Advertisement
১৬ জুন ২০২৪
Violence

রাজ্যের হিংসা-রিপোর্ট স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে, ‘বিজেপি-র তৈরি রিপোর্ট’ নিয়ে সরব তৃণমূল

রিপোর্টে অভিযোগ করা হয়েছে, বাংলায় ফল বেরনোর দিন থেকেই ছক কষে হিংসা শুরু হয়। অধিকাংশ হামলার নেতৃত্বে ছিল পেশাদার গুন্ডা, অপরাধীরা।

প্রতীকী চিত্র।

প্রতীকী চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ৩০ জুন ২০২১ ০৬:২০
Share: Save:

পশ্চিমবঙ্গে ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে রিপোর্ট জমা দিল ‘কল ফর জাস্টিস’ নামে নাগরিক সমাজের একটি প্রতিনিধি দল। রিপোর্টে রাজ্য প্রশাসনের ভূমিকার সমালোচনা করে বলা হয়েছে, ওই হিংসার ঘটনাগুলি বিক্ষিপ্ত ঘটনা নয়, বরং পরিকল্পনা করে ওই হিংসা সংঘটিত করা হয়েছে। বেসরকারি সংস্থার সমীক্ষা করা রিপোর্ট হলেও, তা খতিয়ে দেখে উপযুক্ত পদক্ষেপ করার আশ্বাস দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জি কিষেণ রেড্ডি। ওই রিপোর্টকে গুরুত্ব দিতে নারাজ তৃণমূল নেতৃত্ব। দলের বক্তব্য, ‘বিজেপির নির্দেশে তৈরি’ রিপোর্ট যে রাজ্য প্রশাসনের বিরুদ্ধে যাবে, তা সকলেরই জানা ছিল।

রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন মিটে যাওয়ার পর থেকেই বিক্ষিপ্ত হিংসার একাধিক ঘটনা সামনে আসতে শুরু করে। বিজেপির অভিযোগ, পরিকল্পিত ভাবে তাদের কর্মীদের উপরে প্রশাসনের মদতে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে তৃণমূল সমর্থকেরা। সম্প্রতি ওই প্রতিনিধি দল পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্ত ঘুরে এসে আজ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর কাছে রিপোর্ট জমা দেয়। প্রতিনিধি দলটির প্রধান ছিলেন সিকিম হাইকোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি প্রমোদ কোহলি। রিপোর্টে অভিযোগ করা হয়েছে, বাংলায় ফল বেরনোর দিন থেকেই ছক কষে হিংসা শুরু হয়। অধিকাংশ হামলার নেতৃত্বে ছিল পেশাদার গুন্ডা, অপরাধীরা। হামলায় মানুষের সম্পত্তি, ব্যবসা ও বাড়িঘরের ক্ষতি হয়। রিপোর্টে দাবি, বহু ক্ষেত্রেই পুলিশকে অভিযোগ জানাতে গেলে তারা সেই অভিযোগ নিতে চায়নি বা রফা করতেও চাপ দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া এলাকাগুলিতে জনবিন্যাস পাল্টে যাওয়া বর্তমানে হিংসা ও বেআইনি কার্যকলাপ বৃদ্ধির অন্যতম কারণ বলে দাবি করেছে কমিটি। রিপোর্টে বলা হয়েছে, খোলা সীমান্তের কারণে এলাকাগুলির অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা ঝুঁকির মুখে। এমনকি, সন্ত্রাসবাদ ও কট্টরপন্থীদের রুখতে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থাকে দিয়ে সামগ্রিক পরিস্থিতি তদন্তের সুপারিশ করা হয়েছে রিপোর্টে। এ দিন বঙ্গ বিজেপির বৈঠকে তাঁর ভার্চুয়াল বক্তৃতাতেও জাতীয় সভাপতি জে পি নড্ডা এই রিপোর্টের সবিস্তার উল্লেখ করেন।

তৃণমূলের রাজ্যসভা সাংসদ সুখেন্দু্শেখর রায় বলেন, ‘‘বিজেপির তৈরি করে দেওয়া কমিটির কাছে নিরপেক্ষতা গোড়া থেকেই কেউ আশা করেননি। বিধানসভায় হেরে যাওয়ায় এখন তৃণমূলকে যে কোনও ভাবে হেয় করতে তৎপর রয়েছে বিজেপি। এই রিপোর্টটি সেই পরিকল্পনারই অংশ।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE