পাকিস্তানের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক পদ থেকে ছেঁটে ফেলা হল সরফরাজ আহমেদকে। ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশের পরিপ্রেক্ষিতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হল বলে জানিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে পিসিবি জানিয়েছে যে, অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান আজহার আলি অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে আসন্ন দুই টেস্টের সিরিজে দলকে নেতৃত্ব দেবেন। নভেম্বরেই অস্ট্রেলিয়ায় তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে পাকিস্তানকে নেতৃত্ব দেবেন বাবর আজম। অস্ট্রেলিয়ায় পরের বছর এই সময়ই হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

গত দুই বছর ধরেই তিন ফরম্যাটে পাকিস্তানকে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন সরফরাজ। ২০১৭ সালে তাঁর নেতৃত্বেই আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জেতে পাকিস্তান। টি-টোয়েন্টি র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষেও উঠেছিল তারা। কিন্তু তাঁর নেতৃত্বে টেস্ট ও একদিনের ক্রিকেটে আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে পাকিস্তান ক্রমশ পিছিয়ে পড়ছিল। সার্বিক ভাবে গত কয়েক সিরিজে তাঁর নিজের পারফরম্যান্সও সাদামাটা ছিল।

আরও পড়ুন: এশিয়ায় টানা নয় টস হার, রাঁচীতে টস করতে প্রক্সি পাঠাতে পারেন দু’প্লেসি​

আরও পড়ুন: ফের এক রেকর্ড গড়ার লক্ষ্যে রাঁচীতে নামছেন কোহালি​

টেস্টে নেতৃত্বের দায়িত্ব পাওয়ার পর আজহার আলি বলেছেন, “টেস্টে পাকিস্তানের জাতীয় দলের অধিনায়ক হওয়ার চেয়ে বড় সম্মান আর কিছুই হতে পারে না। আমি উত্তেজিত, সম্মানিতও। সবার সাহায্যে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে আমার উপর রাখা ভরসার মর্যাদা দেওয়ার চেষ্টা করব। সরফরাজ কাঁচা প্রতিভাকে অভিজ্ঞ ক্রিকেটারে পরিণত করার মাধ্যমে দুর্দান্ত কাজ করেছে। এ বার সেই ক্রিকেটারদের উদ্দীপ্ত করে এগোতে চাইছি।”

টি-টোয়েন্টির অধিনায়ক ঘোষিত হওয়ার পর বাবর আজম বলেছেন, “এই ফরম্যাটে বিশ্বের এক নম্বর দলের অধিনায়ক হওয়া আমার কেরিয়ারের সবচেয়ে বড় ব্যাপার। এই চ্যালেঞ্জ নেওয়ার জন্য আমি তৈরি। চাইছি আরও শেখার প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকতে। পিসিবি আমার উপর ভরসা রাখায় আমি খুশি। সরফরাজ সংক্ষিপ্ততম ফরম্যাটে উদাহরণ স্থাপন করেছেন অধিনায়ক হিসেবে। সেই কাজটাকেই এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আমার দায়িত্ব।”