• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

দিবালার অভিজ্ঞতা: শ্বাস নিতেই কষ্ট হচ্ছিল

Paulo Dybala
আতঙ্ক: অসুস্থ হওয়ার দুঃসহ স্মৃতি ভোলেননি দিবালা। ফাইল চিত্র

২৮ মার্চ : ইটালিতে মৃত ন’হাজার। আক্রান্তদের মধ্যে তিনিও একজন। আর্জেন্টিনা জাতীয় দলে লিয়োনেল মেসির এবং সেরি আ-র ক্লাব জুভেন্টাসে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর সতীর্থ পাওলো দিবালা। শুক্রবার এক সাক্ষাৎকারে জানালেন, সংক্রমিত হওয়ার পরে তিনি ভাল করে শ্বাসই নিতে পারছিলেন না। 

গত শনিবার দিবালা সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রথম জানান, তাঁর এবং বান্ধবীর করোনাভাইরাস পরীক্ষার রিপোর্ট ‘পজিটিভ’ এসেছে। মজা হচ্ছে, আর্জেন্টিনীয় তারকা এবং সংক্রমিত অন্য দুই জুভেন্টাস তারকা দানিয়েলে রুগানি ও ব্লেজ মাতুইদির শরীরে শুরুতে বিশেষ কোনও উপসর্গ ছিল না।

জুভেন্টাসের নিজস্ব টিভি চ্যানেলে ২৬ বছরের দিবালা বলেছেন, ‘‘এখন আমি আগের থেকে অনেক ভাল আছি। কিছুদিন আগে কিন্তু একেবারেই সেটা ছিলাম না। মিনিট পাঁচেক হাঁটাচলা করলেই হাঁপিয়ে যাচ্ছিলাম। তাই সেটাও বন্ধ করতে হয়। ভাল করে শ্বাসও নিতে পারছিলাম না তখন।’’

দিবালা যোগ করেছেন, ‘‘এখন ভাল আছি। হাঁটাচলাও করতে পারছি। এ বার ট্রেনিংও শুরু করতে চাই। কয়েক দিন আগে একটু ট্রেনিং করতে গিয়েই কেমন একটা কাঁপুনির মতো লাগছিল সারা শরীরে। বড় বড় শ্বাস নিতে হচ্ছিল অক্সিজেন টানতে। মিনিট পাঁচেকের মধ্যে প্রচণ্ড ক্লান্ত হয়ে পড়ছিলাম। সারা শরীর ভারী হয়ে যাচ্ছিল। পেশির উপরেও চাপ পড়ছিল মারাত্মক।’’ আরও মন্তব্য, ‘‘এখন আমি ভাল আছি। আমার বান্ধবী ওরিয়িনারও (সাবাতিনি) আর কোনও উপসর্গ নেই।’’

সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এ বার দিবালার মোট গোল ১৩টি। তবে বেশি আলোচনা হয়েছে, এ বারের সেরি আ-য় শেষ ম্যাচে ইন্টার মিলানের বিরুদ্ধে তাঁর গোল নিয়ে। ‘‘ইন্টারের বিরুদ্ধে গোলটা করে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছিলাম। পাসটা দিয়েছিল রামসে (অ্যারন)।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন