার্য নিয়োগ করা নিয়ে ছাত্রদের একাংশের প্রবল আপত্তি, পড়ুয়াদের দেশভক্তি বাড়াতে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে সেনা-ট্যাঙ্ক রাখার প্রস্তাব, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নজিব আহমেদের তিন বছর ধরে নিখোঁজ থাকা, বিজেপির ছাত্র সংগঠন এভিবিপির চাপে একের পর এক আলোচনাসভা বাতিল হওয়া— সব মিলিয়ে বারবার সংবাদের শিরোনামে উঠে আসে দেশের অন্যতম নামজাদা বিশ্ববিদ্যালয়টি। 

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে খবর, ওই নেতিবাচক ছবিটি পাল্টাতেই প্রাক্তনীদের সম্মানিত করে তাঁদের সাফল্যকে পড়ুয়াদের সামনে তুলে ধরার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। তবে জানা গিয়েছে, কাউন্সিলের বৈঠকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের বদলে অন্যান্য ক্ষেত্রে প্রথিতযশা প্রাক্তনীদের সম্মানিত করার দাবি ওঠে। যদিও শেষ পর্যন্ত নির্মলা ও জয়শঙ্করের নামেই সিলমোহর দেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্‌জিকিউটিভ কাউন্সিল। 

নির্মলা সীতারামন জেএনইউয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে প্রথমে এমএ পাশ করেন, তার পরে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের উপরে এমফিল করেন। অন্য দিকে জয়শঙ্কর আন্তর্জাতিক সম্পর্কের উপরে এমফিল এবং পিএইচডি করেন। তাঁর স্পেশাল পেপার ছিল পারমাণবিক কূটনীতি। জেএনইউয়ের রেজিস্টার প্রমোদ কুমার বলেন, ‘‘দুই প্রাক্তনীর সাফল্য এক দিকে যেমন বিশ্ববিদ্যালয়কে গর্বিত করেছে, তেমনি তা আগামী দিনে এখানকার পড়ুয়াদের উজ্জীবিত করবে বলেই আশা করা হচ্ছে। অগস্ট মাসে সমাবর্তন উৎসবে ওই দু’জন প্রাক্তনীকে সম্মানিত করা হবে।’’

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।