×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৯ মে ২০২১ ই-পেপার

ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত মগরাহাট, গুলিবিদ্ধ ৬, অভিযুক্ত তৃণমূল

নিজস্ব সংবাদদাতা
মগরাহাট ১৬ মে ২০১৮ ১০:৪১
গুলিবিদ্ধ মণিরুল গাজিকে নিয়ে এনআরএস হাসপাতালে আসা হচ্ছে। —নিজস্ব চিত্র।

গুলিবিদ্ধ মণিরুল গাজিকে নিয়ে এনআরএস হাসপাতালে আসা হচ্ছে। —নিজস্ব চিত্র।

ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত হল মগরাহাট থানা এলাকার জুগদিয়া গ্রাম।

কংগ্রেস এবং সিপিএম জোটের মোট ছ’জন গুলিবিদ্ধ হয়। অভিযোগ, তৃণমূলের বিরুদ্ধে। শাসক দলের আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই গুলি চালিয়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের।

মঙ্গলবার রাতের এই ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার এই এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে খবর, গুলিবিদ্ধ ছ’জনের মধ্যে তিন জনকে গত কাল রাতেই এনআরএস হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে। বছর চল্লিশের জিয়াউল মোল্লা, আখতার হুসেন মোল্লা এবং পঁয়ত্রিশ বছরের মণিরুল গাজি নামের ওই তিন জন এই মুহূর্তে এনআরএসে চিকিৎসাধীন। তাঁদের কারও হাতে, কারও দুই পায়ে, কারও বা আবার গলায় গুলি লেগেছে বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর। এঁদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন মণিরুল। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, মণিরুলের গলায় গুলি লেগেছে।

Advertisement



দুষ্কৃতীদের গুলিতে আহত মগরাহাটের এক স্থানীয় বাসিন্দা। —নিজস্ব চিত্র।

পুলিশ এবং স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত কাল সন্ধ্যা সা়ড়ে ৬টা নাগাদ মগরাহাটের জুগদিয়া গ্রামের কয়েক জন বাসিন্দা পাড়ার একটি দোকানে বসে চা খাচ্ছিলেন। অভিযোগ, সেই সময় আচমকা জাকির গায়েন নামে এলাকার এক তৃণমূল নেতা ও তাঁর দলবল তাঁদের উপর চড়াও হয়। কেন সেখানে বসে তাঁরা চা খাচ্ছেন বলে হুমকিও দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। এর পর কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই এক দল দুষ্কৃতী তাঁদের উপর এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে। সেখানেই গুলি লাগে ছ’জনের। আহতদের মধ্যে তিন জনকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। বাকি তিন জনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় এনআরএসে নিয়ে আসা হয়।

আরও পড়ুন: ‘অশান্ত বাংলায় নিহত গণতন্ত্র’, পঞ্চায়েত নিয়ে চড়া আক্রমণে মোদী

হাসপাতালে নিয়ে আসার পথে গুলিবিদ্ধ জিয়াউল মোল্লা এবং আখতার হুসেন মোল্লার দাবি, “এই ঘটনায় প্রশাসনের লোকজন জড়িত রয়েছে।” তাঁদের অভিযোগ, “ওরা পুরো গ্রামটাকেই দখল করতে চায়। জাকির গায়েন নামে তৃণমূলআশ্রিত এক দুষ্কৃতী আর তার দলবল এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত। তারাই এ দিন গুলি চালিয়েছে।”

গুলিচালনার ঘটনার পরই এলাকায় বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েক জনকে আটকও করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে খবর, এলাকা থেকে বেশ কিছু অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

Advertisement