• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

আন্তর্জাতিক

এই গুহায় বিনা বাধায় উড়ে যাবে বোয়িং ৭৪৭, ফিট হয়ে যাবে ৪০ তলা স্কাইস্ক্র্যাপার

শেয়ার করুন
১১ cave
হ্যাং সন ডুং। বিশ্বের সবচেয়ে বড় গুহা। যার শুরু আছে কিন্তু শেষ দেখা যায় না। এই গুহার আকার জানলে অবাক হবেন।
১১ cave
১৯৯১ সালে প্রথম এই গুহার খোঁজ পান ভিয়েতনামের হো খানহ নামে এক ব্যক্তি। ভিয়েতনামের বো টাচ জেলায় অবস্থিত।
১১ cave
জঙ্গলে খাদ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে গুহাটির খোঁজ পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু গুহার গভীরতা এতটাই ছিল যে, স্থানীয় মানুষেরা কেউই ভিতরে নামার সাহস করে উঠতে পারেননি।
১১ cave
২০০৯ সালে সারা বিশ্বের সামনে আসে এই গুহা। ব্রিটিশ কেভ রিসার্চ অ্যাসোসিয়েশনের গুহাবিদেরা এই গুহায় নেমে রিসার্চ করার পর।
১১ cave
২০০ ফুট উঁচু একটি ফ্লোস্টোন দেওয়ালের কাছে পৌঁছে তাঁদের রিসার্চ বাধাপ্রাপ্ত হয়। প্রধানত ক্যালসিয়াম কার্বনেট দিয়ে গঠিত এই দেওয়াল বরাবর জল ২০০ ফুট নীচের দিকে নামছিল।
১১ cave
২০১০ সালে আড়াআড়ি গুহাটার শেষে পৌঁছয় ওই রিসার্চ দল। বিশালাকার এই গুহার দেওয়ালকে ‘গ্রেট ওয়াল অব ভিয়েতনাম’ বলা হয়।
১১ cave
বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রাকৃতিক গুহা এটি। দৈর্ঘ্যে ৫ কিলোমিটার, উচ্চতায় ৬৬০ ফুট এবং চওড়ায় ৪৯০ ফুট।
১১ cave
একে আড়াআড়ি ভাগ করলে যা দাঁড়ায়, তা বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম গুহা মালয়েশিয়ার ডিয়ার কেভ-এর চেয়েও আকারে বড়।
১১ cave
২০১৯ সালে জানা যায় যে, গুহাটি নিকটবর্তী হ্যাং থুং গুহার সঙ্গে যু্ক্ত। যার ফলে গুহাটির আকার আরও বেড়ে গিয়েছে।
১০১১ cave
গুহার আকার এতটাই বড় যে, ৪০ তলা স্কাইস্ক্র্যাপার-সহ নিউ ইয়র্ক শহরের একটা ব্লককে এই গুহার মধ্য ফিট করা যাবে।
১১১১ cave
বা এতটাই বড় যে, কোনওরকম বাধা-বিপত্তি ছাড়াই একটি বোয়িং ৭৪৭ বিমান উড়ে যেতে পারে।

Advertisement

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
বাছাই খবর
আরও পড়ুন