রাহুলকে ‘কুকুরছানা’ বলে বিতর্কে গুজরাতের মন্ত্রী
এর আগেও রাহুল সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন তিনি। কংগ্রেস সমর্থকরা বলেছিলেন, ‘‘রাহুল শিবের অবতার।’’ উত্তরে ভাসাভা বলেন, ‘‘রাহুল তা হলে বিষ খেয়ে প্রমাণ করুন তিনি নীলকণ্ঠ।’’
ganpat

রাহুল গাঁধী সম্পর্কে বিজেপি নেতা-মন্ত্রীদের কুকথা থামছে না। ক’দিন আগেই কংগ্রেস সভাপতি সম্পর্কে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগ ওঠে হিমাচলপ্রদেশের বিজেপি সভাপতি সৎপাল সিংহ সত্তীর বিরুদ্ধে। সেই বিতর্কের রেশ না মিটতেই রাহুলকে ‘কুকুরছানা’ বলে বিতর্কে জড়ালেন গুজরাতের মন্ত্রী গণপতসিন ভাসাভা।

এর আগেও রাহুল সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন তিনি। কংগ্রেস সমর্থকরা বলেছিলেন, ‘‘রাহুল শিবের অবতার।’’ উত্তরে ভাসাভা বলেন, ‘‘রাহুল তা হলে বিষ খেয়ে প্রমাণ করুন তিনি নীলকণ্ঠ।’’ শনিবার গুজরাতের নর্মদা জেলায়  এক সভায় তিনি বলেন, ‘‘রাহুল গাঁধী চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়ালেই মনে হয় কুকুরছানা আনন্দে লেজ নাড়ছে। পাকিস্তান আর চিন রুটি ছুড়ে দিলে সে সেখানে চলে যাবে।’’ এই সভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ‘সিংহ’ বলে বর্ণনা করেন ভাসাভা।

কংগ্রেসের পাশাপাশি ভাসাভার এই মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেছেন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপাণী। রাজকোটে তিনি বলেন, ‘‘এই ধরনের ভাষা ব্যবহার করা ঠিক নয়।’’ মুখ্যমন্ত্রীর নিন্দাও অবশ্য বিরোধীদের চুপ করাতে পারেনি। কংগ্রেসের মুখপাত্র মণীশ দোশী বলেন, ভাসানার এ-সব মন্তব্য থেকেই স্পষ্ট, গুজরাতের মানুষ আর বিজেপির পাশে নেই। জনজাতি সম্প্রদায়ের মানুষ হয়েও ভাসাভা জনজাতিদের প্রতি অবিচার করেছেন। মন্ত্রীর বোঝা উচিত এই ধরনের ভাষা তাঁর জনসমর্থন আরও কমাবে।’’ গুজরাতের কংগ্রেস নেতা রাজীব সাতাভের কটাক্ষ, ‘‘এটাই বিজেপির চরিত্র।’’ 

এ দিনই নাগরিকত্ব বিতর্কে আরও প্যাঁচে পড়েন রাহুল। বিষয়টি নিয়ে মামলাও হয়েছে। এ বার কংগ্রেস সভাপতির নাগরিকত্ব এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে তাঁর মনোনয়নপত্রকে চ্যালেঞ্জ করেছেন উত্তরপ্রদেশের অমেঠী লোকসভা কেন্দ্রের এক নির্দল প্রার্থী। তাঁর অভিযোগ, নির্বাচনী হলফনামায় রাহুল
এই দু’টি বিষয়ে ভুল তথ্য দিয়েছেন।

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

অভিযোগকারী ধ্রুব রাজের আইনজীবী রবি প্রকাশ শনিবার ব্রিটেনের একটি সংস্থার নথিপত্র দেখিয়ে দাবি করেন, রাহুল গাঁধী ব্রিটেনের নাগরিক। পাঁচ বছর ধরে রাহুলের নিয়ন্ত্রণাধীন ওই সংস্থাটি লাভজনক ব্যবসা করেছে। কিন্তু রাহুলের হলফনামায় সে কথা বলা নেই। এর পরিপ্রেক্ষিতে রাহুলের কৌঁসুলি রাহুল কৌশিকের মতামত জানতে চেয়েছেন রিটার্নিং অফিসার। সোমবার সকাল সাড়ে দশটার মধ্যে জবাব দিতে হবে  কৌশিককে।

এর পরেই আসরে নেমে পড়ে বিজেপি। দিল্লিতে বিজেপি নেতা জি ভি এল নরসিমা রাও বলেন,  ‘‘আদৌ রাহুল গাঁধী ভারতের নাগরিক কিনা, কখনও তিনি ব্রিটেনের নাগরিক ছিলেন কিনা— এগুলি খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। রাহুল গাঁধীর সত্যিটা সামনে নিয়ে আসা উচিত।’’ উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেস নেত যোগেন্দ্র মিশ্র জানিয়েছেন, আইনি পথেই এই সমস্যার মোকাবিলা করা হবে।

রাহুলের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে বিজেপি। রাওয়ের দাবি, কংগ্রেস সভাপতি জানিয়েছিলেন কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি উন্নয়নমূলক অর্থনীতিতে এম ফিল করেছেন। পরে তিনি বলেন বিষয়টি ছিল ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ। বিজেপি নেতা বলেন, ‘‘তদন্তে উঠে এসেছে রাহুল গাঁধী নন, রাহুল ভিনসি নামে এক ব্যক্তি ওই বছর ডিগ্রি পেয়েছিলেন। বিভিন্ন নামে একাধিক দেশে রাহুল গাঁধী গিয়েছিলেন কিনা, সেটাও আমরা জানতে চাই।’’

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত