ইমরান খানের শপথ অনুষ্ঠানের ফাঁকে ছবিটা প্রকাশ্যে আসতেই জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছিল। পাক সেনাপ্রধান কামার জাভেদ বাজওয়াকে আলিঙ্গন করায় কংগ্রেস নেতা নভজ্যোৎ সিংহ সিধুর মৃত্যুদণ্ড দাবি উঠল। দাবি তুলল, বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চা।

সিধুকে মোর্চা নেতা আফতাব আডবাণী ‘রাষ্ট্রদ্রোহী’ আখ্যা দিয়ে বলেছেন,  সিধু ভারতীয়দের কথা ভুলে গিয়েছিলেন। তাঁর কথায়, ‘‘প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার থেকে ইমরানের শপথে যোগ দেওয়া বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছিল সিধুর। এই ধরনের মানুষের এ দেশে থাকার কোনও অধিকারই নেই।’’

অন্য দিকে, পাক সেনাপ্রধানকে আলিঙ্গন প্রসঙ্গে সিধু বলেন, ‘‘জেনারেল আমাকে আলিঙ্গন করেন। এবং বলেন, এটা শান্তির সময়। এটাই আমার স্বপ্ন।’’

আরও পড়ুন: ২৬ বছর পরে ইমরান ফের পাক ‘অধিনায়ক’

আরও পড়ুন: অটল-আবেগে মাতলে বিপদ, বন্যাত্রাণে মনোযোগ বিজেপি-র

তবে, সিধু যাই বলুন, বিতর্ক যে সহজে পিছু ছাড়ছে না, তার অভাস পাওয়া গিয়েছে জম্মু ও কাশ্মীরের কংগ্রেস প্রধান গুলাম আহমেদ মীরের কথায়। তিনি বলেন, ‘‘সিধু এক জন দায়িত্ববান রাজনৈতিক নেতা। এক জন মন্ত্রী। সিধুর উচিত ছিল পাক অধিকৃত কাশ্মীরের প্রেসিডেন্ট মাসুদ খানের পাশে না বসা।’’ আহমেদ আরও বলেন, ‘‘কেন সিধু মাসুদ খানের পাশে বসলেন, সে উত্তর তিনি নিজেই দিতে পারবেন।’’

দেশজোড়া ঘটনার বাছাই করা সেরা বাংলা খবর পেতে পড়ুন আমাদের দেশ বিভাগ।