×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১১ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

খুন করে ব্যাগে, গ্রেফতার দম্পতি

নিজস্ব সংবাদদাতা
দুর্গাপুর ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ০৪:০১
উদ্ধার: এই ব্যাগেই মিলেছিল শিল্পার দেহ। ইনসেটে, ধৃত দম্পতি। ছবি: বিকাশ মশান।

উদ্ধার: এই ব্যাগেই মিলেছিল শিল্পার দেহ। ইনসেটে, ধৃত দম্পতি। ছবি: বিকাশ মশান।

দুর্গাপুর থানায় ফোনটা এসেছিল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ। ফোনে এক মহিলাকণ্ঠ পুলিশকে বলল, ‘আমাদের ফ্ল্যাটে একটা মেয়ে সুইসাইড করেছে।’

ফোন এসেছিল শিল্প-শহরের বেনাচিতি এলাকার একটি বহুতল থেকে। ফোন পেয়েই পুলিশ ৯টা নাগাদ বারো তলার ওই বহুতলের চার তলায় ‘৪-বি’ নম্বর ফ্ল্যাটে যায়। করিডরে লিফটের সামনে একটা ছোট ঘর থেকে উদ্ধার হয় শিল্পা অগ্রবাল (২৮) নামে বাঁকুড়ার মেজিয়ার বাসিন্দা এক যুবতীর বিবস্ত্র দেহ। নীলচে-বেগুনি রঙের নতুন কেনা ট্রলি-ব্যাগে বন্দি সেই দেহে তত ক্ষণে পচন ধরতেও শুরু করেছে! শিল্পাকে খুনের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে ওই ফ্ল্যাটের ভাড়াটে রাজীব কুমার ও তাঁর স্ত্রী মনীষাকে।

একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের মেজিয়া শাখার ম্যানেজার রাজীব। মনীষা ওই ব্যাঙ্কেরই দুর্গাপুরের ফুলঝোড় শাখার সহকারী ম্যানেজার। রাজীবের ব্যাঙ্কেই ‘ব্যাঙ্ক-মিত্র’ হিসেবে কাজ করতেন শিল্পা। তাঁর বাড়ি থেকে ঢিল ছোড়া দূরত্বে ওই ব্যাঙ্ক। কুমার দম্পতির বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। আসানসোল-দুর্গাপুরের পুলিশ কমিশনার লক্ষ্মীনারায়ণ মিনা বলেন, ‘‘প্রাথমিক ভাবে খুন বলেই মনে হচ্ছে। তবে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট মৃত্যুর কারণ স্পষ্ট হবে।’’

Advertisement

এই ঘটনা উস্কে দিয়েছে আড়াই বছর আগে দুর্গাপুরেরই সুচেতা চক্রবর্তী এবং তাঁর শিশুকন্যা খুনের স্মৃতি।

শিল্পার পরিবার জানায়, গত শুক্রবার সকালে তিনি আসানসোলে মাসির বাড়ি যান। শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় ফোনে শিল্পা বলেন, ‘বাড়ি ফিরছি’। তার পরেই মোবাইল বন্ধ হয়ে যায়। বাড়ি না ফেরায় মঙ্গলবার মেজিয়া থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করা হয়। শিল্পার জামাইবাবু সন্দীপ বুয়ানিয়ার দাবি, ‘শেয়ার বাজারে’ খাটানোর নাম করে শিল্পার কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা নেন রাজীব। টাকা ফেরত নিয়ে দু’জনের গোলমাল চলছিল। শিল্পার খুড়তুতো ভাই টিঙ্কু অগ্রবালের দাবি, সে কারণেই তাঁর বোনকে খুন করা হয়েছে।

তবে খুনের পিছনে সম্পর্কের টানাপড়েনও থাকতে পারে বলেও পুলিশের ধারণা। তদন্তকারীদের দাবি, জেরায় বছর পঁয়ত্রিশের রাজীব তাঁদের জানান, শিল্পার সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ছিল। রাজীবের স্ত্রী শুক্রবার রাঁচীতে বাপের বাড়ি যান। সোমবার ফেরেন দুর্গাপুরে। শিল্পা শনিবার রাতে ওই ফ্ল্যাটে আসেন। রবিবার সকালে ঘুম থেকে উঠে তিনি দেখেন, পাশের ঘরে শিল্পার ঝুলন্ত দেহ।

Advertisement