Advertisement
২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Cyber Fraud

বিদ্যুতের লাইন কাটার ভয় দেখিয়ে গানের শিক্ষকের সর্বস্ব হাতাল প্রতারকরা, হুশ ফিরবে কবে?

কল্যাণের অভিযোগ, ব্যাঙ্কে গিয়ে অভিযোগ জানালেও কর্তৃপক্ষ গা করেননি। ব্যাঙ্ক থেকে তাঁকে বলা হয়েছে, ‘‘আপনিই আপনার টাকা তুলে নেওয়ার অনুমতি ওই ব্যক্তিকে ওটিপি শেয়ার করার মাধ্যমে দিয়েছেন।’’

representational image

— প্রতীকী ছবি।

আনন্দবাজার অনলাইন সংবাদদাতা
বজবজ শেষ আপডেট: ০২ ডিসেম্বর ২০২৩ ২০:২১
Share: Save:

প্রতারকদের পাতা ফাঁদে পা দিয়ে সর্বস্ব খোয়ালেন গানের শিক্ষক। বজবজের বাসিন্দা পেশায় গানের শিক্ষক কল্যাণ দাস কিছু দিন আগে নিজের মোবাইলে একটি বার্তা পান। তাতে বলা হয়, বিদ্যুৎ বিল জমা না দেওয়ার কারণে তাঁর বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেওয়া হবে। একটি ফোন নম্বর দিয়ে বলা হয় তাতে যোগাযোগ করতে। কল্যাণ সেই নম্বরে যোগাযোগ করেন। তার পরেই শুরু হয় আসল খেলা। দিনের শেষে তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে গায়েব ৯ লক্ষ টাকা। পুলিশ এবং ব্যাঙ্কের ভূমিকাতেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কল্যাণ। যদিও, সচেতনতার এত প্রচার সত্ত্বেও কী করে কল্যাণ প্রতারকদের ফাঁদে পা দিলেন, তা ভেবেই অবাক হচ্ছেন এলাকাবাসী।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার বজবজ ২ ব্লকের নোদাখালি থানার রায়পুরে মা, স্ত্রী এবং সন্তানকে নিয়ে সংসার কল্যাণের। পেশায় সঙ্গীতশিল্পী কল্যাণের বাড়ির বিদ্যুৎ বিল জমা দেওয়া বাকি ছিল। সম্প্রতি কল্যাণের ফোনে একটি বার্তা আসে। তাতে বলা হয়, তাঁর বিদ্যুতের বিল বকেয়া রয়েছে। লাইন কেটে দেওয়া হবে। বিদ্যুৎ সংযোগ চালু রাখতে একটি নম্বরে ফোন করার কথাও বলা হয়। কল্যাণ ওই নম্বরে ফোন করেন। তাঁকে বলা হয় একটি অ্যাপ ডাউনলোড করতে। ধাপে ধাপে বিভিন্ন প্রক্রিয়া শেষ করার পর তাঁকে বলা হয়, ৩ টাকা জমা করে তাঁর মোবাইলে একটি ওটিপি আসবে, তা জানাতে। কল্যাণ কিছুই সন্দেহ না করেওটিপি আসামাত্রই ফোনের অপর প্রান্তের ওই ব্যক্তিকে তা বলে দেন। এর পরেই ধাপে ধাপে তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট সাফ করে দেয় প্রতারকরা।

কল্যাণের অভিযোগ, ব্যাঙ্কে গিয়ে অভিযোগ জানালেও কর্তৃপক্ষ গা করেনি। ব্যাঙ্ক থেকে তাঁকে বলা হয়েছে, ‘‘আপনিই আপনার টাকা তুলে নেওয়ার অনুমতি ওই ব্যক্তিকে ওটিপি শেয়ার করার মাধ্যমে দিয়েছেন।’’ পুলিশের বিরুদ্ধেও গাফিলতির অভিযোগ রয়েছে কল্যাণের। তাঁর দাবি, স্থানীয় থানা অভিযোগ না নেওয়ায় তাঁকে ডায়মন্ড হারবার পুলিশ জেলার সাইবার ক্রাইম থানায় অনলাইনে অভিযোগ নথিভুক্ত করাতে হয়। তাতে অনেকটাই সময় পেরিয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত পুলিশ অবশ্য এ ব্যাপারে এফআইআর দায়ের করে তদন্ত শুরু করেছে।

ইদানীং মোবাইলে বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেওয়ার বার্তা পাঠিয়ে মানুষকে প্রতারণা করার কারবারের বাড়বাড়ন্ত হয়েছে। ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ বা পুলিশের তরফে বার বার সাধারণ মানুষকে এ নিয়ে সতর্ক করার বার্তাও প্রচারিত হচ্ছে। কিন্তু তাতেও যে মানুষ সচেতন হচ্ছেন না, তা পরিষ্কার কল্যাণের সর্বস্ব খোয়ানোর ঘটনায়।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE