দীনেশ কার্তিকের একটা ভুল সিদ্ধান্ত কি শেষ পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারিয়ে দিল ভারতকে? রবিবার হ্যামিল্টনে তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে চার রানে হারে ভারত। রোহিত শর্মার দল ১-২ হারল সিরিজও। যার পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোপের মুখে পড়েছেন কার্তিক। এমনকি, প্রাক্তন ক্রিকেটারদের কেউ কেউ সমালোচনাও করেছেন তাঁর।

ঘটনার সূত্রপাত শেষ ওভারে। যে ওভারে ম্যাচ জিততে ভারতের প্রয়োজন ছিল ১৬ রান। ব্যাট করছিলেন কার্তিক এবং ক্রুণাল পাণ্ড্য। ১৯তম ওভারের শেষ বলেই ছয় মেরে আস্কিং রেট কিছুটা কমিয়েছিলেন ক্রুণাল। ওই সময় অনেকেরই মনে পড়ে যাচ্ছিল শ্রীলঙ্কায় নিদাহাস ট্রফির ফাইনালের কথা। যেখানে এ রকম পরিস্থিতি থেকে ম্যাচ জিতিয়েছিলেন কার্তিক। এখানে প্রথম বলেই দু’রান নেন তিনি। অঙ্ক দাঁড়ায় পাঁচ বলে ১৪। কিন্তু তার পরের বলে কোনও রান হয়নি। তৃতীয় বল লং অনে পাঠিয়েও রান নেননি কার্তিক। যদিও নন-স্ট্রাইকারে থাকা ক্রুণাল প্রায় উল্টো দিকে পৌঁছে গিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁকে ফেরত পাঠিয়ে দেন কার্তিক। এর পরে চতুর্থ এবং পঞ্চম বলে এক রান করে ওঠে। ষষ্ঠ বলটি ওয়াইড হয়। টিম সাউদির করা শেষ বলে কার্তিক ছয় মারলেও লাভ হয়নি। নিউজ়িল্যান্ডের চার উইকেটে ২১২ রান তাড়া করতে নেমে ভারত থেমে যায় ২০৮-৬ স্কোরে। 

স্কোরকার্ড

নিউজ়িল্যান্ড                         ২১২-৪ (২০)
ভারত                                   ২০৮-৬ (২০)

নিউজ়িল্যান্ড
সাইফার্ট স্টা ধোনি বো কুলদীপ    ৪৩    • ২৫
মুনরো ক হার্দিক বো কুলদীপ        ৭২    • ৪০
উইলিয়ামসন ক কুলদীপ বো খলিল২৭ • ২১
গ্র্যান্ডহোম ক ধোনি বো ভুবনেশ্বর  ৩০• ১৬
মিচেল ন. আ.                              ১৯• ১১
টেলর ন. আ.                                ১৪• ৭
অতিরিক্ত                       ৭
মোট                                           ২১২-৪ (২০)
পতন: ১-৮০ (সাইফার্ট, ৭.৪), ২-১৩৫ (মুনরো, ১৩.২), ৩-১৫০ (উইলিয়ামসন, ১৪.৪), ৪-১৯৩ (গ্র্যান্ডহোম, ১৮.২)। 
বোলিং: ভুবনেশ্বর কুমার ৪-০-৩৭-১, খলিল আহমেদ ৪-০-৪৭-১, হার্দিক পাণ্ড্য ৪-০-৪৪-০, ক্রুণাল পাণ্ড্য ৪-০-৫৪-০, কুলদীপ যাদব ৪-০-২৬-২। 

ভারত
ধওয়ন ক মিচেল বো স্যান্টনার         ৫• ৪
রোহিত ক সাইফার্ট বো মিচেল        ৩৮• ৩২
শঙ্কর ক গ্র্যান্ডহোম বো স্যান্টনার    ৪৩• ২৮
ঋষভ ক উইলিয়ামসন বো টিকনার ২৮• ১২
হার্দিক ক কেন বো কুখেলাইন        ২১• ১১
ধোনি ক সাউদি বো মিচেল              ২• ৪
কার্তিক ন. আ.                              ৩৩• ১৬
ক্রুণাল ন. আ.                               ২৬• ১৩
অতিরিক্ত                                                    ১২
মোট                                           ২০৮-৬ (২০)
পতন: ১-৬ (ধওয়ন, ০.৫), ২-৮১ (শঙ্কর, ৮.৩), ৩-১২১ (ঋষভ, ১২.২), ৪-১৪১ (রোহিত, ১৩.৬), ৫-১৪৫ (হার্দিক, ১৪.৫), ৬-১৪৫ (ধোনি, ১৫.২)।
বোলিং: মিচেল স্যান্টনার ৩-০-৩২-২, টিম সাউদি ৪-০-৪৭-০, স্কট কুখেলাইন ৪-০-৩৭-১, ব্লেয়ার টিকনার ৪-০-৩৪-১, ইস সোধি ২-০-৩০-০, ড্যারিল মিচেল ৩-০-২৭-২।

এর পরেই ঝড় ওঠে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ক্রিকেটভক্তদের বক্তব্য, কেন এই বোকামি করলেন কার্তিক। সঞ্জয় মঞ্জরেকর টুইট করেন, ‘‘দারুণ সব শট খেলল কার্তিক। কিন্তু ছোট একটা ভুলই টি-টোয়েন্টি ম্যাচের ফলে বড় প্রভাব ফেলে। উল্টো দিকে ক্রুণাল থাকা সস্ত্বেও কার্তিকের রান না নেওয়াটা একটা ভুল সিদ্ধান্ত।’’ এই সমালোচনার ঝড়ে হারিয়ে যায় ৪.৪ ওভারে করা কার্তিক-ক্রুণালের ৬৩ রান। এর আগে নিউজ়িল্যান্ডকে ভাল জায়গায় পৌঁছে দেন দুই ওপেনার টিম সাইফার্ট (২৫ বলে ৪৩) এবং কলিন মুনরো (৪০ বলে ৭২)। ভারত শুরুতে শিখর ধওয়নকে হারালেও রোহিত শর্মা, বিজয় শঙ্কর, ঋষভ পন্থরা লড়াই করেছিলেন। টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারলেও ভারতের এই লড়াই যথেষ্ট প্রশংসনীয়। কারণ বিরাট কোহালি এবং যশপ্রীত বুমরা— দুই সেরা অস্ত্রকে বাইরে রেখেই নেমেছিল ভারত। পাশাপাশি সুযোগ দেওয়া হয় নতুন মুখদেরও। যেমন বিজয় শঙ্কর। তিনে নেমে ২৮ বলে ৪৩ করেন। পরে শঙ্কর বলেন, ‘‘তিন নম্বরে খেলার কথা বলায় অবাক হয়ে গিয়েছিলাম।’’