রাজ্যের অধিকাংশ সিনেমা হল থেকে কার্যত নির্বাসিত ‘দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’। শুধু হিন্দ আইনক্স নয়, কলকাতার আরও কয়েকটি সিনেমা হলে শনিবার থেকে বন্ধ হয়ে গেল ওই ছবির শো। বর্ধমান শহরের সংস্কৃতি লোকমঞ্চেও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ছবির প্রদর্শন। শুক্রবার হিন্দ আইনক্সে গোলমাল হয়েছিল। রাতে কোয়েস্ট মলেও বড় মাপের হাঙ্গামা হয়। পুলিশ সূত্রের দাবি, হামলাকারীরা কংগ্রেস সমর্থক। প্রাচী সিনেমা হলের পক্ষ থেকে শনিবার বিদিশা বসু জানান, তাঁরা হিন্দের ওই ঘটনার পরেই নিরাপত্তার কারণে ‘দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’-এর শো বন্ধ করে দিয়েছেন। বেহালার অশোকা সিনেমা হলের কর্তৃপক্ষ জানান, পুলিশ নিরাপত্তা দিতে চেয়েছিল। কিন্তু তাঁরা আগে থেকেই শো বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলায় তা বদল করা যায়নি। 

পুলিশ সূত্রের দাবি, সিনেমাটির প্রদর্শন করতে চাইলে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে। কোয়েস্ট মলের ঘটনার পর বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহের ভিতরেও সাদা পোশাকের পুলিশ মোতায়েন থাকছে। রক্সি সিনেমার কর্ণধার সুনীত সিংহ বলেন, ‘‘শুক্রবার হিন্দে গোলমাল শুনে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। এ দিন থেকে পুলিশের ভরসায় ম্যা়টিনি শোয়ে সিনেমাটি চলছে। তবে টিকিট বিক্রির অবস্থা ভাল নয়।’’ আইনক্সের তরফে পূজা বসু জানিয়েছেন, একমাত্র হিন্দ বাদে তাঁদের সব প্রেক্ষাগৃহে সিনেমাটি চলছে। শুক্রবারের গোলমালের পরে হিন্দ-এ ওই ছবির প্রদর্শন স্থগিত রাখা হয়েছে।  

প্রকাশ্যে হাঙ্গামার আশঙ্কার কথা বলা হলেও ছবি বন্ধের পিছনে রাজনীতিরও গন্ধ পাচ্ছেন অনেকে। কারণ, ভোটের আগে ‘দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’ ছবিটির মুক্তি পাওয়া নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে অনেকের মনে। ওই ছবি কতটা রাজধানীর রঙ্গমঞ্চের গল্প এবং কতটা লোকসভা ভোটের আগে বিজেপির রাজনৈতিক হাতিয়ার, তা নিয়েও বিতর্ক রয়েছে। তাই এর প্রদর্শন বন্ধের পিছনেও পাল্টা রাজনৈতিক চাল থাকতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে। উল্লেখ্য, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুক্রবারই এই ছবির বিষয়বস্তু নিয়ে বিজেপিকে নিশানা করেছিলেন। 

আরও পড়ুন: ঘুম ছোটাব, টিপুকে নিয়ে হুঙ্কার মায়ার

তা হলে কি বকলমে পরিবেশক সংস্থাই সিনেমা চালাতে নারাজ? সূত্রের খবর, এ রাজ্যে ওই ছবির পরিবেশক সংস্থা এবং শাসক দলের মধ্যে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে। ফলে সেই সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না। যদিও পরিবেশক সংস্থার কর্ণধার শ্রীকান্ত মোহতা বলছেন, ‘‘আমরা কিছু পোস্টার লাগিয়ে ছবির প্রচারে সাহায্য করেছি। তবে ছবিটি ওরা মুম্বই থেকে সরাসরি রিলিজ করেছিল।’’ তবে তাঁর এ-ও দাবি, তাঁদের কোনও হলে ওই ফিল্ম চলছে না। কোথায় এ নিয়ে কী ঘটছে তা তাঁর জানা নেই। তবে সিনেমা পরিবেশক মহলের খবর, এ রাজ্যে বেশির ভাগ সিনেমা হলের মালিক ওই পরিবেশক সংস্থা। ফলে তাঁদের হলে না দেখানো মানে বেশির ভাগ হলেই চলছে না এই ছবি। 

পুলিশ জানিয়েছে, কোয়েস্ট মলের ঘটনায় ন’জন বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিন জন ধৃতের কাছ থেকে বেআইনি আগ্নেয়াস্ত্র মিলেছে। তবে মূল অভিযুক্ত রাকেশ সিংহের বাড়িতে তল্লাশি করেও তাঁর খোঁজ পাওয়া যায়নি। অভিযুক্তদের আইনজীবী দিব্যেন্দু ভট্টাচার্য জানান, ছ’জন অভিযুক্ত জামিনে ছাড়া পেয়েছেন। বাকি তিন জনের অস্ত্র আইনে মামলা হওয়ায় তাঁদের পুলিশ হেফাজতে পাঠানো হয়েছে।