ক্যারিবিয়ানদের ১৮৯ রানে আটকে দিয়েও ব্যাটিং ব্যর্থতার জেরে ১১ রানে ম্যাচ হারল ভারত। মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের মন্থর ব্যাটিংয়ের ফলে সিরিজে লড়াইয়ে ফিরল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। রবিবার অ্যান্টিগায় চতুর্থ এক দিনের ম্যাচ ক্যারিবিয়ানরা জেতায় সিরিজ এখন ২-১। 

দুই ভারতীয় পেসার উমেশ যাদব (৩)আর হার্দিক পাণ্ড্যের(৩) দাপটে ভিভিয়ান রিচার্ডসের দেশের ব্যাটসম্যানদের ব্যাকফুটে ঠেলে দিয়েছিল ভারত। তাদের ১৮৯-৯-এ থামিয়ে দেওয়ার পর পাল্টা ব্যাট করতে নেমে বিরাট কোহালিরাই চাপে পড়ে যান। অজিঙ্ক রাহানে (৬০) এমএস ধোনি (৫৪) ও পাণ্ড্য (১৮) কিছুটা লড়াই দেওয়ার চেষ্টা করলেন। তবে রাহানে খেললেন ৯১ টি বল আর ধোনি ৫৪ রান করতে নিলেন ১১৪ টি বল। শেষ ওভারে ভারতের দরকার ছিল ১৪ রান। কিন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার-এর আগুনে পেসের দাপটে জয় থেকে ১১ রান দূরেই অল আউট হয়ে যায় ধোনিরা।

রবিবার ম্যাচ শুরুর আগেই ভারী বৃষ্টি হয় অ্যান্টিগায়। স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়া, বাউন্স ও দু’রকম গতির উইকেট। বোলাররা যেমন বাউন্স ও গতি দুইই পাচ্ছিলেন, তেমনই বল ব্যাটেও আসছিল ভাল। স্ট্রোক নেওয়ার পক্ষে যা যথেষ্ট। কিন্তু ভারতীয় পেসাররাই বেশির ভাগ সুবিধা আদায় করে নেন পিচ থেকে। শুরুর দিকে রান আটকে দিয়ে ও পরে নিয়মিত উইকেট তুলে নিয়ে। ক্যারিবিয়ানদের রান রেট সেই চাপের মুখে কোনও সময়ই চারের উপর উঠতে পারেনি। ৩২ থেকে ৪২— এই দশ ওভারে ধস নামে হোল্ডারদের ব্যাটিংয়ে। যখন তাদের স্কোরবোর্ডের অবস্থা ১২১-২ থেকে হয়ে দাঁড়ায় ১৬২-৭-এ। দশ ওভারের মধ্যে এই ধস নামান হার্দিক পাণ্ড্য (৩-৪০), কুলদীপ যাদব (২-৩১) ও উমেশ যাদব (৩-৩৬)। ১৮৯-৯-এ শেষ হয়ে যায় ক্যারিবিয়ান ইনিংস। সাতাশ মাস পরে ওয়ান ডে ক্রিকেটে নামলেন মহম্মদ শামি। এ দিন কোনও উইকেট নিতে না পারলেও ব্যাটসম্যানদের মাথা তুলে দাঁড়াতে দেননি। ক্যারিবিয়ান পেসাররাও ভারতীয় পেসারদের অনুসরণ করেই ভারতকে চাপে ফেলে দেন। রাহানে  (৬০) ও ধোনি ছাড়া কেউই ভাল  রান পাননি। যুবরাজ সিংহর হ্যামস্ট্রিং সমস্যা হওয়ায় এ দিন দীনেশ কার্তিক খেলেন। তিনিও ব্যর্থ। কোহালি ৩। ৫ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতলেন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক জেসন হোল্ডার।

আরও পড়ুন:

দারুণ শুরু করেও হার চিলের, কনফেড কাপ জার্মানির