Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২২ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

শনিবারে গড়াল জোকার-মারে মহালড়াই

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৬ জুন ২০১৫ ০৩:২৪
ফাইনালে উঠে গ্যালারিকে স্যালু্ট ওয়ারিঙ্কার।

ফাইনালে উঠে গ্যালারিকে স্যালু্ট ওয়ারিঙ্কার।

বাকি তিনটে গ্র্যান্ড স্ল্যামে তো বটেই, অনেক মাস্টার্সেও হকআই টেকনোলজি-রিভিউ সিস্টেম এখন টেনিস-বিতর্কের সমাধানে চেনা ছবি! অথচ টেনিস রোম্যান্টিসিজমের সেরা ভূমি—ফরাসি ওপেনে এখনও আধুনিকতা ব্রাত্য! ২০১৫-তেও রোলাঁ গারোয় না আছে প্রয়োজনে সেন্টার কোর্টের ছাদ ঢেকে প্যারিসে সন্ধে নামলেও নৈশালোকে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ শেষ করার বন্দোবস্ত। না আছে লাইনকল নিয়ে সুভদ্র ফেডেরারেরও ক্ষোভ রোধে রিভিউ সিস্টেম প্রথা। এখনও আম্পায়ার পুরোপুরি লাইনজাজের দৃষ্টিশক্তির উপর নির্ভরশীল!

তো বিতর্কের ম্যাচে ফেডেরারের বিদায় তো আগেই ঘটে গিয়েছিল। শুক্রবার তেত্রিশ ডিগ্রি সেলসিয়াসে তিন ঘণ্টার গলদঘর্ম লড়াইয়েও জকোভিচ আর মারে—দু’জনের কেউ জানতে পারলেন না রবিবার ফিলিপ শাতিয়ের কোর্টে ফাইনালে তাঁদের মধ্যে কে নামবেন? জকোভিচের পক্ষে স্কোরলাইন ৬-৩, ৬-৩, ৫-৭, ৩-৩ অবস্থায় দিনের আলো টেনিস বল দেখার অনুপযুক্ত হয়ে পড়ায় মহাসেমিফাইনাল শনিবারে গড়াল। যেন কোনও দশ হাজার ডলারের এলেবেলে চ্যালেঞ্জার টুর্নামেন্ট!

Advertisement



তবে ওই সময় দু’টো ব্রেক পয়েন্ট বাঁচিয়ে নিজের সার্ভিস ধরে রেখে চতুর্থ সেটে সমতায় ফেরা মারের সামনে জকোভিচকে একটু হলেও ক্লান্ত দেখাচ্ছিল। ফলে লড়াই পরের দিনে গড়ানোয় জকোভিচের আপাত লাভ মনে হতেই পারে। আবার শনিবার যিনি জিতবেন তাঁকে চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যে ফাইনালে ওয়ারিঙ্কার সামনে পড়তে হবে বলে চূড়ান্ত যুদ্ধে একটু হলেও ‘অ্যাডভান্টেজ স্ট্যান-ম্যান’ এখনই বলে দেওয়া যায়। ফেডেরারের দেশের এই মুহূর্তে এক নম্বর প্লেয়ার স্ট্যানিসলাস ওয়ারিঙ্কা এ দিন প্রথম সেমিফা‌ইনালে যে ভাবে গোটা গ্যালারির ‘আলেঁ সঙ্গা-আলেঁ সঙ্গা’ (কাম অন সঙ্গা) গর্জন আর স্থানীয় ফরাসি মহাতারকা জো উইলফ্রেড সঙ্গা—দুটো চ্যালেঞ্জই সামলে ৬-৩, ৬-৭ (১-৭), ৭-৬ (৭-৩), ৬-৪ জিতলেন, তাতে রবিবার সামনে জোকার বা মারে যিনি-ই পড়ুন, তাঁকেও যে ছেড়ে কথা বলবেন না সেটা নিশ্চিত!

ছবি: রয়টার্স।

আরও পড়ুন

Advertisement