Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৭ নভেম্বর ২০২১ ই-পেপার

টেস্ট নিয়ে বিরাট সওয়াল, দলীপে ক্ষোভ বেদীর

নিজস্ব প্রতিবেদন
৩০ নভেম্বর ২০১৭ ০৪:১০
শ্রদ্ধা: দিল্লির দুই তারকা। প্রাক্তন ও বর্তমান। ক্রিকেটারদের নিয়ে দিল্লি ক্রিকেট সংস্থা আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিষাণ সিংহ বেদীকে দেখতে পেয়ে মঞ্চেই তাঁকে প্রণাম বিরাট কোহালির। ছবি: পিটিআই।

শ্রদ্ধা: দিল্লির দুই তারকা। প্রাক্তন ও বর্তমান। ক্রিকেটারদের নিয়ে দিল্লি ক্রিকেট সংস্থা আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিষাণ সিংহ বেদীকে দেখতে পেয়ে মঞ্চেই তাঁকে প্রণাম বিরাট কোহালির। ছবি: পিটিআই।

টেস্ট ক্রিকেটের অস্তিত্ব যখন সঙ্কটে পড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে, তখন পাঁচ দিনের ক্রিকেটের হয়ে ব্যাট ধরলেন বিরাট কোহালি। ভারত অধিনায়ক বলে দিলেন, বিশ্বব্যাপী ক্রিকেটের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে হলে টেস্টই এই খেলাটার আদর্শ ফর্ম্যাট হওয়া উচিত।

বুধবার দিল্লি ক্রিকেট সংস্থার (ডিডিসিএ) এক অনুষ্ঠানে এসে কোহালি বলেন, ‘‘আমার মনে হয়, টেস্ট ক্রিকেটই বিশ্বব্যাপী এই খেলাটাকে টিকিয়ে রাখতে পারে। আমি তরুণ প্রজন্মের কাছে আবেদন জানাচ্ছি, পাঁচ দিনের খেলাটাকে আরও বেশি করে গ্রহণ করতে। টেস্ট ক্রিকেট খেলার ব্যাপারে আরও নজর দিতে।’’

দিল্লি ক্রিকেটের কিংবদন্তিদের ভিড়ে উজ্জ্বল হয়ে উঠেছিল ডিডিসিএ-র বুধ-সন্ধ্যার ক্রিকেট আড্ডা। যেখানে দেখা গিয়েছে বিষাণ সিংহ বেদী, মোহিন্দর অমরনাথদের। ছিলেন প্রয়াত মনসুর আলি খান পটৌডির স্ত্রী শর্মিলা ঠাকুরও। যে অনুষ্ঠানে বেদী, মোহিন্দরের নামে ফিরোজ শা কোটলায় স্ট্যান্ড এবং ভারতীয় মেয়ে ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক অ়ঞ্জুম চোপড়ার নামে গেটের উদ্বোধন হয়।

Advertisement

আরও পড়ুন: ‘কোহালির এমন ফর্ম চাই পরের ১৫ মাসেও’

অনুষ্ঠানে তাঁর অনূর্ধ্ব ১৪ এবং অনূর্ধ্ব ১৬ ক্রিকেটের দিনগুলোর স্মৃতিচারণা করে কোহালি আরও বলেন, ‘‘আমি যখন দিল্লির অনূর্ধ্ব ১৪ এবং অনূর্ধ্ব ১৬ দলের হয়ে খেলতাম, তখন বেদী স্যার আমাদের খুব খাটাতেন। খুব ট্রেনিং করাতেন। আর এখন সেই ট্রেনিং, সেই পরিশ্রম আমার জীবনের অঙ্গ হয়ে গিয়েছে।’’ এর পরে কোহালির শ্রদ্ধার্ঘ্য, ‘‘আজ, এখানে দিল্লির সব অধিনায়কের সঙ্গে এক মঞ্চে থাকতে পেরে আমি খুব সম্মানিত বোধ করছি। আমিও এক সময় দিল্লির অধিনায়ক ছিলাম।’’



পরম্পরা: দুই প্রজন্মের দুই সেরা। মোহিন্দর ও বিরাট। ছবি: পিটিআই।

এর পর কোহালিকে নিয়ে বেদী বলেন, ‘‘মাঠে বিরাট যে রকম অঙ্গভঙ্গি করে থাকে, আমি তার সঙ্গে সবসময় একমত হই না। কিন্তু আমি এটা বলব, বিরাটের মতো তীব্রতা নিয়ে আমি কাউকে খেলতে দেখিনি। বিরাটের মতো তীব্র আকাঙ্খা নিয়ে আমি কোনও ভারতীয়কে মাঠে নামতে দেখিনি। ও নিশ্চয়ই ভবিষ্যতে আরও শান্ত হয়ে যাবে, কিন্তু এখন পর্যন্ত ওর মতো কাউকে আমি দেখিনি।’’

একই সঙ্গে বেদী একহাত নিয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেট প্রশাসকদের। তিনি বলে দিয়েছেন, বর্তমান প্রজন্মের ক্রিকেটারেরা রঞ্জি বা দলীপ ট্রফিকে আইপিএলের চুক্তি পাওয়ার রাস্তা হিসেবে দেখেন। কোহালি যে দিন টেস্ট ক্রিকেটের মাহাত্মের কথা বলেছেন, সে দিনই ভারতের এই কিংবদন্তি স্পিনার দাবি তুলেছেন, দলীপ ট্রফিকে পুরনো চেহারায় ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার। বেদী বলেছেন, ‘‘দলীপ ট্রফির টিমের নাম কেন ভারত লাল, ভারত নীল, ভারত সবুজ হবে। কেন আগে যেমন আঞ্চলিক ভিত্তিতে খেলা হতো, সে রকম হবে না? দলের সঙ্গে রঙের কী সম্পর্ক?’’

বেদী আরও বলেছেন, ‘‘রঞ্জি ট্রফি এবং দলীপ ট্রফি একটা সময় ছিল তরুণ ক্রিকেটারদের উঠে আসার সিঁড়ি। ভারতীয় ক্রিকেট কাঠামোয় এই দু’টো টুর্নামেন্টের গুরুত্বই ছিল আলাদা। প্রথমে রাজ্য দল, তার পরে আঞ্চলিক দলে ভাল খেলে জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া যেত। সেই পুরো পদ্ধতিটাই এখন নষ্ট হয়ে গিয়েছে।’’ বেদী সাফ বলে দিচ্ছেন, ‘‘যারা টি-টোয়েন্টি বা আইপিএল ম্যাচ খেলার দিকে ঝোঁকে, তাদের বিরুদ্ধে আমি কিছু বলতে চাই না। আমি শুধু বলব, এক জনের প্রতিভার বিচার শুধু তার প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের সাফল্যের নিরিখেই হওয়া উচিত।’’

আরও পড়ুন

Advertisement