ইস্টবেঙ্গলের অনুশীলন শুরু হওয়ার কথা ছিল সকাল ন’টায়। সহকারী কোচ রঞ্জন চৌধুরী, ফিজিক্যাল ট্রেনার গার্সিয়া মিরান্দা মাঠে নেমে পড়েছেন। কিন্তু প্রধান কোচ খালিদ জামিল-সহ ফুটবলারদের দেখা নেই!

কোথায় গেলেন মহম্মদ আল আমনা, গুরবিন্দর সিংহ-রা?

গত মরসুমে আইজল এফসি-র ফুটবলারদের চাপমুক্ত রাখতে অনুশীলনে নামার আগে ড্রেসিংরুমে মনঃসংযোগ করাতেন খালিদ। সেই সংস্কৃতি এ বার লাল-হলুদ শিবিরেও চালু করেছেন তিনি। তবে তিনি নিজে কখনওই থাকেন না ড্রেসিংরুমে। তাঁর যুক্তি, কোচের সামনে অনেক ফুটবলারই গুটিয়ে থাকেন।

আজ, বৃহস্পতিবার প্রতিপক্ষ অবনমনের আতঙ্কে ভুগতে থাকা পাঠচক্র এফসি। যারা কলকাতা প্রিমিয়ার লিগে মহমেডানকে হারিয়ে দুর্দান্ত শুরু করেছিল। কিন্তু তার পরেই ছন্দ হারিয়ে ফেলেন লালকমল ভৌমিকরা। এই মুহূর্তে চার ম্যাচে মাত্র চার পয়েন্ট তাদের। শুধু তাই নয়। আগের ম্যাচে লাল কার্ড দেখায় ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে প্রধান অস্ত্র এরিক ব্রাউনকে পাচ্ছে না পাঠচক্র শিবির। কোচ দেবরাজ চট্টোপাধ্যায় বললেন, ‘‘বিদেশি ফুটবলাররাই মূলত পার্থক্য গড়ে দিচ্ছে। অথচ আমার দলের দুই বিদেশি এরিক ও জোয়েল সানডে ফর্মে নেই।’’ শুধু তাই নয়। চব্বিশ ঘণ্টা আগে মহমেডান ড্র করেছে। এ দিন রেনবোর বিরুদ্ধে পয়েন্ট নষ্ট করেছে মোহনবাগান। আর বুধবার রাতেই কলকাতায় পৌঁছে গিয়েছেন অর্ণব মণ্ডল-সহ জাতীয় দলের চার ফুটবলার। ফুরফুরে মেজাজেই তো থাকার কথা খালিদের। কিন্তু তিনি বললেন, ‘‘পাঠচক্র এ বারের লিগে অন্যতম সেরা দল। যে কোনও মুহূর্তে অঘটন ঘটাতে পারে। ফলে নিশ্চিন্ত থাকার উপায় নেই।’’ 

আরও পড়ুন: জিততে না পেরে কেঁদেই ফেললেন মেসি

লাল-হলুদ কোচের উদ্বিগ্ন হওয়ার আরও একটা কারণ সম্ভবত ভি পি সুহেইর-এর চোট। এ দিন অনুশীলনও করেননি। পাঠচক্রের বিরুদ্ধে তাঁর খেলার সম্ভাবনা খুবই কম। যদিও খালিদ বলছেন, ‘‘বৃহস্পতিবার সকালে সুহেইর-কে আর এক বার পরীক্ষা করার পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেব।’’ তবে ডার্বির প্রস্তুতি হিসেবে জাতীয় দলের ফুটবলারদের যে বৃহস্পতিবারের ম্যাচে দেখে নেওয়ার ভাবনাও রয়েছে তাঁর, জানালেন তিনি। বললেন, ‘‘ওরা কতটা ক্লান্ত থাকবে সেটা সবচেয়ে আগে দেখা দরকার। জাতীয় দলের ফুটবলাররা যদি ম্যাচ খেলার মতো অবস্থায় থাকে, তা হলে অবশ্যই খেলাতে চাই।’’ বৃহস্পতিবারের ম্যাচে ইস্টবেঙ্গলের প্রথম একাদশে আরও একটা পরিবর্তনের সম্ভাবনা রয়েছে। লেফ‌্ট ব্যাকে লালরাম চুলোভা-র বদলে খেলতে পারেন তন্ময় ঘোষ।

গার্সিয়ার স্বপ্ন: গত মরসুমে মোহনবাগানে থাকার সময় তাঁর কাছে রি-হ্যাব করে দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন ঘটিয়েছেন বলবন্ত সিংহ। এশিয়ান কাপের যোগ্যতা পর্বে ম্যাকাও-এর বিরুদ্ধে জোড়া গোল করে জিতিয়েছেন ভারতকে। প্রিয় ছাত্রের সাফল্যে উচ্ছ্বসিত ইস্টবেঙ্গলের ফিজিও গার্সিয়ার স্বপ্ন ভারতীয় দলে কাজ করায়। বললেন, ‘‘বলবন্তের জন্য আমি গর্বিত। আমি ভারতীয় দলে ফিজিও হিসেবে কাজ করতে চাই। জুনিয়র দলে সুযোগ পেলেও আমি খুশি।’’ 

কলকাতা প্রিমিয়ার লিগ: ইস্টবেঙ্গল বনাম পাঠচক্র এফসি (ইস্টবেঙ্গল, দুপুর ২.৪৫)।