×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

স্বামীকে ফিরে পেতে ভাতারে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় গৃহবধূ

নিজস্ব সংবাদদাতা
বর্ধমান ০৫ জানুয়ারি ২০২১ ০২:০২
শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্না। নিজস্ব চিত্র।

শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্না। নিজস্ব চিত্র।

বাড়ির অমতে ভিন‌্ধর্মে বিয়ে করেছিলেন এক মহিলা। অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির লোকেরা স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে দিচ্ছেন না। তাই স্বামীকে ফিরে পেতে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন ওই মহিলা। পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের কালিপাহাড়ি গ্রামের ঘটনা।

স্থানীয় সূত্রে খবর, মাস দুয়েক আগে বিয়ের করেন ওই যুগল। বাড়ির মত না থাকায় বিয়ের পর ভাড়া বাড়িতে থাকতেন তাঁরা। দিন পাঁচেক আগে মহিলা তাঁর স্বামীর সঙ্গে শ্বশুর বাড়িতে যান। অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির লোক তাঁকে বাড়িতে ঢুকতে দেননি। শুধু তাই নয়, স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগও করতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ।

সোমবার ভাতারে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসে ওই মহিলা বলেন, “মায়ের জন্য মন খারাপ করছে বলে স্বামী ওর নিদের বাড়িতে যেতে চেয়েছিল। আমিও সঙ্গে গিয়েছিলাম। কিন্তু শ্বশুরবাড়িতে আমাকে ঢুকতে না দেওয়ায় ফিরে যাই। আশা করেছিলাম কিছু দিন পর সব কিছু মিটে যাবে। কিন্তু তার পর থেকে স্বামীর সঙ্গে আর ফোনে যোগাযোগ করতে পারছি না।” মহিলার দাবি, স্বামীকে লুকিয়ে রাখা হয়েছে। সামনে আসতে দেওয়া হচ্ছে না। তাই বাধ্য হয়ে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসেছেন।

Advertisement

মহিলার শ্বশুর বলেন, “আমার ছেলে বাড়ির অমতে আমাদের না জানিয়ে বিয়ে করেছে। এই বিয়ে আমরা মানি না। যদিও আমার ছেলে প্রাপ্ত বয়স্ক। তাই তাকে বাধা দিতেও চাই না। তবে ছেলেকে বলেছি বাড়িতে জায়গা হবে না। তারপর সে কোথায় গিয়েছে আমি জানি না।”

পাল্টা অভিযোগ, তাঁদের ছেলেকে ভাল চাকরির টোপ দিয়ে ডেকে নিয়ে গিয়ে বিয়ে করেছেন ওই মহিলা। আগেও এক বার বিয়ে হয়েছিল তাঁর। যদিও মহিলা এই অভিযোগকে সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে পাল্টা দাবি করেছেন। তিনি বলেন, “আমার স্বামীকে সবার সামনে হাজির করলেই সব সত্যিটা স্পষ্ট হবে।”

মাস দশেক আগে ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয়েছিল ওই যুগলের। তার পর তাঁদের মধ্যে প্রণয়ের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দু’মাস আগেই বিয়ে করেছেন তাঁরা।

Advertisement