স্ত্রী লাগাতার প্রচার করছেন। মহিলারা তাঁর কথাতেই বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। এই ‘অপরাধে’ উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ে ওই মহিলার স্বামীর ওপর চড়াও হল একদল দুষ্কৃতী।
মহম্মদ মহসিনের অভিযোগ, বেশ কয়েকজন দীর্ঘদিন ধরেই হুমকি দিচ্ছিল তাঁর স্ত্রী যাতে বিজেপির সদস্য সংগ্রহের প্রচারে অংশ না নেন। তিন তালাকের বিপক্ষে কথা বলা নিয়েও হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় এই দম্পতিকে। হুমকিতে কাজ না হওয়াতেই এই আক্রমণ।


আরও  পড়ুন: গত ছ’দিনে কোথাও হিংসার ঘটনা ঘটেনি, বিবৃতি দিয়ে দাবি জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের
আরও পড়ুন: ধর্মান্তর বন্ধে বিল নিয়ে আসছে মোদী সরকার


মহসিন সংবাদ সংস্থাকে বলেন, ‘‘গত বৃহস্পতিবার সাত আটজন মিলে আচমকাই আমার অফিসে এসে আমার ওপর চড়াও হয়। দাবি ছিল, আমার স্ত্রী তিন তালাকের বিরুদ্ধে যেন কিছু না বলেন। আমার স্ত্রী কী ভাবে বিজেপির হয়ে কাজ করেন, সেটা তারা বুঝে নেবে, এমন হুমকিও দেওয়া হয়।’’

এরপর আলিগড়ে বিজেপির সংখ্যালঘু শাখার নেত্রী ফরহিন মহসিন ও তাঁর স্বামী পুলিশের দ্বারস্থ হন। পুলিশের তরফে বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। ফরহিন মহসিন জানাচ্ছেন, বিজেপিতে সদস্যপদ সংগ্রহের গুরুদায়িত্ব রয়েছে তাঁর কাধে। তিনি বলেন, ‘‘তিন তালাক রদের ফলে বহু মুসলমান মহিলা আশ্বস্ত হয়েছেন। তাঁরা বিজেপিতে সক্রিয় ভাবে অংশগ্রহণ  করতে চান। কিন্তু আমার অঞ্চলের রক্ষণশীল মানুষরা মুসলমান মহিলা বাড়ি থেকে বের হন সেটা চান না।’’ এই মানসিকতার বিরুদ্ধেই লাগাতার লড়তে চান মহসিন। তাঁর দাবি, এই জন্যে তাঁকে একাধিকবার খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ গত ১ অগস্ট তিন তালাক বিলে স্বাক্ষর করেন। এই বিল অনুসারে, তিন তালাকের অভিযুক্ত দোষী সাব্যস্ত হলে তার তিন বছরের কারাদণ্ড হবে।