বিশ্বকাপ অভিযান শুরুর আগে স্টিভ স্মিথকে দেখে মুগ্ধ অস্ট্রেলিয়ার হেড কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার। লন্ডনে প্রস্তুতি শিবির চলছে অস্ট্রেলিয়ার। সেখানে স্মিথের ব্যাটিং দেখার পরে সচিন তেন্ডুলকরের কথা মনে পড়ছে অস্ট্রেলিয়ার কোচের। 

নেটে স্মিথের বিরুদ্ধে বল করছিলেন প্যাট কামিন্স। তাঁকে থার্ডম্যানের ওপর দিয়ে ছয় মারেন স্মিথ। তার পরেই নেথান কুল্টার নাইলের বিরুদ্ধেও দুরন্ত একটি শট খেলেন। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ওয়েবসাইট জানিয়েছে, স্মিথের ওই দুটো শট দেখার পরেই ল্যাঙ্গার বলেন, ‘‘মনে হচ্ছে যেন সচিনকে ব্যাট করতে দেখছি।’’ 

বল বিকৃতি কাণ্ডে নির্বাসন কাটিয়ে আবার দলে ফিরেছেন স্মিথ এবং ডেভিড ওয়ার্নার। দু’জনেই ছন্দে আছেন। আইপিএলে দুরন্ত খেলেছেন ওয়ার্নার। আবার নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে রান পেয়েছেন স্মিথ। অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ককে নিয়ে ল্যাঙ্গার বলেছেন, ‘‘নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিনটে প্র্যাক্টিস ম্যাচে স্মিথকে ব্যাট করতে দেখেছি। বোঝাই যাচ্ছিল, ও কেন অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান। স্মিথকে দলে পেয়ে আমরা সবাই খুশি।’’ 

স্মিথ যে বিশ্বকাপে ভাল করতে কতটা মরিয়া, তা পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে ল্যাঙ্গারের কথাতেই। অস্ট্রেলিয়ার কোচ বলেছেন, ‘‘স্মিথকে দেখে মাঝে মাঝে আমার মজাই লাগছে। কোথাও ঘুরতে গিয়ে হোক, লাঞ্চ রুমে হোক বা টিম বাসে— স্মিথ সব সময়ই ব্যাটিং শ্যাডো করে চলেছে। ও আক্ষরিক অর্থে ব্যাট করতে ভালবাসে। সমুদ্র সৈকতে অদৃশ্য ব্যাট নিয়ে খেলছে, শাওয়ারে গিয়ে শ্যাডো করছে। আমি কিন্তু মজা করছি না। ওকে দেখলে বুঝতে পারতেন।’’

তবে বিশ্বকাপে স্মিথ বা ওয়ার্নারের সামনে শুধু বোলাররাই চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠবেন না, দর্শকদের ‘বাউন্সার’ও সামলাতে হবে এই দুই ব্যাটসম্যানকে। সেটা ভালই জানেন ল্যাঙ্গার। তিনি বলে দিচ্ছেন, তাঁর দুই ক্রিকেটার তৈরি আছেন দর্শকদের সামলানোর জন্য। ল্যাঙ্গার বলেন, ‘‘আমরা তো আর দর্শকদের আচরণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারব না। কিন্তু ১২ মাস আগে যা পরিস্থিতি ছিল, তার চেয়ে উত্তপ্ত তো আর কিছু হবে না। ওরা বড় মূল্য চুকিয়েছে। আমরা জানি, মাঠে নামলে ওদের উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হবে। তার জন্য আমরা সবাই তৈরি।’’

স্মিথ, ওয়ার্নার যে রকম তৈরি, বিশ্বকাপ হাতে তোলার জন্য তৈরি অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চও। তিনি বলেছেন, ‘‘আমরা যদি বিশ্বাসই করতে না পারি যে বিশ্বকাপ জিততে পারব, তা হলে আর খেলতে যাওয়া কেন? সব স্বপ্নই সত্যি হয় না। কিন্তু একটা স্বপ্ন লক্ষ্য করে এগিয়ে গেলে, তা পূরণ করার সুযোগ থাকে।’’ কী স্বপ্ন দেখছেন ফিঞ্চ? ‘‘আমি পরিষ্কার দেখছি, ১৪ জুলাই লর্ডসের ব্যালকনিতে বিশ্বকাপ হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছি,’’ বলেছেন স্মিথদের অধিনায়ক।