Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

ছেঁকায় মৃত শিশু, গ্রেফতার তান্ত্রিক

পীযূষ নন্দী
খানাকুল ২৬ অগস্ট ২০১৭ ০৯:৩০

মাস দেড়েক ধরে ধূপের ছ্যাঁকা দিয়ে একটি রুগ্ণ ১০ মাসের শিশুর ‘চিকিৎসা’ করছিল তান্ত্রিক পিসেমশাই। শুক্রবার সেই ‘চিকিৎসা’র সময় শিশুটির মৃত্যুতে তার পিসেমশাইয়ের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ তুললেন গ্রামবাসী।

রনিত গাংলি নামে ওই শিশুটির বাড়ি পশ্চিম মেদিনীপুরের মাংরুলে। তার পিসেমশাই বিকাশ রায়ের বাড়ি পাশেই হুগলির খানাকুলের উদনা গ্রামে। মৃত রনিতকে পুঁতে দেওয়া হয় অভিযুক্তের ঘরের কালীমূর্তির সামনে। এ দিন দুপুরে পুলিশ গিয়ে লাল কাপড়ে জড়ানো দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়। আটক করা হয় বিকাশ ও তার পরিবারের লোকজনকে। বিকেল পর্যন্ত থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়নি। পুলিশের দাবি, বিকাশ ‘চিকিৎসা’র কথা কবুল করে জানায়, শিশুটি তার কোলেই মারা গেলে সে পুঁতে দেয়।

খানাকুল-১ ব্লকের বিডিও অমর বিশ্বাস বলেন, ‘‘শিশুটির কপাল, গাল-সহ শরীরের নানা জায়গায় ছ্যাঁকায় চামড়ার রং তামাটে হয়ে গিয়েছে।” শিশুটির মা রীতা গাংলি বলেন, ‘‘জন্ম থেকেই ছেলে রুগ্ণ। নন্দাই বলল, ছেলেকে ভূতে ধরেছে। দু’মাসের মধ্যে সারিয়ে দেবে।’’

Advertisement

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শিশুটির বাবা রাজু গাংলি সোনা-রুপোর কাজ করেন। কর্মসূত্রে মুম্বইয়ে থাকেন। বছর ত্রিশের বিকাশ আগে বছর আটেক ধরে তুকতাক করছিল। গ্রামে নিজেকে ‘তান্ত্রিক’ বলে প্রচারও করে সে। ঘরে নানা দেবদেবীর মূর্তি বসিয়ে ধূপ-ধুনোর ছ্যাঁকা দিয়ে ‘চিকিৎসা’ও চালাচ্ছিল।

মাস দেড়েক ধরে ছেলেকে নিয়ে নন্দাইয়ের বাড়িতেই থাকছিলেন রীতা। ছেলের অসুখ সেরে গেলে তাঁর মন্দির বাঁধিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এ দিন নন্দাই ছেলেকে নিয়ে পুজোর ঘরে ঢুকে গেলে ওই বাড়ির দাওয়ায় বসেছিলেন রীতা। ঘণ্টাখানেক পরে শিশুটিকে নিয়ে বিকাশ বেরিয়ে আসে। দুধ খাওয়াতে গিয়ে রীতা দেখেন, ছেলে মৃত। এর পরে ‘দেবীর স্বপ্নাদেশ’-এর কথা বলে বিকাশ শিশুটির দেহ নিয়ে গিয়ে পুঁতে দেন বলে অভিযোগ। তার পরে রীতাকে বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছিল বিকাশ। মহিলাকে কাঁদতে দেখে গ্রামবাসীদের সন্দেহ হয়। খবর যায় পুলিশে।

আরও পড়ুন

Advertisement