Advertisement
১৯ জুন ২০২৪
Babul Supriyo

Babul Supriyo: সাত বছরে সাতের মধ্যে মাত্র দুই, পরীক্ষায় খারাপ নম্বরেই কি মন্ত্রিত্ব গেল বাবুলের

সদ্যসমাপ্ত বিধানসভা নির্বাচনের রিপোর্ট কার্ড বলছে,সফল হননি রাজনীতিক বাবুল। নিজে টালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে হেরে গিয়েছেন।

মন্ত্রিত্ব খোয়ালেন বাবুল।

মন্ত্রিত্ব খোয়ালেন বাবুল। —ফাইল চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৭ জুলাই ২০২১ ১৬:০১
Share: Save:

ছিলেন বলিউডের নেপথ্যগায়ক। চলাফেরা ছিল মূলত গ্ল্যামার জগতেই। হঠাৎই রাজনীতির সমুদ্রে ঝাঁপ। তা-ও অত্যন্ত নাটকীয় ভাবে। মুম্বই-দিল্লি উড়ানে পাশের আসনের যাত্রী যোগগুরু বাবা রামদেবকে বাবুল বলে বসেন, তিনি রাজনীতিতে আসতে চান। তাঁকে কি একটা লোকসভার টিকিটের ব্যবস্থা করে দেওয়া যেতে পারে? রামদেব রাজি হয়েছিলেন। নয়াদিল্লিতে সফদরজম হাসপাতালের অনতিদূরে ঝান্ডেওয়ালায় সঙ্ঘের দফতরে গিয়ে গান-টানও শুনিয়েছিলেন। অতঃপর বিজেপি-তে যোগ।

বিজেপি-তে যোগ দিয়েই লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী। রাজনীতিতে নেমেই সাংসদ। আর সাংসদ হয়েই মন্ত্রী। গেরুয়া রাজনীতিতে এমনই ছিল বাবুল সুপ্রিয়র উত্থান। কিন্তু বুধসন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার রদবদলে আচমকা কেন তাঁকে মন্ত্রিত্ব খোয়াতে হল? প্রশ্নের পাশাপাশি উত্তরও শোনা যাচ্ছে রাজ্য বিজেপি-র অন্দরে।

যোগগুরুর পছন্দের বাবুলকে কাছে টেনে নিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদীও। তখনও তিনি অবশ্য প্রধানমন্ত্রী হননি। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে মোদী আসানসোলে এসে বলেছিলেন, ‘‘হামে বাবুল চাহিয়ে।’’মোদীর কথা শুনেছিল আসানসোল। ৭০ হাজারের বেশি ভোটের ব্যবধানে তৃণমূলের শ্রমিকনেত্রী দোলা সেনকে হারান বাবুল। আসানসোল লোকসভা আসনের অন্তর্গত সাতটি বিধানসভা এলাকার মধ্যে পাঁচটিতেই বিজেপি জয় পেয়েছিল। জামুরিয়ায় সিপিএম এবং পাণ্ডবেশ্বরে জেতে তৃণমূল। পাঁচ বছর পরে আরও ভাল ফল হয় আসানসোল কেন্দ্রে। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটেসাতটির মধ্যে সাতটি বিধানসভা এলাকাতেই জয় পেয়ে বাবুল তৃণমুলের মুনমুন সেনকে হারান প্রায় দু’লাখ ভোটে।

প্রথম দফার মন্ত্রিত্বের সময়েই বাবুল সম্পর্কে সরকারের অন্দরে নানা অনুযোগ শোনা যেত। তাঁর জীবনযাপন নিয়েও দলের একটা অংশের অনুযোগ ছিল। বলিউডি বিনোদন জগতের প্রতিভূ বাবুল সর্বত্র গিয়ে গান গাইতেন। মোটরসাইকেল দাবড়ে বেড়াতেন রাজধানীতে। যা কখনও সখনও নিরাপত্তারক্ষীদেরও বিপাকে ফেলেছে। বাবুলের ঘনিষ্ঠরা জানেন, একবার মোটরসাইকেল চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে ঢুকতে গিয়েছিলেন বাবুল। তাঁকে প্রধান ফটকেই আটকে দেন নিরাপত্তারক্ষীরা। সেই জল এতদূর গড়ায় যে, হস্তক্ষেপ করতে হয় স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীকে। তিনি বাবুলকে বুঝিয়ে বলেন যে, একজন মন্ত্রীর পক্ষে এ ভাবে নিরাপত্তার ঝুঁকি নেওয়াটা ঠিক নয়।

বিজেপি-র একটা অংশের আপত্তি ছিল বাবুলের ‘পাবলিক পারফরম্যান্স’ নিয়েও। অনুষ্ঠানের ওজন বিচার না করেই গান গাইতে শুরু করতেন মন্ত্রী। একবার স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে পাছে গান শুরু করেন ভেবে তাঁর সচিব সাবধান করে তাঁকে বলেছিলেন, ‘‘স্যর, এখানে কিন্তু গান গাইবেন না!’’ বলিউডের বিভিন্ন সুপারহিট গানের রূপকার বাবুল সে যাত্রা আর গানটা করেননি।

তার পরেও দ্বিতীয় দফায় বাবুলকে কেন্দ্রে মন্ত্রী করা হয়েছিল তাঁর লোকসভায় বিপুল জয়ের কারণে। কিন্তু তুলনায় কম গুরুত্বের দফতর দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। কারণ, বিভিন্ন অনুযোগ তখনও রয়েই গিয়েছিল। তা অনেকটা জলবাতাস পায় বিধানসভা ভোটের প্রচারে টালিগঞ্জের রাস্তায় বাবুল মোটরসাইকেল নিয়ে নেমে পড়ায়। বিজেপি-র শীর্ষনেতৃত্ব মনে করেছিলেন, ওই স্টাইলের প্রচারে রাজনীতি কম, বলিউডের ‘মজলিসি’ ছোঁয়া বেশি রয়েছে। অমিত শাহ-সহ দলের শীর্ষনেতারা ওই ধরনের প্রচারকে খুব ভাল চোখে দেখেননি। বাবুল ভোটে হেরে যাওয়ায় দলের অন্দরে তাঁর নিন্দকেরা আরও উৎসাহী হয়ে ওঠেন।

সদ্যসমাপ্ত বিধানসভা নির্বাচনের রিপোর্ট কার্ড বলছে, সফল হননি রাজনীতিক বাবুল। টালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে হেরে গিয়েছেন। আসনসোলের সাতটি বিধানসভার মধ্যে আসানসোল দক্ষিণ এবং কুলটি ছাড়া কোথাও জয় পায়নি বিজেপি। বাবুলের সমর্থকেরা অবশ্য বলছেন, নিজে বিধানসভা ভোটের প্রচারে ব্যস্ত থাকায় আসানসোলে সময় এবং নজর দিতে পারেননি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তবে এর বিপক্ষেও যুক্তি দেওয়ার লোক আছে। যে অংশ বলছে, বাবুল নিজে না থাকলেও তাঁর লোকসভা এলাকার সংগঠন তো ছিল!

নীলবাড়ির লড়াইয়ে গোটা রাজ্যেই বিজেপি-র ফল খারাপ। কিন্তু যে সাংসদদের এলাকায় ফল বেশি খারাপ, তাঁদের অন্যতম বাবুল। বাবুলের চেয়েও খারাপ ফল হয়েছে লকেট চট্টোপাধ্যায়ের হুগলি এবং কুনার হেমব্রমের ঝাড়গ্রামে। কিন্তু তাঁরা তো আর মন্ত্রী নন যে, ছেঁটে ফেলে বার্তা দেওয়া হবে। বুধবার সকালেই বাবুলকে তাঁর মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগ করতে বলা হয়। কিন্তু বাবুল স্বয়ং সেটা মানতে রাজি নন। নিজের ফেসবুকেও ওয়ালে তিনি লিখেছেন, ‘ইস্তফা দিতে বলা হয়েছে’ কথায় তাঁর আপত্তি রয়েছে। তবে মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন বাবুল। জানিয়েছেন, এতে তিনি দুঃখিত।

টানা সাতবছর মন্ত্রী ছিলেন বাবুল। ২০১৪ সালে প্রথম হন কেন্দ্রীয় নগরোন্নয়ন দফতরের প্রতিমন্ত্রী। এর পরে ২০১৬ সালে দফতর বদলে হয় ভারী শিল্প এবং রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প। ২০১৯ সালে সাংসদ হওয়ার পরে বাবুল তুলনায় কম গুরুত্বপূর্ণ দফতর (পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন) পেয়েছিলেন বলেই বিজেপি-র অনেকে মনে করেন। তবে বিজেপি-র একটি সূত্রের দাবি,নিজের লোকসভা এলাকায় বিধানসভা নির্বাচনে খারাপ ফল ছাড়াও তৃণমূল থেকে জিতেন্দ্র তিওয়ারিকে বিজেপি-তে নেওয়ার বিষয়ে প্রকাশ্যে আপত্তি তোলা-সহ থেকে মোটর সাইকেল নিয়ে ভোটের প্রচারের মতো বিষয়ে বিজেপি-র কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব পছন্দ করেননি। তার কোনও প্রভাব বুধবারের সিদ্ধান্ত পড়েছে কি না, তা নিয়ে বিতর্ক আছে। তবে যা নিয়ে বিতর্ক নেই, বাবুল এখন ‘প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী’।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE