বিজেপি বা তৃণমূল, কারও সঙ্গেই হাত মিলিয়ে বোর্ড গঠন করা যাবে না। যেখানে ওই দুই দলের মধ্যে কারও সদস্যদের সমর্থন না করলে প্রধান ঠিক করা যাবে না, সে ক্ষেত্রেও যথাসম্ভব ওই প্রক্রিয়া থেকে দূরে থাকতে হবে। পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠনের ক্ষেত্রে দলীয় সদস্যদের জন্য এমন রূপরেখাই বেঁধে দিল সিপিএম।

আলিমুদ্দিনে আজ, বুধবার রাজ্য কমিটির বৈঠকে পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন ঘিরে সার্বিক পরিস্থিতি আলোচনা হবে। সেই সঙ্গেই আলোচনায় আসবে লোকসভা ভোটে রাজ্যে দলের রণকৌশল তথা কংগ্রেসের সঙ্গে সমঝোতার প্রসঙ্গ।

তবে ইতিমধ্যেই কয়েকটি জেলার পঞ্চায়েতে বাম-বিজেপির একত্রে বোর্ড গড়়ার খবর এসেছে। সেই প্রশ্নে সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি মঙ্গলবার বলেন, ‘‘বিজেপি এবং তৃণমূলকে ‘না’ বলতে হবে, এটাই আমাদের পার্টি লাইন। দলের সেই লাইন ভাঙলে যাঁরা দলীয় সদস্য, তাঁদের ক্ষেত্রে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’ একই সঙ্গে ইয়েচুরি জানান, খোঁজ নিয়ে দেখা যাচ্ছে কোথাও হয়তো ১০ সদস্যের বোর্ডে তৃণমূলের ৪ এবং সিপিএম ও বিজেপির ৩ জন করে প্রতিনিধি আছেন। সেখানে কাউকে সমর্থন না করলে প্রধান ঠিক করা মুশকিল। তবু সে সব ক্ষেত্রেও দলীয় সদস্যেরা প্রধান ঠিক করার প্রক্রিয়া থেকে দূরে থাকবেন, এটাই বাঞ্ছনীয়। যদিও আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রক্রিয়া থেকে দূরে থাকলে শাসক দল ঘোড়া কেনাবেচা করে দল ভাঙাতে পারে, এমন দৃষ্টান্তও দেখা যাচ্ছে! তাই অত্যন্ত সতর্ক হয়ে এবং বিচার-বিবেচনা করে পা ফেলার কথা বলেছেন সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক।