×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৪ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

শাস্ত্রী-বিরাটদের নিয়ে বৈঠক

অস্ট্রেলিয়ার মহড়া চলবে নিউজিল্যান্ডে

সুমিত ঘোষ
কলকাতা ১০ অক্টোবর ২০১৮ ০৪:০৭
ভাবনা: প্রস্তুতির নকশা তৈরি শাস্ত্রী-বিরাট জুটির। ফাইল চিত্র

ভাবনা: প্রস্তুতির নকশা তৈরি শাস্ত্রী-বিরাট জুটির। ফাইল চিত্র

অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রস্ততি সারতে নিউজিল্যান্ডে ভারতীয় ‘এ’ দলের সঙ্গে সফর করতে পারেন টেস্ট দলের কয়েক জন সদস্য। এ বছরের শেষে এবং নতুন বছরের গোড়ায় অস্ট্রেলিয়ায় চার টেস্টের সিরিজ খেলবেন বিরাট কোহালিরা। তার জন্য প্রস্তুতিতে কোনও ফাঁক রাখতে চাইছেন না তাঁরা। এক দিকে ঠিক হয়েছে, দু’টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার চেষ্টা করা হবে। এই মুহূর্তে সূচিতে মাত্র একটিই প্রস্তুতি ম্যাচ রয়েছে। অন্য দিকে, দলের কয়েক জনকে ‘এ’ দলের সঙ্গে নিউজিল্যান্ড সফরে পাঠানোর ভাবনাচিন্তা চলছে।

অস্ট্রেলিয়ায় ভারতীয় দলের সফর শুরু হচ্ছে ২১ নভেম্বর টি-টোয়েন্টি দিয়ে। প্রথমে তিনটি টি-টোয়েন্টি রয়েছে। চার টেস্টের সিরিজ শুরু হচ্ছে অ্যাডিলেডে ৬ ডিসেম্বর। টেস্ট সিরিজের পরে হবে তিন ম্যাচের ওয়ান ডে দ্বৈরথ। কোহালিদের অস্ট্রেলিয়া অভিযান শুরুর ঠিক আগেই ভারতীয় ‘এ’ দল নিউজিল্যান্ডে যাবে। সেখানে নিউজিল্যান্ড ‘এ’ দলের সঙ্গে তিনটি চার দিনের প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলবে তারা। এই ম্যাচগুলি হবে ১৬ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে। অর্থাৎ অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট সিরিজ শুরুর আগেই তিনটি প্রথম শ্রেণির চার দিনের ম্যাচ পাওয়া যাচ্ছে। সেই কারণেই ডনের দেশের চ্যালেঞ্জের জন্য তৈরি হতে টেস্ট ম্যাচ বিশেষজ্ঞদের পাঠানোর কথা ভাবা হয়েছে নিউজিল্যান্ডে।

হায়দরাবাদে আজ, বুধবারেই কমিটি অফ অ্যাডমিনিস্ট্রেটর্স (সিওএ)-এর সঙ্গে শীর্ষ বৈঠক হচ্ছে ভারতীয় দল পরিচালন সমিতির। সেখানে সিওএ প্রধান বিনোদ রাইয়ের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন হেড কোচ রবি শাস্ত্রী, অধিনায়ক বিরাট কোহালি এবং জাতীয় নির্বাচকমণ্ডলীর প্রধান এম এস কে প্রসাদ। সিওএ বোর্ডের পরিচালন ক্ষমতায় থাকাকালীন এ রকম সর্বদলীয় বৈঠক এই প্রথম হচ্ছে। কোহালির দলের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার দিক থেকে এই বৈঠক খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ মূল আলোচ্য বিষয় অস্ট্রেলিয়া সফর এবং বিশ্বকাপ। এবং সব চেয়ে বেশি জোর দেওয়া হতে পারে এই দুই চ্যালেঞ্জের প্রস্তুতি কী ভাবে নেওয়া উচিত, সেটার উপরে।

Advertisement

অতীতে দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ইংল্যান্ড সফরে প্র্যাক্টিস ম্যাচ খেলা নিয়ে প্রচুর বিতর্ক হয়েছে। সুনীল গাওস্করের মতো কিংবদন্তি ভারতীয় দল পরিচালন সমিতির সমালোচনা করেছেন পর্যাপ্ত প্র্যাক্টিস ম্যাচ না খেলার জন্য। আবার কোহালিদের পাল্টা মত হচ্ছে, অনেক ক্ষেত্রেই এই ম্যাচগুলোতে অতি সাধারণ ক্রিকেটারদের দিয়ে একটা দল নামিয়ে দেয় আয়োজক দেশ। সেই কারণে এই ম্যাচগুলো খেলে আসলে কোনও সঠিক প্রস্তুতিই হয় না।

ইংল্যান্ডেই যেমন এ বার চেমসফোর্ডে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে গিয়ে ভয়াবহ অভিজ্ঞতা হয়েছিল ভারতীয় দলের। অনেকেরই মনে হয়েছিল, চেমসফোর্ডে চার দিন ধরে ম্যাচ খেলার জন্য পড়ে থেকে কোনও লাভ হবে না। তার চেয়ে নিজেদের সেরা ক্রিকেটারদের বিরুদ্ধে নেটে ব্যাটিং-বোলিং করলে অনেক ভাল তৈরি হওয়া যাবে।

মত-পাল্টা মতের মধ্যে আদর্শ প্রক্রিয়া কী, তা নিয়ে আলোচনা হতে পারে বুধবারের সভায়। আপাতত যা ইঙ্গিত, ভারতীয় দল চেষ্টা করবে দু’ভাবে অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট সিরিজের প্রস্তুতি নেওয়ার। শুরুতে টি-টোয়েন্টি ম্যাচের পরে যদি দু’টো প্রস্তুতি ম্যাচ খেলা যায়, তা হলে সেই পথ অবলম্বন করা হবে। কিন্তু সেক্ষেত্রে অস্ট্রেলীয় বোর্ডের সঙ্গে কথা বলে নিশ্চিত করার চেষ্টা হবে যাতে অন্তত প্রথম শ্রেণির মর্যাদা পায় এমন টিম যেন দেওয়া হয়। যদি স্টিভ স্মিথদের বোর্ডের কাছ থেকে সে রকম প্রতিশ্রুতি পাওয়া যায়, তবেই দু’টো প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার সিদ্ধান্ত হবে। না হলে বেশির ভাগ টেস্ট বিশেষজ্ঞকে পাঠানো হবে নিউজিল্যান্ডে ‘এ’ দলের সঙ্গে।

পৃথ্বী শ, ময়াঙ্ক অগ্রবাল, হনুমা বিহারীর মতো তরুণ মুখদের তো বটেই, হ্যাডলির দেশে প্রস্তুতির জন্য যেতে পারেন অজিঙ্ক রাহানে, চেতেশ্বর পূজারাও। এঁরা কেউ টি-টোয়েন্টি দলে নেই বলে অস্ট্রেলিয়ায় শুরুর দিকে থাকার প্রয়োজনও হচ্ছে না। ইংল্যান্ডে টেস্ট সিরিজের জন্য বিশেষ ভাবে তৈরি হবেন বলে কাউন্টি খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন অধিনায়ক কোহালি। চোট থেকে বিশ্রাম নিতে হবে বলে পরে কাউন্টি অভিযান বাতিল করে দিতে হয়। এ বারে এটাই দেখার যে, অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট সিরিজের প্রস্তুতির জন্য সফরের শুরুতে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ ছেড়ে তিনিও হ্যাডলির দেশে ‘এ’ দলের সঙ্গে পাড়ি দেন কি না!

Advertisement