বাজার থেকে ফিরে স্ত্রীকে ফোন করবেন বলেছিলেন সিআইএসএফ-এর জওয়ান দীনাঙ্কর মুখোপাধ্যায় (৫২)। তাঁর ফোন আর আসেনি। যে ফোন এল, তা দিল তাঁর মৃত্যুসংবাদ।

বৃহস্পতিবার ছত্তীসগঢ়ের দন্তেওয়াড়ায় মাওবাদী হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন দীনাঙ্কর। বর্ধমান শহরের তিন নম্বর ইছলাবাদ ঘোষপাড়ার বাসিন্দা তিনি। বাড়িতে রয়েছেন স্ত্রী মিতা মুখোপাধ্যায় ও ছেলে দেবজিৎ।

এ দিন বিকেল ৩টে নাগাদ দুঃসংবাদ পান তাঁরা। দীনাঙ্করবাবুরা চার ভাই। তিনি মেজ। পাশাপাশি থাকেন সবাই। তাঁর ভাই শুভঙ্করবাবু বলেন, ‘‘মহালয়ার আগে দাদা এসেছিলেন। পুজোর কেনাকাটা করে কয়েক দিন থেকেই চলে যান। ছত্তীসগঢ়ে বিধানসভা ভোটের ডিউটি পড়েছিল তাঁর।’’

আরও পড়ুন: অচ্ছে দিন আসবে না, দাবি নকল মোদীর

জানা গিয়েছে, দীনাঙ্করবাবু আগে বিমান বাহিনীতে ছিলেন। ২০১১ সালে সিআইএসএফ-এ যোগ দেন। মিতাদেবী বলেন, ‘‘সকালে ফোন করার সময় বলছিলেন, ওঁদের মেসের বাজার করতে বেরিয়েছেন। ফিরে ফোন করবেন। তার আগেই সব শেষ হয়ে গেল!’’ ছেলে দেবজিৎ বর্ধমান সেন্ট জেভিয়ার্সের একাদশ শ্রেণির ছাত্র। বাবার মৃত্যুসংবাদ আসার পর থেকেই মায়ের পাশে চুপচাপ বসে রয়েছে সে।

নিহত বাঙালি জওয়ান দীনাঙ্কর মুখোপাধ্যায়

প্রতিবেশী নির্মল মুখোপাধ্যায় জানান, দীনাঙ্করবাবুর পরিবার প্রায় পঞ্চাশ বছর ধরে এ পাড়ার বাসিন্দা।

আরও পড়ুন: সঙ্কট নেই মিউচুয়াল ফান্ডে, লগ্নিকারীদের আশ্বাস কর্তৃপক্ষের

তাঁদের আদি বাড়ি বীরভূমে। ছুটিতে বাড়ি এলে দেখা হলেই হেসে কথা বলতেন তিনি। আর এক পড়শি অমিয় রায়ও বলেন, ‘‘হাসিখুশি মানুষটা নেই, ভেবে খারাপ লাগছে।’’