Advertisement
১৩ জুলাই ২০২৪
চহালদের ভেল্কি ফিরবে কি

সিরিজ শেষে দ্বৈরথ স্পিন ও ক্লাসেনের

ভারতের দুই ‘রিস্ট স্পিনার’ কুলদীপ যাদব এবং যুজবেন্দ্র চহালের জাদুতে এক দিনের সিরিজ ৫-১ জিতেছে কোহালির ভারত। কিন্তু এক দিনের সিরিজ থেকেই চহালদের ভাল ভাবে খেলে দিতে শুরু করেন ক্লাসেন।

দ্বৈরথ: কোহালি-চহালদের আজ শেষ টি-টোয়েন্টিতে ক্লাসেনদের চ্যালেঞ্জ সামলানোর লড়াই। —ফাইল চিত্র।

দ্বৈরথ: কোহালি-চহালদের আজ শেষ টি-টোয়েন্টিতে ক্লাসেনদের চ্যালেঞ্জ সামলানোর লড়াই। —ফাইল চিত্র।

নিজস্ব প্রতিবেদন
শেষ আপডেট: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ০৫:২৩
Share: Save:

কেপ টাউনেই দুই শক্তিশালী দলের দ্বৈরথ শুরু হয়েছিল। সেটা ছিল টেস্ট সিরিজ আর তার নামকরণ হয়ে গিয়েছিল বিরাট কোহালি বনাম এ বি ডিভিলিয়ার্সের দক্ষতার লড়াই।

সেই কেপ টাউনেই প্রায় দু’মাসের সিরিজের সমাপ্তি ম্যাচ হতে চলেছে। এ বার টেস্ট নয়, টি-টোয়েন্টি সিরিজের ফয়সালার লড়াই। বিরাট এখনও ভারতীয় দলে রয়েছেন, এ বি চোটের জন্য ছিটকে গিয়েছেন। পাল্টে গিয়েছে দ্বৈরথের শিরোনাম। বিরাট বনাম এ বি আর নেই। তার জায়গায় এসে পড়েছে ভারতীয় ‘রিস্ট স্পিনার’-দের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটের নবতম আবিষ্কার হেনরিক ক্লাসেনের দ্বৈরথ।

ভারতের দুই ‘রিস্ট স্পিনার’ কুলদীপ যাদব এবং যুজবেন্দ্র চহালের জাদুতে এক দিনের সিরিজ ৫-১ জিতেছে কোহালির ভারত। কিন্তু এক দিনের সিরিজ থেকেই চহালদের ভাল ভাবে খেলে দিতে শুরু করেন ক্লাসেন। সেঞ্চুরিয়নে দ্বিতীয় ম্যাচেও চহাল-কে পিটিয়ে ম্যাচ ঘুরিয়ে দেন ক্লাসেন-ই। দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম উইকেটকিপার তিনি ছিলেনই না। দলে এসেছেন কুইন্টন ডি’ককের চোট লাগায়। সুযোগ পেয়ে ভারতের বিরুদ্ধে চারটি ওয়ান ডে-তে ক্লাসেন করেছেন ১১০ রান। দু’টি টি-টোয়েন্টিতে ২২৩.৬৮ স্ট্রাইক রেটে করেছেন মোট ৮৫ রান।

কোনও সন্দেহ নেই যে, ভারতীয় বোলিংয়ের জন্য সব চেয়ে বড় আতঙ্ক হয়ে দেখা দিয়েছেন তিনিই। সেঞ্চুরিয়নে গত ম্যাচে চহাল দিয়েছেন ৪ ওভারে ৬৪। তার মধ্যে ৪১ রান একা নিয়েছেন ক্লাসেন। অর্থাৎ, চহালের দেওয়া রানের প্রায় ৬৫ শতাংশ নিয়েছেন একা তিনি। এটাই প্রথম নয়। জোহানেসবার্গে চতুর্থ এক দিনের ম্যাচেও চহাল-সংহারক হয়ে উঠেছিলেন ক্লাসেন। সেই ম্যাচের চহাল দিয়েছিলেন ৪৩ রান। তার মধ্যে ২১ রান এসেছিল ক্লাসেনের ব্যাট থেকে।

দেখা যাচ্ছে, মিডল বা লেগস্টাম্পে খুবই শক্তিশালী ক্লাসেন। ভারতীয় স্পিনারদের তিনি সুইপ, রিভার্স সুইপ মেরে দিতে পারছেন, যা দক্ষিণ আফ্রিকার অন্য ব্যাটসম্যানেরা পারেননি। ক্লাসেনের সুইপ মারা শেখার কাহিনিটাও চমকপ্রদ। জুনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে শ্রীলঙ্কায় সফরে পাঠানো হয়েছিল তাঁদের। সেখানে শ্রীলঙ্কার স্পিনারদের খেলার সময় সুইপ, রিভার্স সুইপ মারা শেখেন। সেই বিদ্যা কুলদীপ-চহালদের বিরুদ্ধে লেগে যাচ্ছে। কুলদীপ টি-টোয়েন্টি সিরিজে খেলছেন না। কিন্তু এক দিনের সিরিজের সময় তাঁকে বেশি করে রিভার্স সুইপ মারছিলেন ক্লাসেন। একমাত্র তাঁর বিরুদ্ধেই কুলদীপের ছন্দ নষ্ট হতে দেখা দিয়েছে। বাঁ হাতি চায়নাম্যান বোলার বলে কুলদীপ-কে অনেক ব্যাটসম্যানই ধরতে পারেন না। কিন্তু ক্লাসেন দেখিয়ে দিয়েছেন, রিভার্স সুইপে কুলদীপের মনে আতঙ্ক তৈরি করা সম্ভব। তাঁর এই ভঙ্গি অন্যান্য দেশের ব্যাটসম্যানরাও অনুসরণ করলে অবাক হওয়ার নেই।

তবে ক্লাসেনের সব চেয়ে বড় সাফল্য হচ্ছে, চহালের উপর পাল্টা চাপ তৈরি করা। গত ম্যাচে মার খাওয়ার পরে কেউ কেউ এমনও বলছেন যে, লেগস্পিনারকে শেষ ম্যাচে বাইরেই রাখা হোক। তাঁর রহস্য ধরে ফেলেছেন ক্লাসেন। এই মুহূর্তে নতুন করে রহস্যের জাল বোনা সম্ভব নয়। চহালের জায়গাতেই কুলদীপকে খেলানোর কথা উঠছে। আবার আর একটা মত হচ্ছে, দুই ‘রিস্ট স্পিনার’-এর ভেল্কিতেই ওয়ান ডে সিরিজ একপেশে জিতেছিল ভারত। এই দু’জনকেই ফের একসঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকার দিকে এগিয়ে দাও। তা হলে কেল্লা ফতে হবে।

এমনিতে ভারতীয় দলে এখন ফর্মুলা হচ্ছে, টি-টোয়েন্টি সিরিজকে নতুনদের পরীক্ষা করার মঞ্চ ধরা হয়। সেই কারণেই পুরো টেস্ট এবং ওয়ান ডে সিরিজ ধরে খেলে চলা যশপ্রীত বুমরা-কে বিশ্রাম দিয়ে শার্দূল ঠাকুর-কে খেলানো হচ্ছে। কুলদীপ-কে খেলানো হচ্ছিল না। আবার এটাও মনে রাখা দরকার যে, প্রথম টেস্ট হার দিয়ে সফর শুরু হওয়া কেপ টাউনেই কোহালি-রা ফিরে এসেছেন সফর শেষের ম্যাচ খেলার জন্য। সকলেই চাইছেন, জয় দিয়ে সিরিজ শেষ করতে। তা হলে টেস্টে হারলেও ওয়ান ডে এবং টি-টোয়েন্টি দু’টো সিরিজ জিতে ফেরা যাবে। সেই কারণে সেরা প্রথম একাদশ যদি আজ, শনিবার মাঠে নামায় ভারত, অবাক হওয়ার থাকবে না।

কেপ টাউনে জলের অভাবে শুকনো পিচ তৈরির পূর্বাভাস রয়েছে এবং বরাবর এখানে স্পিনাররা সামান্য বেশি সাহায্য পায়। সেটা চহাল-দের মনোবল বাড়াতে পারে। চহাল নিজে খুব সাহসী থেকে টুইটারে লিখেছেন যে, ‘মার খেলে গুটিয়ে না গিয়ে আক্রমণ করে যাওয়াটাই সাহসিকতার পরিচয়’। ভারতের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে দু’হাজার রান পেরতে বিরাট কোহালির আর মাত্র ১৭ রান চাই। কিন্তু কোহালিও মানবেন, ওই ১৭ রানের চেয়ে অনেক বেশি মূল্যবান তাঁর কাছে সিরিজ জেতা।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE