প্রধানমন্ত্রী হতে চান! খোঁচা দেবগৌড়াকে
দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও কর্নাটকে কংগ্রেসের জোট শরিক জেডিএস প্রধান ৮৫ বছরের দেবগৌড়াকে বিঁধে তিনি বলেন, ‘‘কর্নাটকে মাত্র সাতটি আসনে দেবগৌড়া লড়ছেন। তবু প্রধানমন্ত্রী  বা নিদেনপক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হওয়ার আশা রাখেন।’’ 
deve

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার ইচ্ছা নেই তাঁর। তবে রাজনীতি থেকেও অবসর নিচ্ছেন না বলে জানিয়েছিলেন জেডিএস নেতা এইচ ডি দেবগৌড়া। বলেছিলেন, রাহুল গাঁধী প্রধানমন্ত্রী হলে তিনি পাশে থাকবেন। দেবগৌড়ার ওই মন্তব্যকে ঘিরে পাল্টা কটাক্ষ করলেন কর্নাটকের বিজেপি প্রধান বিএস ইয়েদুরাপ্পা। দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও কর্নাটকে কংগ্রেসের জোট শরিক জেডিএস প্রধান ৮৫ বছরের দেবগৌড়াকে বিঁধে তিনি বলেন, ‘‘কর্নাটকে মাত্র সাতটি আসনে দেবগৌড়া লড়ছেন। তবু প্রধানমন্ত্রী  বা নিদেনপক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হওয়ার আশা রাখেন।’’ 

তিন বছর আগে দেবগৌড়া ঘোষণা করেছিলেন, ভোটে আর দাঁড়াবেন না। পরে অবশ্য মত বদলে ফেলেন তিনি। এ বছর লোকসভা ভোটে কর্নাটকের টুমকুর আসনে কংগ্রেস জেডিএস জোটের প্রার্থী হন।  বৃহস্পতিবার দেবগৌড়া বলেন, ‘‘পরিস্থিতি এখন যে জায়গায় পৌঁছেছে, আমার না দাঁড়িয়ে উপায় ছিল না।’’

দেবগৌড়া নিজে মুখ ফুটে কোনও আশা প্রকাশ না করলেও দিন কয়েক আগে তাঁর ছেলে, কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি কুমারস্বামী বলেছিলেন, ‘‘ভোটের পর তেমন পরিস্থিতি তৈরি হলে, সকলের মতামত নিয়ে ফের প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন দেবগৌড়া। কুমারস্বামী শুক্রবার এক সাক্ষাৎকারে ফের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাঁর বাবা নরেন্দ্র মোদীর থেকে অনেক বেশি যোগ্য ছিলেন। তাঁর মন্তব্য, ‘‘বাবা যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন দেশে সন্ত্রাসের কোনও ঘটনা ঘটতে দেখেছেন কি? সে সময় দেশ জুড়ে শান্তি ছিল।’’ ১৯৯৬ সালের জুন থেকে ১৯৯৭ সালের থেকে এপ্রিল— এক বছরেরও কম সময় দেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন দেবগৌড়া। 

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত