দুই শক্তিশালী প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে বিশ্বকাপের শুরুটা চমৎকার করেছেন বিরাট অ্যান্ড কোম্পানি। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং তিনটি বিভাগেই চমকপ্রদ পারফরম্যান্স করেছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। অনেকেই এখন বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতকে দেখছেন। যদিও অধিনায়ক কোহালির মতে, সেমিফাইনালের ব্যাপারে এখনই কথা বলা উচিত নয়। দিল্লি এখনও বহু দূর। বৃহস্পতিবারের নিউজিল্যান্ডম্যাচকেই ফোকাস করছে টিম ইন্ডিয়া।

বৃহস্পতিবার ট্রেন্ট ব্রিজে ভারতের পরীক্ষা নিতে তৈরি কিউয়িরা। এই মাঠের পিচ মুলত ব্যাটিং সহায়ক। বৃহস্পতিবার আরও একটি হাই স্কোরিং ম্যাচ হতে চলেছে বলে মনে করা হচ্ছে। সেদিন কিন্তু কেউ কাউকে ছাড়বেন না। ট্রেন্ট ব্রিজে অনুষ্ঠিত হতে চলা এই ম্যাচে প্রধান যুদ্ধ কাদের সঙ্গে হতে চলেছে।

ট্রেন্ট বোল্ট বনাম ভারতীয় টপ অর্ডার

আঙুলের চোটের জন্য তিন সপ্তাহ ছিটকে গিয়েছেন শিখর ধওয়ন। এই সময়ের মধ্যে একাধিক ম্যাচ খেলতে পারবেন না তিনি। ধওয়নের না থাকা ভারতীয় দলের কাছে খুব বড় ধাক্কা। ধওয়ন ছিটকে যাওয়ায় ভারতীয় ব্যাটিংয়ের ভারসাম্যই নষ্ট হয়ে গিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। চলতি বিশ্বকাপে দারুণ ফর্মে রয়েছেন কিউয়ি পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। বোল্টের বিষ শুরুতেই শুষে নিতে পারতেন শিখর। তিনি না থাকায় বোল্টের আগুন সামলাতে হবে বাকিদের। কোহালিরা কীভাবে বোল্টকে সামলান সেটাই দেখার।

কুল-চা বনাম কিউয়ি মিডল অর্ডার—

নিউজিল্যান্ডের মিডল অর্ডার খুবই শক্তিশালী। কেন উইলিয়ামসন, রস টেলর, টম লেথামের মতো তারকা ব্যাটসম্যানদিয়ে সাজানো কিউয়ি মিডল অর্ডার। উইলিয়ামসন আর টেলরের পার্টনারশিপ একাধিক বার জয় এনে দিয়েছে নিউজিল্যান্ডকে। অন্য দিকে, কুলদীপ ও চহালের ঘূর্ণি যে কোনও প্রতিপক্ষের মিডল অর্ডার ভাঙতে পারে। চলতি বিশ্বকাপে চহাল ধাঁধার সমাধান করতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া। আগামী ম্যাচে কুল-চা কিউয়িদের মিডল অর্ডারের পরীক্ষা নেবেন, তা এখনই বলে দেওয়া যায়।

হার্দিক পাণ্ড্য বনাম মিচেল স্যান্টনার

পেশি শক্তি বনাম বুদ্ধিমত্তার লড়াইয়ে জিতবে কে? মিচেল স্যান্টনারকে বুদ্ধিদীপ্ত স্পিনার হিসেবেই চেনে ক্রিকেটবিশ্ব। লাইন, লেন্থ ও বোলিং স্পিডে মিশ্রণ এনে বার বার ব্যাটসম্যানদের থামিয়েছেন তিনি। হার্দিক পাণ্ড্য যে কোনও মুহূর্তে ম্যাচের রং বদলে দিতে পারেন। স্পিনারদের গ্যালারিতে আছড়ে ফেলতে দক্ষ পাণ্ড্য। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে জমবে পাণ্ড্য ও স্যান্টনারের লড়াই।