সুপ্রিম কোর্টে সোনা কাণ্ড নিয়েও অভিযোগ জানাল সিবিআই। সারদা মামলা নিয়ে শুক্রবার শুনানি চলছিল শীর্ষ আদালতে। সেই সময়েই সম্প্রতি কলকাতা বিমানবন্দরের সোনা কাণ্ডের প্রসঙ্গ উত্থাপন  করে ওই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।  তারা জানায়, রাজ্যে কোনও কেন্দ্রীয় সংস্থার কাজ করার মতো পরিস্থিতি নেই।

সিবিআইয়ের তরফে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেটা অভিযোগ করেন, শুল্ক দফতরের কর্মীরা তল্লাশির জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রীকে আটকান। তখন পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ বিমানবন্দরের ভিতরে ঢুকে জোর করে ছাড়িয়ে নিয়ে যায় ওই রাজনীতিবিদের স্ত্রীকে। তুষার মেটা আদালতকে এটাও জানান, গোটা ঘটনাটি সিসিটিভি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে এবং প্রমাণ হিসেবে তার ফুটেজও রয়েছে।

রাজ্য সরকারের পক্ষে আইনজীবী অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি সিবিআইয়ের এই বক্তব্যের বিরোধিতা করেন। তিনি পাল্টা দাবি করেন, এই মামলার সঙ্গে বিমানবন্দর প্রসঙ্গের কোনও যোগ নেই। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ তাঁকে থামিয়ে দিয়ে সলিসিটর জেনারেলকে এ বিষয়ে দ্রুত লিখিত রিপোর্ট পেশ করার নির্দেশ দেন তিনি।

আরও পড়ুন: দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

আরও পড়ুন: সারদা কাণ্ডের কল রেকর্ডস দিচ্ছে না এয়ারটেল-ভোডাফোন! নোটিস ধরাল সুপ্রিম কোর্ট

গত ১৫ মার্চ গভীর রাতের বিমানে ব্যাঙ্কক থেকে কলকাতা বিমানবন্দরে নামেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী। ব্যাগে ‘বিধিবহির্ভূত’ সোনা আছে, এই অভিযোগ এনে বিমানবন্দরের কর্তব্যরত শুল্ক দফতরের কর্মীরা রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর এক মহিলা সঙ্গীকে আটকান। অভিযোগ, এর পরই পুলিশের কর্তাব্যক্তিরা বিমানবন্দরে গিয়ে শুল্ক আধিকারিকদের সঙ্গে বাদানুবাদে জড়ান। অবশেষে রুজিরা ও তাঁর সঙ্গী বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে আসেন।

(পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্ত থেকেবাংলায় খবরজানতে পড়ুন আমাদেররাজ্যবিভাগ।)