Advertisement
১৫ জুন ২০২৪

মলিনার অঙ্কে ২০ পয়েন্টে আসবে সেমিফাইনাল টিকিট

তিনি নন, পুণের কোচ আন্তোনিও হাবাসই রবিবারের ম্যাচে চাপে থাকবেন মনে করেন জোসে মলিনা। তিন দিনের ছুটির পর আটলেটিকো দে কলকাতার অনুশীলন শুরু হবে আজ মঙ্গলবার থেকে। ‘মিশন পুণে’র আগে ফুটবলাররা অনেকেই বাইরে বেড়াতে বা বাড়িতে ছুটি কাটাতে গেলেও পস্টিগাদের কোচ রয়েছেন বাইপাসের ধারের টিম হোটেলেই।

আন্তোনিও হাবাস। রবিবার সামনে পুরনো দল।

আন্তোনিও হাবাস। রবিবার সামনে পুরনো দল।

নিজস্ব সংবাদদাতা
শেষ আপডেট: ০১ নভেম্বর ২০১৬ ০৪:২৩
Share: Save:

তিনি নন, পুণের কোচ আন্তোনিও হাবাসই রবিবারের ম্যাচে চাপে থাকবেন মনে করেন জোসে মলিনা।

তিন দিনের ছুটির পর আটলেটিকো দে কলকাতার অনুশীলন শুরু হবে আজ মঙ্গলবার থেকে। ‘মিশন পুণে’র আগে ফুটবলাররা অনেকেই বাইরে বেড়াতে বা বাড়িতে ছুটি কাটাতে গেলেও পস্টিগাদের কোচ রয়েছেন বাইপাসের ধারের টিম হোটেলেই। চিন্তিত মুখে ঘোরাফেরা করছেন। সেখানেই কোচিং স্টাফের সঙ্গে আলোচনার সময় মলিনা বলে দিয়েছেন, ‘‘চাপটা পুণের। আমাদের নয়। আমরা লিগ টেবলের শীর্ষে আছি। ওরা সাত নম্বরে আছে। ফলে চাপ মুক্ত হয়ে নামতে পারব আমরা।’’ এটিকে কোচের সুবিধে, পস্টিগা, নাতো-সহ সব ফুটবলারই সুস্থ। টিমের এক কর্তা সোমবার মজা করে বলছিলেন, ‘‘তিন বছরে মনে হয় প্রথম বার দেখছি টিমে কোনও চোট নেই। হাবাসের টিমের সঙ্গে খেলা বলেই হয়তো এটা হয়েছে। কোচ তো সমস্যায় পড়ে গিয়েছেন, সে দিন কাকে ছেড়ে কাকে খেলাবেন ভেবে।’’

প্রকাশ্যে ম্যাচ ধরে ধরে এগোনোর কথা বললেও সেমিফাইনাল যাওয়ার জন্য অঙ্ক কষতে শুরু করে দিয়েছেন এটিকে কোচ। তাঁর ধারণা বাকি সাতটা ম্যাচের মধ্যে দু’টো জয় আর দু’টো ড্র করতে পারলে সেমিফাইনাল নিশ্চিত। কলকাতার এখন পয়েন্ট ১২। মলিনার অঙ্ক ২০ পয়েন্ট হলে প্রথম চারে থাকা কেউ আটকাতে পারবে না। জামব্রোতার দিল্লির কাছে রবিবার হারার পরেও গোয়ার কোচ জিকো বলেছেন, ‘‘শেষ চারে যাওয়ার জন্য ২০ পয়েন্ট যথেষ্ট। তবে যে ভাবে খেলা হচ্ছে তাতে এর চেয়ে কম পয়েন্টেও সেমিফাইনাল সম্ভব।’’

প্রথম বছরের দুই ফাইনালিস্ট কলকাতা এবং কেরল সে বার সেমিফাইনালে উঠেছিল ১৯ পয়েন্ট নিয়ে। আইএসএল-টু তে দিল্লি ডায়নামোস আর চেন্নাইয়ানের শেষ চারে যেতে সংগ্রহ করতে হয়েছিল ২২ পয়েন্ট। জন আব্রাহামের নর্থ ইস্ট সেবার ২০ পয়েন্ট পেয়েও ছিটকে গিয়েছিল।

এ বার আবার যেন ফিরে এসেছে প্রথম বারের অবস্থা। কেন এত কম পয়েন্ট নিয়ে সেমিফাইনালে যাওয়ার কড়ি জোগাড় করতে পারছে টিমগুলো? প্রধান কারণ অনেক ম্যাচের ফয়সালা হচ্ছে না। পরিসংখ্যান দেখাচ্ছে, রবিবার পর্যন্ত হওয়া ২৭টি ম্যাচের মধ্যে ১০টা ড্র হয়েছে। লিগ টেবলে সবার শেষে থাকা এফসি গোয়ার কোচ জিকো বলেছেন, ‘‘আমাদের হতাশ হওয়ার কোনও কারণ নেই। আমরা এখনও ছিটকে যাইনি। বাকি সাতটা ম্যাচের পাঁচটা জিতলে আমরাও সেমিফাইনালে যেতে পারি।’’

ইতিমধ্যেই আইএসএলের প্রায় অর্ধেক ম্যাচ শেষ। তাৎপর্যের, নিজের ঘরের মাঠের চেয়ে বাইরের মাঠে বেশি ম্যাচ জিতছে টিমগুলো। যা আগের দু’বার হয়নি। ২৭টি ম্যাচের মধ্যে অ্যাওয়ে ম্যাচে জয় পেয়েছে অ্যাওয়ে টিম। আরও গুরুত্বের, এক নম্বর কলকাতার সঙ্গে আট নম্বর গোয়ার পার্থক্য মাত্র আট পয়েন্টের। ফলে এখনও পর্যন্ত শেষ চারে যাওয়ার ব্যাপারে কোনও দলই নিশ্চিত নয়। সব কিছুই ওপেন।

এ দিকে নর্থ-ইস্টের বিরুদ্ধে জেতার পর মলিনা ছুটি দেওয়ায় অর্ণব-দেবজিৎরা যে যাঁর বাড়ি চলে গিয়েছেন দিওয়ালির উৎসবে যোগ দিতে। পস্টিগা বারাসতের কালীপুজো ঘুরে সেই যে হোটেলে ঢুকেছেন আর কোথাও যাননি। ফিট থাকতে জিম করছেন। অন্য বিদেশিদের মধ্যে ইয়ান হিউম কোচি গিয়েছিলেন বন্ধুর বাড়িতে। পরিবার নিয়ে নিজের জন্মদিনের পার্টি দিয়েছেন সেখানেই। বোরহা, তিরিরা যে যাঁর মতো ঘুরে বেরিয়েছেন। কেউ কালীঘাটে গিয়েছেন, কেউ বাবুঘাটে বা ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে। আজ মঙ্গলবার থেকে ফের পুণে জয়ের জন্য ঝাঁপাবেন হিউম-দ্যুতিরা। রবিবারের ম্যাচ কলকাতার কাছে সম্মানের। যদিও ফুটবলারদের চেয়ে কর্তাদের মধ্যেই জেদটা যেন বেশি।

হাবাসকে তো তাঁরাই ছাঁটাই করেছেন এ মরসুমে!

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE