×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২২ জুন ২০২১ ই-পেপার

বেতন বাড়লে থাকার ইঙ্গিত ওয়ালশের

সোনাজয়ী কোচের পদত্যাগ ঘিরে সাই আর হকি ইন্ডিয়ার ঝগড়া প্রকাশ্যে

নিজস্ব প্রতিবেদন
২২ অক্টোবর ২০১৪ ০২:১৩
টেরি ওয়ালশ।

টেরি ওয়ালশ।

দাদারা এশিয়ান গেমস চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরের অলিম্পিকে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জনের তিন সপ্তাহের মধ্যে ভাইয়েরা জহর কাপে সুলতান হয়ে ভারতীয় হকিপ্রেমীদের তুমুল অভিনন্দনের মধ্যে আজই দিল্লি পৌঁছল মালয়েশিয়া থেকে। যেখানে যুব ভারতীয় হকি দল পাকিস্তানকে হাফডজন কিংবা অস্ট্রেলিয়াকে এক গণ্ডা গোলে হারিয়ে এসেছে। কিন্তু আলোর নীচেই যে অন্ধকার! ভারতীয় হকি যে মুহূর্তে তার স্বর্ণযুগে ফেরার ইঙ্গিত দিতে শুরু করেছে, তখনই খারাপ খবর জাতীয় কোচ টেরি ওয়ালশ এ দেশের শীর্ষ সরকারি ক্রীড়া প্রতিষ্ঠান সাইয়ের সঙ্গে টাকাপয়সা নিয়ে বনিবনা না হওয়ায় পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেন! ঠিক যে দিন কিনা ভারতের যুব হকি দল বিদেশ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ফিরল, সিনিয়র জাতীয় দলের দীর্ঘ ষোলো বছর পর এশিয়াড সোনা জেতার নজির মাত্র তিন সপ্তাহে পা দিল!

Advertisement



ষাট বছর বয়সি বিখ্যাত অস্ট্রেলীয় হকি অলিম্পিয়ান ওয়ালশ দক্ষিণ পার্থের ১৯ নম্বর গার্ডেন স্ট্রিটে তাঁর বাড়ি থেকে দিল্লিতে সাই-কে যে ই-মেল পাঠিয়ে ভারতীয় হকি দলের চিফ কোচের পদ থেকে নিজের ইস্তফা দেওয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন, তাতেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে, মাঠের ভেতর যতই ভারতীয় হকির সুদিন ফিরুক না কেন, মাঠের বাইরে হকি ইন্ডিয়া আর সাইয়ের ঝগড়া সেই আগের মতোই তীব্র। যা ভারতের খেলাধুলোয় আমলাতন্ত্রের জলজ্যান্ত প্রমাণ। ১৯ অক্টোবরের ই-মেলে ওয়ালশ লিখেছেনও তাই‘ভারতের ক্রীড়া-আমলাতন্ত্রের ফাঁসে পড়ে আমার পক্ষে ভারতীয় হকি দলের ব্যাপারে বিভিন্ন উন্নতিমূলক সিদ্ধান্ত নিতে এবং সিস্টেম চালু করতে প্রচণ্ড অসুবিধে হচ্ছে। আপনাদের দেশের খেলাধুলোর আমলাতান্ত্রিক সিস্টেম পেশাদার ভাবেও আমার সমস্যার সমাধান ঘটাতে ব্যর্থ। সে জন্য আমার পক্ষে এই মুহূর্ত থেকে ভারতীয় হকি দলের চিফ কোচ থাকা সম্ভব হচ্ছে না। তার জন্য আমার চুক্তির সমস্ত ধারা মেনে নিতেও আমি রাজি।’

এর পরেই হকি ইন্ডিয়া আর সাইয়ের মধ্যে চাপানউতর শুরু হয়ে যায় কারা ওয়ালশের পদত্যাগের জন্য দায়ী সেই দোষারোপ একে অন্যের ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টায়। হকি ইন্ডিয়া থেকে বিবৃতি দিয়ে বলা হয়, সাইয়ের পেমেন্টের গড়িমসিতেই ওয়ালশ ক্ষুব্ধ হয়ে পদত্যাগ করেছেন। পত্রপাঠ যার জবাবে সাইয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, টাকাপয়সা নিয়ে ওয়ালশের সঙ্গে সাইয়ের কখনও মনোমালিন্য ঘটেনি। হকি ইন্ডিয়া প্রেসিডেন্ট নরিন্দর বাত্রা সাইকে খোঁচা দিয়ে বলেন, “এ রকম একটা প্রশাসনিক বিপর্যয় কিছু দিন ধরেই ভারতীয় হকির জন্য অপেক্ষা করছিল।” সাইয়ের ডিরেক্টর জেনারেল জিজি থমসনের আবার পাল্টা অভিযোগ, “ওয়ালশ তো আজই আমাদের (সাই) অফিসে এসে শীর্ষকর্তাদের কাছে দুঃখ করছিলেন যে, কী ভাবে হকি ফেডারেশনের দমবন্ধ করা পরিবেশের মধ্যে তাঁকে কাজ করতে হয়!” অস্ট্রেলীয় হকি কোচের সঙ্গে ভারতীয় হকির চুক্তি ২০১৬ রিও অলিম্পিক পর্যন্ত। কিন্তু শোনা যাচ্ছে, তাঁর বেতনের উপর কেন্দ্রীয় সরকারের টিডিএস কাটা নিয়েই মূল ক্ষোভ ওয়ালশের। যেটা নিয়ম মতো সাই-ই অস্ট্রেলীয়র বেতন থেকে কেটে নেয়।

ওয়ালশের পদত্যাগে শুধু ভারতীয় হকিমহলেই নয়, গোটা ভারতীয় ক্রীড়ামহলে মঙ্গলবার এতটাই আলোড়ন পড়ে যায় যে, কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল তড়িঘড়ি সাইকে নির্দেশ দেন এই বিষয়ে আগামী চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যে তাঁর কাছে রিপোর্ট পেশ করতে। এবং এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ওয়ালশকে নিয়ে দিনভর চলা নাটক নাটকীয় মোড় নেয়! ওয়ালশ খানিকটা নরম হয়ে সাইকে জানিয়ে দেন, তিনি সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে প্রস্তুত, যদি তাঁর সঙ্গে নতুন চুক্তি করতে রাজি থাকে সাই। আর এ বার সেই নতুন চুক্তি ওয়ালশের শর্তেই চূড়ান্ত করতে হবে। ওয়ালশের নতুন ভাবনায় স্পষ্ট ইঙ্গিত যে, সাই তাঁর বেতন বাড়ালে তিনি ভারতীয় হকি দলের চিফ কোচ থাকবেন। বল এখন সাইয়ের কোর্টে!

Advertisement