বছরের অন্যান্য দিনেও তাঁরা বিমান ওড়ান। পরিষেবা দেন যাত্রীদের। তারই মধ্যে আজ, বৃহস্পতিবার একটু অন্য রকম বন্দোবস্ত হচ্ছে। আজ, বৃহস্পতিবার নারী দিবসে মাটিতে ও আকাশে অনেক বিমান চলাচলের নিয়ন্ত্রণ এবং উড়ানে যাত্রী-স্বাচ্ছন্দ্যের দায়িত্বে থাকছেন শুধু মহিলারাই।

ককপিটে পাশাপাশি বসবেন দুই মহিলা। এক জন কম্যান্ডার, অন্য জন ফার্স্ট অফিসার। টেক-অফ থেকে ল্যান্ডিং অর্থাৎ উড়ানের সূচনা থেকে অবতরণ পর্যন্ত বিমানের নিয়ন্ত্রণ থাকবে দুই মহিলার হাতে। মাটিতে থেকে যারা বিমানের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ করে, সেই এটিসি বা এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের সামগ্রিক দায়িত্বও বেশ কিছু ক্ষণের জন্য নেবেন কেবল মহিলারাই।

যেমন কলকাতার এটিসি-তে এ দিন সকাল ৭টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত সব দায়িত্ব পালন করবেন কেবল মহিলারাই। এখন পুরুষেরাও বিমানসেবকের কাজ করেন। তবে আজ অনেক বিমানে যাত্রী-স্বাচ্ছন্দ্য দেখভাল করবেন শুধু মেয়েরাই। সরকারি বিমান সংস্থার পাশাপাশি এই ব্যবস্থা করছে কয়েকটি বেসরকারি উড়ান সংস্থাও।

পরিসংখ্যান বলছে, অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতে মহিলা পাইলটদের সংখ্যা সব চেয়ে বেশি। সারা বছরই দেশের অভ্যন্তরে কখনও কম্যান্ডার, কখনও ফার্স্ট অফিসারের আসনে দেখা যায় তাঁদের। অনেক ক্ষেত্রে পাশাপাশি বসে বিমানের রাশ ধরেন দুই নারী। তবে কর্মী-তালিকায় ক্রমপর্যায় মেনেই সেটা করতে হয়। ৮ মার্চের ‘ডিউটি চার্ট’-এ মহিলাদের প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে সচেতন ভাবেই। নারী দিবসের সৌজন্যে বেশ কয়েকটি উড়ানের ককপিটে পাশাপাশি দেখা যাবে দুই নারীকে।

এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়া জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার তাদের বেঙ্গালুরু-গুয়াহাটি এবং দিল্লি-গোয়া উড়ান চালাবেন দুই মহিলা পাইলট। সঙ্গে পরিষেবা দেওয়ার জন্য থাকবেন শুধু বিমানসেবিকারাই। মহিলা যাত্রীদের জন্য থাকবে ছোট উপহার। স্পাইসজেট বুধবার থেকেই শুধু মহিলা পাইলটদের হাতে দায়িত্ব দিতে বিশেষ ভাবে উদ্যোগী হয়েছে।

তাদের গুরুগ্রামের ট্রেনিং অ্যাকাডেমিতে বুধ ও বৃহস্পতিবার সরাসরি মহিলা পাইলট নিয়োগ করা হবে বলে সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে। এখন বোয়িং-৭৩৭ এবং বম্বার্ডিয়ার কিউ-৪০০ বিমান চালায় স্পাইস। দু’ধরনের বিমানের জন্যই মহিলা পাইলট নিয়োগ করতে চায় স্পাইস। বিস্তারা-ও আজ কিছু উড়ানের ভার মহিলাদের হাতে তুলে দিচ্ছে। সেই সঙ্গে একা কোনও মহিলা বিমান সফর করলে উচ্চ শ্রেণিতে তাঁর বসার বন্দোবস্ত করেছে তারা।

এয়ার ইন্ডিয়া নারী দিবস উদ্‌যাপন করে চলেছে ৪ মার্চ, রবিবার থেকেই। সূচনা হয়েছিল কলকাতা-ডিমাপুর উড়ান দিয়ে। সে-দিন বিমান নিয়ে উড়ে যান দুই মহিলা পাইলট। তার পর থেকে প্রায় প্রতিদিন সচেতন ভাবে কোনও-না-কোনও উড়ানের ককপিটে পাশাপাশি রাখা হচ্ছে দুই নারীকে। সংস্থা সূত্রের খবর, শুধু দেশের অভ্যন্তরের উড়ান নয়, নারী দিবস উপলক্ষে ককপিটের দখল নিয়ে দিল্লি ও মুম্বই থেকে সান ফ্রান্সিসকো, নিউ ইয়র্ক, নেওয়ার্ক, ওয়াশিংটন ডিসি, মিলান, ফ্রাঙ্কফুর্ট, সিঙ্গাপুর উড়ে যাবেন দুই নারী।