আইআইটির ৬৪তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে কাল, শুক্রবার খড়্গপুরে আসছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। সমাবর্তনে যোগ দেবেন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। আজ, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুখ্যমন্ত্রীর খড়্গপুরে আসার কথা। মমতার আসার খবর পেয়েই তৎপর প্রশাসন থেকে শাসকদল।

আইআইটি সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রাতে দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবন থেকে সমাবর্তনে মুখ্যমন্ত্রীর উপস্থিত থাকার কথা নিশ্চিত করে খড়্গপুর আইআইটিকে জানানো হয়েছে। সেই মতো প্রস্তুতিও শুরু হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে আইআইটির পক্ষ থেকে তৈরি করা হয়েছে ব্যানার। আইআইটি-র রেজিষ্ট্রার ভৃগুনাথ সিংহ বলেন, “রাষ্ট্রপতি ও রাজ্যপাল আসার কথা আগেই নিশ্চিত করা হয়েছিল। তবে মুখ্যমন্ত্রী সমাবর্তন অনুষ্ঠানে থাকবেন বলে মঙ্গলবারই রাষ্ট্রপতি ভবন থেকে জানানো হয়েছে।”

মুখ্যমন্ত্রীর সফর ঘিরে প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রশাসনও। বুধবার খড়্গপুরের রূপনারায়ণপুরে বৈঠকে বসে জেলা প্রশাসন। জেলাশাসক পি মোহন গাঁধী বলেন, “আমাদের কাছে এখনও সরকারিভাবে নির্দেশ আসেনি। তবে শুনেছি মুখ্যমন্ত্রী বৃহস্পতিবার আসবেন। তাই আমরা প্রস্তুতি নিয়ে রাখছি।” প্রশাসনিক সূত্রে জানা গিয়েছে, খড়্গপুরে এলে সাধারণত মুখ্যমন্ত্রী রূপনারায়ণপুরের কাছে একটি হোটেলে থাকেন। এ বারও সেখানে মুখ্যমন্ত্রী থাকতে পারেন। যদিও জেলাশাসক পি মোহন গাঁধী বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী কোথায় থাকবেন তা এখনও ঠিক হয়নি।”

মুখ্যমন্ত্রী যে রাস্তা ধরে আইআইটি যাবেন তা যানজটমুক্ত রাখার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রীর যাওয়ার পথে খড়্গপুর মহকুমা হাসপাতালও পড়বে। তাই মমতা খড়্গপুর মহকুমা হাসপাতালে পরিদর্শনে যেতে পারেন। সেই মতো আগাম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করা হয়েছে। জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক গিরিশচন্দ্র বেরা বলেন, “স্বাস্থ্য দফতরের একটি দল তো মুখ্যমন্ত্রীর জন্য থাকবেন। মুখ্যমন্ত্রী খড়্গপুর মহকুমা হাসপাতালে যদি যান সে জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করা হয়েছে।” 

২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে আইআইটি-র সমাবর্তনে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। কিন্তু সে বার মুখ্যমন্ত্রী ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না। তবে শনিবার ২১ জুলাইয়ের সমাবেশের ঠিক আগের দিন শুক্রবার চরম ব্যস্ততার মধ্যেও মুখ্যমন্ত্রীর খড়্গপুরে আসা নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে শাসকদলের অভ্যন্তরে। যদিও তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী বৃহস্পতিবার আসবেন বলে শুনেছি। তবে দলীয় কোনও কর্মসূচি নয়। মুখ্যমন্ত্রী যদি আসেন তবে আইআইটি-র সমাবর্তনে যোগ দিতেই আসবেন। মুখ্যমন্ত্রী যদি দেখা করার জন্য ডাকেন তবে যাব।”

রাষ্ট্রপতি ও মুখ্যমন্ত্রী একইসঙ্গে শহরে আসায় নিরাপত্তাও সুনিশ্চিত করতে চাইছে প্রশাসন। তাই বুধবার প্রশাসনিক এক প্রস্তুতি বৈঠকও হয়। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ ও প্রশাসনিক আধিকারিকরা। পুরপ্রধান প্রদীপ সরকার বলেন, “আইআইটির অনুষ্ঠানের জন্য মুখ্যমন্ত্রী বৃহস্পতিবার রাতে খড়্গপুরে আসবেন। তাই প্রস্তুতি বৈঠক হল। পুরসভার পক্ষ থেকে যা প্রয়োজনীয় তা করা হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে নিশ্চয় দেখা করব।”